ঢাকা ০৪:৪৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

রাজধানীর অলিগলিতে সতর্ক অবস্থানে আওয়ামী লীগ কর্মীরা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:৩৮:২১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২
  • / ৪৪৬ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ শুরু হয়ে গেছে। রাজধানীর গোলাপবাগ মাঠে জড়ো হয়েছেন দলটির নেতাকর্মীরা।

এদিকে সকাল থেকেই রাজধানীর সড়ক ও পাড়া মহল্লায় সতর্ক অবস্থানে রয়েছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। তারা পাহারা বসিয়েছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, শনিবার (১০ ডিসেম্বর) সকাল থেকে দলবেঁধে বিভিন্ন মোড়ে অবস্থান নেয় ক্ষমতাসীনরা। প্রায় প্রতিটি থানা-ওয়ার্ডে মিছিল করেছেন নেতাকর্মীরা। পিকআপ এবং মোটরসাইকেল নিয়ে মহড়াও দেন তারা। ‘শেখ হাসিনার ভয় নাই, রাজপথ ছাড়ি নাই’, ‘বিএনপির দালালরা হুঁশিয়ার, সাবধান’-এসব নানা স্লোগান দিতে শোনা যায় তাদের।

সকাল ৭টা থেকে আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয় এবং ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে অবস্থান করছেন দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা। এছাড়া মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের নেতারা সতর্ক অবস্থান করছেন। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়াসহ কেন্দ্রীয় ও নগর নেতারা উপস্থিত রয়েছেন। যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুর রহমান সোহাগ, প্রচার সম্পাদক জয়দেব নন্দী উপস্থিত আছেন।

এদিকে, ঢাকার বিভিন্ন থানা ওয়ার্ডেও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সতর্ক অবস্থানে রয়েছেন। শনিবার (১০ ডিসেম্বর) সকালে রাজধানীর কদমতলী থানা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মিছিল করেছেন। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৫৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আকাশ কুমার ভৌমিকে নেতৃত্বে মিছিলে ৫৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শফিকুল ইসলাম সাইজুল, থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি তাজুল ইসলাম তাজু, অর্থ সম্পাদক ফজলুল হক ফজু, শ্যামপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক ওমর ফারুক, কদমতলী থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জিহাদ মাতুব্বর, থানা তাঁতী লীগের সভাপতি মনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কায়উম প্রমুখ।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফি রাজধানীর পোস্তগোলা, ধোলাইপার, ঢাকা ম্যাসসহ বিভিন্ন এলাকায় সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন।

এদিকে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ রাজধানীর বিভিন্ন মোড়ে মিছিল ও শোডাউন করেছেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। ঢাকা মহানগর উত্তর যুব মহিলা লীগের সভাপতি সাবিনা আক্তার তুহিনের নেতৃত্বে মিরপুরের মাজার গেটে সকাল থেকে অবস্থান করছেন সংগঠনটির নেতাকর্মীরা।

এছাড়াও ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউ এলাকায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল করে উপস্থিত হন। তারা জয় বাংলা-জয় বঙ্গবন্ধু স্লোগানে মুখরিত করে।

এছাড়া প্রতিটি ওয়ার্ড ও থানা থেকে এসব মিছিল বের হয়ে প্রধান সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে। কিছু মিছিল আওয়ামী লীগের প্রধান কার্যালয় বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে যায়। ঘাট শ্রমিক লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠন বিক্ষোভ মিছিল করে। এছাড়া বংশাল, সূত্রাপুর ও চকবাজার, ডেমরা, ওয়ারিতে বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে।

মিরপুরের সবগুলো এলাকায় মূল সড়কসহ বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় বিক্ষোভ করেছেন সংগঠনটির বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী। ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান সজল মোল্লার নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল শেষে সর্তক অবস্থান নেন।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি কামরুল হাসান রিপনের নেতৃত্বে ঢাকা-৫ নির্বাচনী আসনের বিভিন্ন স্থানে মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ ছাড়া ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের উদ্যোগে এ বিভিন্ন থানা-ওয়ার্ডে মিছিল হয়েছে।

রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে সকাল থেকে মহড়া দিয়েছে ছাত্রলীগ। কেন্দ্রীয় ও মহানগর কমিটি না থাকায় বিক্ষিপ্তভাবে কেন্দ্র ও শাখাগুলোর নেতা ও প্রার্থীদের নেতৃত্বে মোটরসাইকেল মহড়া, বিভিন্ন স্পটে অবস্থান বা কোথাও কোথাও মিছিল করতে দেখা গেছে।

এছাড়াও রাজধানীর মিরপুরে মাজার গেটের সামনে ঢাকা মহানগর উত্তর যুব মহিলা লীগের সভাপতি সাবিনা আক্তার তুহিনের নেতৃত্বে মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উত্তরার বিভিন্ন স্পটে ছোট্ট ছোট্ট দলে নেতাকর্মীদের সড়কের পাশে চেয়ার নিয়ে বসে থাকতে দেখা গেছে। এয়ারপোর্ট এলাকায় সড়কের পাশে বহু সংখ্যক নেতাকর্মীদের সমাবেশ করতে দেখা গেছে। খিলক্ষেতে সড়কের পাশে ব্যানার নিয়ে থানা আওয়ামী লীগের নেতাদের জড়ো হতে দেখা গেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

রাজধানীর অলিগলিতে সতর্ক অবস্থানে আওয়ামী লীগ কর্মীরা

আপডেট সময় : ০১:৩৮:২১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

বিএনপির বিভাগীয় গণসমাবেশ শুরু হয়ে গেছে। রাজধানীর গোলাপবাগ মাঠে জড়ো হয়েছেন দলটির নেতাকর্মীরা।

এদিকে সকাল থেকেই রাজধানীর সড়ক ও পাড়া মহল্লায় সতর্ক অবস্থানে রয়েছে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। তারা পাহারা বসিয়েছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, শনিবার (১০ ডিসেম্বর) সকাল থেকে দলবেঁধে বিভিন্ন মোড়ে অবস্থান নেয় ক্ষমতাসীনরা। প্রায় প্রতিটি থানা-ওয়ার্ডে মিছিল করেছেন নেতাকর্মীরা। পিকআপ এবং মোটরসাইকেল নিয়ে মহড়াও দেন তারা। ‘শেখ হাসিনার ভয় নাই, রাজপথ ছাড়ি নাই’, ‘বিএনপির দালালরা হুঁশিয়ার, সাবধান’-এসব নানা স্লোগান দিতে শোনা যায় তাদের।

সকাল ৭টা থেকে আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয় এবং ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে অবস্থান করছেন দলটির কেন্দ্রীয় নেতারা। এছাড়া মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের নেতারা সতর্ক অবস্থান করছেন। আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়াসহ কেন্দ্রীয় ও নগর নেতারা উপস্থিত রয়েছেন। যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুর রহমান সোহাগ, প্রচার সম্পাদক জয়দেব নন্দী উপস্থিত আছেন।

এদিকে, ঢাকার বিভিন্ন থানা ওয়ার্ডেও আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সতর্ক অবস্থানে রয়েছেন। শনিবার (১০ ডিসেম্বর) সকালে রাজধানীর কদমতলী থানা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মিছিল করেছেন। ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ৫৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আকাশ কুমার ভৌমিকে নেতৃত্বে মিছিলে ৫৮ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শফিকুল ইসলাম সাইজুল, থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি তাজুল ইসলাম তাজু, অর্থ সম্পাদক ফজলুল হক ফজু, শ্যামপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক দপ্তর সম্পাদক ওমর ফারুক, কদমতলী থানা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জিহাদ মাতুব্বর, থানা তাঁতী লীগের সভাপতি মনোয়ার হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কায়উম প্রমুখ।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফি রাজধানীর পোস্তগোলা, ধোলাইপার, ঢাকা ম্যাসসহ বিভিন্ন এলাকায় সংক্ষিপ্ত সমাবেশ করেন।

এদিকে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ রাজধানীর বিভিন্ন মোড়ে মিছিল ও শোডাউন করেছেন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। ঢাকা মহানগর উত্তর যুব মহিলা লীগের সভাপতি সাবিনা আক্তার তুহিনের নেতৃত্বে মিরপুরের মাজার গেটে সকাল থেকে অবস্থান করছেন সংগঠনটির নেতাকর্মীরা।

এছাড়াও ২৩ বঙ্গবন্ধু এভিনিউ এলাকায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল করে উপস্থিত হন। তারা জয় বাংলা-জয় বঙ্গবন্ধু স্লোগানে মুখরিত করে।

এছাড়া প্রতিটি ওয়ার্ড ও থানা থেকে এসব মিছিল বের হয়ে প্রধান সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে। কিছু মিছিল আওয়ামী লীগের প্রধান কার্যালয় বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে যায়। ঘাট শ্রমিক লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন সহযোগী সংগঠন বিক্ষোভ মিছিল করে। এছাড়া বংশাল, সূত্রাপুর ও চকবাজার, ডেমরা, ওয়ারিতে বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে।

মিরপুরের সবগুলো এলাকায় মূল সড়কসহ বিভিন্ন পাড়া মহল্লায় বিক্ষোভ করেছেন সংগঠনটির বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী। ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান সজল মোল্লার নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল শেষে সর্তক অবস্থান নেন।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি কামরুল হাসান রিপনের নেতৃত্বে ঢাকা-৫ নির্বাচনী আসনের বিভিন্ন স্থানে মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ ছাড়া ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগের উদ্যোগে এ বিভিন্ন থানা-ওয়ার্ডে মিছিল হয়েছে।

রাজধানীর বিভিন্ন পয়েন্টে সকাল থেকে মহড়া দিয়েছে ছাত্রলীগ। কেন্দ্রীয় ও মহানগর কমিটি না থাকায় বিক্ষিপ্তভাবে কেন্দ্র ও শাখাগুলোর নেতা ও প্রার্থীদের নেতৃত্বে মোটরসাইকেল মহড়া, বিভিন্ন স্পটে অবস্থান বা কোথাও কোথাও মিছিল করতে দেখা গেছে।

এছাড়াও রাজধানীর মিরপুরে মাজার গেটের সামনে ঢাকা মহানগর উত্তর যুব মহিলা লীগের সভাপতি সাবিনা আক্তার তুহিনের নেতৃত্বে মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উত্তরার বিভিন্ন স্পটে ছোট্ট ছোট্ট দলে নেতাকর্মীদের সড়কের পাশে চেয়ার নিয়ে বসে থাকতে দেখা গেছে। এয়ারপোর্ট এলাকায় সড়কের পাশে বহু সংখ্যক নেতাকর্মীদের সমাবেশ করতে দেখা গেছে। খিলক্ষেতে সড়কের পাশে ব্যানার নিয়ে থানা আওয়ামী লীগের নেতাদের জড়ো হতে দেখা গেছে।