ঢাকা ০৫:০২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

৫১২ কেজি পেঁয়াজ বিক্রি করে লাভ ২ রুপি

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:১৭:১১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
  • / ৪৪৩ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 

ভারতের মহারাষ্ট্রের এক কৃষক ৫১২ কেজি পেঁয়াজ বিক্রির পর লাভ পেয়েছেন মাত্র ২ রুপি ৪৯ পয়সা। রাজ্যের সোলাপুরে এ ঘটনা ঘটেছে।

সোলাপুরের বরশি তহসিলে বসবাসকারী ৬৩ বছর বয়সী রাজেন্দ্র চ্যাভান বলেন, আমি সোলাপুরের একজন পেঁয়াজ ব্যবসায়ীর কাছে পাঁচ কুইন্টালের বেশি ওজনের ১০ ব্যাগ পেঁয়াজ বিক্রির জন্য পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু লোডিং, পরিবহন, শ্রম এবং অন্যান্য চার্জ কাটার পরে, আমি মাত্র ২ রুপি ৪৯ পয়সা লাভ পেয়েছি। তিনি জানান, ওই ব্যবসায়ী তাকে প্রতি কুইন্টাল ১০০ রুপি করে দিতে চেয়েছিলেন। বস্তার ওজন দেওয়ার পর তাতে ৫১২ কেজি পেঁয়াজ হয়। পরে ওই ব্যবসায়ী তাকে ৫১২ রুপি দেয়।

ওই কৃষক বলেন, শ্রমিক, ওজন, পরিবহন এবং অন্যান্য খরচের বিপরীতে ৫০৯ রুপি ৫১ পয়সা বাদ দেওয়ার পর আমি নিট মুনাফা পেয়েছি ২ রুপি ৪৯ পয়সা। এটি আমার এবং রাজ্যের অন্যান্য পেঁয়াজ চাষীদের জন্য অপমান। আমরা যদি এই ধরনের প্রতিদান পাই, তাহলে আমরা কীভাবে বাঁচব?’ চ্যাভান দাবি করেছেন, তার পেঁয়াজের মান ভাল ছিল। তবে ওই ব্যবসায়ী পাল্টা দাবি করেছেন, কৃষকের পেঁয়াজের মান ভাল ছিল না।

তিনি বলেন, ওই কৃষক মাত্র ১০ ব্যাগ নিয়ে এসেছিলেন এবং পণ্যগুলোও নিম্নমানের ছিল। সেজন্য তিনি প্রতি কুইন্টালে তিনি ১০০ রুপি পেয়েছেন। তাই সব খরচ বাদ দেওয়ার পরে তিনি ২ রুপি নিট লাভ হিসাবে পেয়েছেন। সূত্র : এনডিটিভি।

নিউজটি শেয়ার করুন

৫১২ কেজি পেঁয়াজ বিক্রি করে লাভ ২ রুপি

আপডেট সময় : ০৭:১৭:১১ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 

ভারতের মহারাষ্ট্রের এক কৃষক ৫১২ কেজি পেঁয়াজ বিক্রির পর লাভ পেয়েছেন মাত্র ২ রুপি ৪৯ পয়সা। রাজ্যের সোলাপুরে এ ঘটনা ঘটেছে।

সোলাপুরের বরশি তহসিলে বসবাসকারী ৬৩ বছর বয়সী রাজেন্দ্র চ্যাভান বলেন, আমি সোলাপুরের একজন পেঁয়াজ ব্যবসায়ীর কাছে পাঁচ কুইন্টালের বেশি ওজনের ১০ ব্যাগ পেঁয়াজ বিক্রির জন্য পাঠিয়েছিলাম। কিন্তু লোডিং, পরিবহন, শ্রম এবং অন্যান্য চার্জ কাটার পরে, আমি মাত্র ২ রুপি ৪৯ পয়সা লাভ পেয়েছি। তিনি জানান, ওই ব্যবসায়ী তাকে প্রতি কুইন্টাল ১০০ রুপি করে দিতে চেয়েছিলেন। বস্তার ওজন দেওয়ার পর তাতে ৫১২ কেজি পেঁয়াজ হয়। পরে ওই ব্যবসায়ী তাকে ৫১২ রুপি দেয়।

ওই কৃষক বলেন, শ্রমিক, ওজন, পরিবহন এবং অন্যান্য খরচের বিপরীতে ৫০৯ রুপি ৫১ পয়সা বাদ দেওয়ার পর আমি নিট মুনাফা পেয়েছি ২ রুপি ৪৯ পয়সা। এটি আমার এবং রাজ্যের অন্যান্য পেঁয়াজ চাষীদের জন্য অপমান। আমরা যদি এই ধরনের প্রতিদান পাই, তাহলে আমরা কীভাবে বাঁচব?’ চ্যাভান দাবি করেছেন, তার পেঁয়াজের মান ভাল ছিল। তবে ওই ব্যবসায়ী পাল্টা দাবি করেছেন, কৃষকের পেঁয়াজের মান ভাল ছিল না।

তিনি বলেন, ওই কৃষক মাত্র ১০ ব্যাগ নিয়ে এসেছিলেন এবং পণ্যগুলোও নিম্নমানের ছিল। সেজন্য তিনি প্রতি কুইন্টালে তিনি ১০০ রুপি পেয়েছেন। তাই সব খরচ বাদ দেওয়ার পরে তিনি ২ রুপি নিট লাভ হিসাবে পেয়েছেন। সূত্র : এনডিটিভি।