ঢাকা ০২:০৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

৫ সন্তানসহ পরিবারের সাতজনকে হত্যা করে যুবকের আত্মহত্যা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:০৩:৫১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৬ জানুয়ারী ২০২৩
  • / ৪৪৬ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 

যুক্তরাষ্ট্রের ইউটাহ অঙ্গরাজ্যে মাইকেল হাইট নামের (৪৫) এক ব্যক্তি স্ত্রী, পাঁচ সন্তান ও শাশুড়িকে গুলি করে হত্যা করেছেন। এরপরে তিনি নিজেও আত্মহত্যা করেছেন। স্ত্রী বিবাহবিচ্ছেদের জন্য আবেদন করায় হতাশা ও ক্ষোভ থেকে এমন ভয়ানক কাজ করেছেন হাইট।

বৃহস্পতিবার (৫ জানুয়ারি) স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে মার্কিন গণমাধ্যম সিবিএস নিউজ এসব তথ্য জানায়।

নিহতরা হলেন, মাইকলে হাইটের স্ত্রী তৌশা হাইট (৪০), শাশুড়ি গেইল আর্ল (৭৮) ও ৪ থেকে ১৭ বছর বছর বয়সী তিন মেয়ে ও দুই ছেলে।

এর আগে, বুধবার (৪ জানুয়ারি) ইউটাহ’র ইনোক সিটি এলাকার একটি বাড়ি থেকে একই পরিবারের ৫ শিশুসহ ৮ সদস্যের গুলিবিদ্ধ মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

ইনোক সিটির ম্যানেজার রব ডটসন জানান, বেশ কয়েকদিন ধরে ওই বাড়ির কাউকে দেখতে না পেয়ে বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে বাড়িতে প্রবেশ করে দেখতে পায়, পরিবারের ৮ সদস্যের গুলিবিদ্ধ মরদেহ পড়ে আছে। পরে পুলিশ বাসা থেকে মরদেহগুলো বের করে আনে।

এনোক মেয়র জিওফ্রে চেসনাট বলেন, আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে দাম্পত্য ভাঙনের জেরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে। আদালতের নথি অনুযায়ী, এটি (বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন) ২১ ডিসেম্বর দাখিল করা হয়েছিল এবং এটি স্ত্রী দায়ের করেছিলেন।

পুলিশের একজন মুখপাত্র বলেন, বুধবার একটি বাড়িতে একই পরিবারের তিনজন প্রাপ্তবয়স্ক এবং পাঁচটি শিশুর মরদেহ পেয়েছেন কর্মকর্তারা। তারা সবাই বন্দুকের গুলিতে মারা গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এনোকের পুলিশ প্রধান জ্যাকসন আমেস বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, কয়েক বছর আগে স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তারা হাইট ও তার পরিবারের কোনো একটি বিষয় নিয়ে তদন্ত করেছিলেন। তবে বিষয়টি কী ছিল তা বিস্তারিত বলেননি আমেস।

নগর কর্তৃপক্ষের এক বিবৃতিতে বলা হয়, সন্দেহভাজন ব্যক্তি বাড়িতে সাতজনকে হত্যা করার পরে নিজেকে খুন করেছে বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে। তিনি হচ্ছেন ৪২ বছর বয়সী মাইকেল হাইট।

রব ডটসন বলেন, নিহতরা সবাই শহরের বেশ সুপরিচিত ছিলেন। তাদের সঙ্গে আমরা স্থানীয় কমিউনিটি ও গির্জায় একসঙ্গে কাজ করেছি। তাদের এমন নির্মম মৃত্যুতে কমিউনিটির সবাই অনেক কষ্ট পাচ্ছেন। সেই সঙ্গে সবার মনে অনেক প্রশ্ন জন্ম নিয়েছে।

স্থানীয় আদালতের রেকর্ডে দেখা যায়, মাইকেল হাইটের স্ত্রী তৌশা হাইট (৪০) গত বছরের ২১ ডিসেম্বর বিবাহবিচ্ছেদের জন্য আবেদন করেছিলেন। তৌশার আইনজীবী জানান, হাইটকে ২৭ ডিসেম্বর বিবাহবিচ্ছেদের কাগজপত্র পাঠানো হয়।

তৌশা হাইটের আইনজীবী জেমস পার্ক বলেন, মাইকেল হাইট যে তার স্ত্রীকে শারীরিকভাবে আঘাত করবেন এমন কোনো আশঙ্কা তার মনে ছিলই না। ইনোক সিটি হলো ইউটাহের সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল শহরগুলোর মধ্যে একটি। কৃষিপ্রধান এ অঙ্গরাজ্য যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম শান্তিপূর্ণ অংশ। সূত্র: সিবিএস নিউজ।

নিউজটি শেয়ার করুন

৫ সন্তানসহ পরিবারের সাতজনকে হত্যা করে যুবকের আত্মহত্যা

আপডেট সময় : ০২:০৩:৫১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৬ জানুয়ারী ২০২৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 

যুক্তরাষ্ট্রের ইউটাহ অঙ্গরাজ্যে মাইকেল হাইট নামের (৪৫) এক ব্যক্তি স্ত্রী, পাঁচ সন্তান ও শাশুড়িকে গুলি করে হত্যা করেছেন। এরপরে তিনি নিজেও আত্মহত্যা করেছেন। স্ত্রী বিবাহবিচ্ছেদের জন্য আবেদন করায় হতাশা ও ক্ষোভ থেকে এমন ভয়ানক কাজ করেছেন হাইট।

বৃহস্পতিবার (৫ জানুয়ারি) স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে মার্কিন গণমাধ্যম সিবিএস নিউজ এসব তথ্য জানায়।

নিহতরা হলেন, মাইকলে হাইটের স্ত্রী তৌশা হাইট (৪০), শাশুড়ি গেইল আর্ল (৭৮) ও ৪ থেকে ১৭ বছর বছর বয়সী তিন মেয়ে ও দুই ছেলে।

এর আগে, বুধবার (৪ জানুয়ারি) ইউটাহ’র ইনোক সিটি এলাকার একটি বাড়ি থেকে একই পরিবারের ৫ শিশুসহ ৮ সদস্যের গুলিবিদ্ধ মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

ইনোক সিটির ম্যানেজার রব ডটসন জানান, বেশ কয়েকদিন ধরে ওই বাড়ির কাউকে দেখতে না পেয়ে বিষয়টি পুলিশকে জানানো হয়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে বাড়িতে প্রবেশ করে দেখতে পায়, পরিবারের ৮ সদস্যের গুলিবিদ্ধ মরদেহ পড়ে আছে। পরে পুলিশ বাসা থেকে মরদেহগুলো বের করে আনে।

এনোক মেয়র জিওফ্রে চেসনাট বলেন, আপাতদৃষ্টিতে মনে হচ্ছে দাম্পত্য ভাঙনের জেরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে। আদালতের নথি অনুযায়ী, এটি (বিবাহবিচ্ছেদের আবেদন) ২১ ডিসেম্বর দাখিল করা হয়েছিল এবং এটি স্ত্রী দায়ের করেছিলেন।

পুলিশের একজন মুখপাত্র বলেন, বুধবার একটি বাড়িতে একই পরিবারের তিনজন প্রাপ্তবয়স্ক এবং পাঁচটি শিশুর মরদেহ পেয়েছেন কর্মকর্তারা। তারা সবাই বন্দুকের গুলিতে মারা গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এনোকের পুলিশ প্রধান জ্যাকসন আমেস বৃহস্পতিবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, কয়েক বছর আগে স্থানীয় পুলিশ কর্মকর্তারা হাইট ও তার পরিবারের কোনো একটি বিষয় নিয়ে তদন্ত করেছিলেন। তবে বিষয়টি কী ছিল তা বিস্তারিত বলেননি আমেস।

নগর কর্তৃপক্ষের এক বিবৃতিতে বলা হয়, সন্দেহভাজন ব্যক্তি বাড়িতে সাতজনকে হত্যা করার পরে নিজেকে খুন করেছে বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে। তিনি হচ্ছেন ৪২ বছর বয়সী মাইকেল হাইট।

রব ডটসন বলেন, নিহতরা সবাই শহরের বেশ সুপরিচিত ছিলেন। তাদের সঙ্গে আমরা স্থানীয় কমিউনিটি ও গির্জায় একসঙ্গে কাজ করেছি। তাদের এমন নির্মম মৃত্যুতে কমিউনিটির সবাই অনেক কষ্ট পাচ্ছেন। সেই সঙ্গে সবার মনে অনেক প্রশ্ন জন্ম নিয়েছে।

স্থানীয় আদালতের রেকর্ডে দেখা যায়, মাইকেল হাইটের স্ত্রী তৌশা হাইট (৪০) গত বছরের ২১ ডিসেম্বর বিবাহবিচ্ছেদের জন্য আবেদন করেছিলেন। তৌশার আইনজীবী জানান, হাইটকে ২৭ ডিসেম্বর বিবাহবিচ্ছেদের কাগজপত্র পাঠানো হয়।

তৌশা হাইটের আইনজীবী জেমস পার্ক বলেন, মাইকেল হাইট যে তার স্ত্রীকে শারীরিকভাবে আঘাত করবেন এমন কোনো আশঙ্কা তার মনে ছিলই না। ইনোক সিটি হলো ইউটাহের সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল শহরগুলোর মধ্যে একটি। কৃষিপ্রধান এ অঙ্গরাজ্য যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম শান্তিপূর্ণ অংশ। সূত্র: সিবিএস নিউজ।