ঢাকা ০৫:৪৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

উল্লাপাড়ায় শ্বশুর বাড়ির আত্মীয়দের হামলায় আহত পুলিশ সদস্য

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:০৫:২৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ অক্টোবর ২০২২
  • / ৫১৮ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

উল্লাপাড়া প্রতিনিধি :

উল্লাপাড়ায় পুলিশ সদস্যকে পিটিয়ে আহত করে হাসপাতালে পাঠালেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন। ঘটনাটি ঘটেছে উল্লাপাড়া উপজেলার বড়হর ইউনিয়নের গুঁয়াগাতি গ্রামে। গত বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টায় রাঙ্গামাটি জেলা পুলিশের সদস্য কনস্টেবল শহিদুল ইসলাম শ্বশুরবাড়ি থেকে তার স্ত্রীকে আনতে গেলে রাস্তা আটকিয়ে অতর্কিত হামলা করেন তার শশুর শাশুড়ীসহ ৩০- ৩৫ জন।

হামলার শিকার কনস্টেবল শহিদুল ইসলাম জানান, আমি রাঙ্গামাটিতে কর্মরত থাকা অবস্থায় আমার স্ত্রী আমার সকল শিক্ষার সনদপত্র, ব্যাংকের চেক বই, স্বর্ণালংকার, কম্পিউটার, মোবাইল সেটসহ প্রায় ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার জিনিসপত্র নিয়ে বাবার বাড়ি চলে যায়। আমি বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষার জন্য ছুটি নিয়ে বাড়িতে আসলে আমার স্ত্রীকে সবকিছু নিয়ে আসতে বলি, তখন আমার স্ত্রী স্থানীয় গুয়াগাতি মধ্যপাড়া বটগাছ তলায় আমাকে আসতে বলে। আমি সেখানে গেলে আমার শ্বশুরের নেতৃত্বে ৩০-৩৫ জন অতর্কিত হামলা করে আমাকে হাত-পা বেঁধে গাড়িতে করে আমার শশুর বাড়িতে নিয়ে গিয়ে রুমে আটকিয়ে মারধর করে। আমার মামাতো ভাই জরুরী সেবা ৯৯৯ ফোনে দিলে উল্লাপাড়া মডেল থানা পুলিশ আমাকে উদ্ধার করে। আমাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করার পর সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে আমার বড় ভাই। এখন আমার শশুর বাড়ি থেকে নারী নির্যাতনের মামলা দিয়ে চাকরি খাওয়ার হুমকি দিচ্ছে।

মারধরের বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে পুলিশ সদস্য শহিদুলের শশুর বোয়ালিয়া গ্রামের করিম ফকির বলেন, আমার মেয়েকে প্রায়ই মারধর করতো আমার মেয়ের জামাই, তাই তাকে শায়েস্তা করেছি মাত্র।

এ বিষয়ে উল্লাপাড়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ নজরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

উল্লাপাড়ায় শ্বশুর বাড়ির আত্মীয়দের হামলায় আহত পুলিশ সদস্য

আপডেট সময় : ০৭:০৫:২৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ অক্টোবর ২০২২

উল্লাপাড়া প্রতিনিধি :

উল্লাপাড়ায় পুলিশ সদস্যকে পিটিয়ে আহত করে হাসপাতালে পাঠালেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন। ঘটনাটি ঘটেছে উল্লাপাড়া উপজেলার বড়হর ইউনিয়নের গুঁয়াগাতি গ্রামে। গত বৃহস্পতিবার সকাল ৯ টায় রাঙ্গামাটি জেলা পুলিশের সদস্য কনস্টেবল শহিদুল ইসলাম শ্বশুরবাড়ি থেকে তার স্ত্রীকে আনতে গেলে রাস্তা আটকিয়ে অতর্কিত হামলা করেন তার শশুর শাশুড়ীসহ ৩০- ৩৫ জন।

হামলার শিকার কনস্টেবল শহিদুল ইসলাম জানান, আমি রাঙ্গামাটিতে কর্মরত থাকা অবস্থায় আমার স্ত্রী আমার সকল শিক্ষার সনদপত্র, ব্যাংকের চেক বই, স্বর্ণালংকার, কম্পিউটার, মোবাইল সেটসহ প্রায় ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার জিনিসপত্র নিয়ে বাবার বাড়ি চলে যায়। আমি বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষার জন্য ছুটি নিয়ে বাড়িতে আসলে আমার স্ত্রীকে সবকিছু নিয়ে আসতে বলি, তখন আমার স্ত্রী স্থানীয় গুয়াগাতি মধ্যপাড়া বটগাছ তলায় আমাকে আসতে বলে। আমি সেখানে গেলে আমার শ্বশুরের নেতৃত্বে ৩০-৩৫ জন অতর্কিত হামলা করে আমাকে হাত-পা বেঁধে গাড়িতে করে আমার শশুর বাড়িতে নিয়ে গিয়ে রুমে আটকিয়ে মারধর করে। আমার মামাতো ভাই জরুরী সেবা ৯৯৯ ফোনে দিলে উল্লাপাড়া মডেল থানা পুলিশ আমাকে উদ্ধার করে। আমাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করার পর সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে আমার বড় ভাই। এখন আমার শশুর বাড়ি থেকে নারী নির্যাতনের মামলা দিয়ে চাকরি খাওয়ার হুমকি দিচ্ছে।

মারধরের বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে পুলিশ সদস্য শহিদুলের শশুর বোয়ালিয়া গ্রামের করিম ফকির বলেন, আমার মেয়েকে প্রায়ই মারধর করতো আমার মেয়ের জামাই, তাই তাকে শায়েস্তা করেছি মাত্র।

এ বিষয়ে উল্লাপাড়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ নজরুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি, অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।