ঢাকা ০৯:১০ অপরাহ্ন, সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

হিমাচলে বন্যায় মৃত্যু ২৫০ ছাড়াল, সতর্কতা জারি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১২:২০:৩৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৪ অগাস্ট ২০২৩
  • / ৫৫৭ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ভারতের হিমাচল প্রদেশে বর্ষা মৌসুম শুরুর পর এ পর্যন্ত ২৫৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত প্রায় দুই মাসে প্রবল বৃষ্টি, আকস্মিক বন্যা, ভূমিধস ও সড়ক দুর্ঘটনায় এত মানুষের প্রাণহানি হয়।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে জানা যায়, এরইমধ্যে বন্যা ও ভূমিধসে হিমাচল প্রদেশে ৭ হাজার কোটি রুপির ক্ষয়ক্ষতি ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল রোববার ক্ষয়ক্ষতির চিত্র তুলে ধরেন কর্মকর্তারা। একইসঙ্গে ২৫৭ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন।

রাজ্য কর্মকর্তারা জানান, ২৫৭ জনের মধ্যে ভূমিধস ও আকস্মিক বন্যায় প্রাণ হারিয়েছেন ৬৬ জন। আর সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ১৯১ জনের। এ ছাড়া আহত হয়েছেন ২৯০ জন। আর নিখোঁজ অন্তত ৩২।

ভারী বৃষ্টির কারণে ধস নেমেছে একাধিক রাস্তায়। বর্তমানে হিমাচল জুড়ে দুটি মহাসড়কসহ সাড়ে ৪০০টি রাস্তা বন্ধ রয়েছে। পুরোপুরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সহস্রাধিক ঘরবাড়ি। আর আংশিক ক্ষতি হয়েছে ৭ হাজারের বেশি। এ ছাড়া বিদ্যুৎহীন বহু গ্রাহক।

বৃষ্টির প্রকোপ এখনই কমার কোনো সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছে স্থানীয় আবহাওয়া দপ্তর। দেরাদুনের আঞ্চলিক আবহাওয়া কেন্দ্রের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আগামী দুই থেকে তিনদিন ভারী বৃষ্টি হবে। ইতিমধ্যেই রাজ্যজুড়ে সতর্কতা জারি করা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

হিমাচলে বন্যায় মৃত্যু ২৫০ ছাড়াল, সতর্কতা জারি

আপডেট সময় : ১২:২০:৩৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৪ অগাস্ট ২০২৩

ভারতের হিমাচল প্রদেশে বর্ষা মৌসুম শুরুর পর এ পর্যন্ত ২৫৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। গত প্রায় দুই মাসে প্রবল বৃষ্টি, আকস্মিক বন্যা, ভূমিধস ও সড়ক দুর্ঘটনায় এত মানুষের প্রাণহানি হয়।

এনডিটিভির প্রতিবেদনে জানা যায়, এরইমধ্যে বন্যা ও ভূমিধসে হিমাচল প্রদেশে ৭ হাজার কোটি রুপির ক্ষয়ক্ষতি ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল রোববার ক্ষয়ক্ষতির চিত্র তুলে ধরেন কর্মকর্তারা। একইসঙ্গে ২৫৭ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেন।

রাজ্য কর্মকর্তারা জানান, ২৫৭ জনের মধ্যে ভূমিধস ও আকস্মিক বন্যায় প্রাণ হারিয়েছেন ৬৬ জন। আর সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে ১৯১ জনের। এ ছাড়া আহত হয়েছেন ২৯০ জন। আর নিখোঁজ অন্তত ৩২।

ভারী বৃষ্টির কারণে ধস নেমেছে একাধিক রাস্তায়। বর্তমানে হিমাচল জুড়ে দুটি মহাসড়কসহ সাড়ে ৪০০টি রাস্তা বন্ধ রয়েছে। পুরোপুরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে সহস্রাধিক ঘরবাড়ি। আর আংশিক ক্ষতি হয়েছে ৭ হাজারের বেশি। এ ছাড়া বিদ্যুৎহীন বহু গ্রাহক।

বৃষ্টির প্রকোপ এখনই কমার কোনো সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছে স্থানীয় আবহাওয়া দপ্তর। দেরাদুনের আঞ্চলিক আবহাওয়া কেন্দ্রের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, আগামী দুই থেকে তিনদিন ভারী বৃষ্টি হবে। ইতিমধ্যেই রাজ্যজুড়ে সতর্কতা জারি করা হয়েছে।