শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ০৫:২২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
রোহিঙ্গা ও তাদের আশ্রয়দাতাদের চাহিদা পূরণে পাশে আছে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির ভেন্যু নিয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্ব শুক্রবার কেটে যাবে: হারুন ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার ম্যাচের দিন ঝড়বৃষ্টির শঙ্কা চিকিৎসকরা উপজেলায় যেতে চান না : স্বাস্থ্যমন্ত্রী সচিবরা নিজেদের রাজা মনে করেন: হাইকোর্ট বিএনপি চায় কমলাপুর স্টেডিয়াম, ডিএমপি বলছে বাঙলা কলেজ নারী শিক্ষার প্রসারে বেগম রোকেয়ার অবদান অন্তহীন প্রেরণার উৎস: প্রধানমন্ত্রী ‘বিয়ে’ করছেন শুভ-অন্তরা! দুজনেরই সিদ্ধান্ত বিয়ে করব না: নুসরাত ফারিয়া স্পিকারের সঙ্গে চীন রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ হাসপাতালে রোগীদের বারবার একই টেস্ট বন্ধ কর‍তে হবে : মেয়র আতিক নয়াপল্টনে ‘সহিংসতা’র সুষ্ঠু তদন্ত চায় যুক্তরাষ্ট্র ফখরুল সাহেব, হুঁশ হারাবেন না, অবস্থা শিশুবক্তার মতো হবে: হানিফ রাঙ্গাবালীতে শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ  সাঁথিয়ায় অটোবাইক চাপায় প্রাণ গেল শিশুর

হিজাব বিতর্কে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের বিভক্ত রায়

হিজাব বিতর্কে ভারতের সুপ্রিম কোর্টের বিভক্ত রায়
ফাইল ছবি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মুসলিম ছাত্রীদের হিজাব পরা নিয়ে সৃষ্ট বিতর্কের চূড়ান্ত সমাধানে পৌঁছাতে ব্যর্থ হয়েছে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। বহুল আলোচিত কর্ণাটকের কলেজে হিজাব নিষিদ্ধের সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মুসলিম ছাত্রীদের আবেদনের জবাবে বৃহস্পতিবার দেশটির সুপ্রিম কোর্ট বিভক্ত রায় দিয়েছে।

এতে দেশটির শীর্ষ আদালতের একটি প্যানেল বলেছে, শ্রেণিকক্ষে হিজাব পরার অনুমতির সিদ্ধান্তের ব্যাপারে বিচারকরা বিভক্ত রায় দিয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনার জন্য বিষয়টি প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠানো হয়েছে।

প্যানেলের দুই বিচারকের একজন হেমন্ত গুপ্ত। তিনি বলেছেন, আমাদের মতের ভিন্নতা রয়েছে। তিনি শ্রেণিকক্ষে হিজাব নিষিদ্ধের পক্ষে তার মত দিয়েছেন। অন্যদিকে বিচারক সুধাংশু ধুলিয়া মুসলিম ছাত্রীদের হিজাব পরার নিষেধাজ্ঞা বাতিলের পক্ষে মতামত দিয়েছেন।

বিচারক সুধাংশু ধুলিয়া বলেছেন, হিজাব পরা আসলে ব্যক্তিগত পছন্দের বিষয়। এর বাইরে কিছু নয়। সবকিছু ঊর্ধ্বে আমার মাথায় ছিল মেয়েশিশুদের শিক্ষা। আমি আমার বিচারক ভাইয়ের মতামতের সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করছি।

মুসলিম ছাত্রীদের আবেদন খারিজ করে দিয়ে বিচারক হেমন্ত গুপ্ত বলেছেন, আমাদের মতের ভিন্নতা রয়েছে। আবেদন খারিজ করে দেওয়ার আগে আবেদনকারীদের ১১টি প্রশ্ন করেন তিনি। পরে তিনি বলেন, কর্ণাটকের হাইকোর্ট হিজাব নিষিদ্ধের পক্ষে যে রায় দিয়েছে, তিনি সেই রায়ের সঙ্গে একমত পোষণ করছেন। আদালতের বিচারকদের প্যানেল হিজাব বিতর্কে বিভক্ত রায় দেওয়ায় এখন এই বিষয়ে চূড়ান্ত নির্দেশনার জন্য ভারতের প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠানো হয়েছে।

গত ৫ ফেব্রুয়ারি ভারতের দক্ষিণাঞ্চলীয় রাজ্য কর্ণাটকে মুসলিম শিক্ষার্থীদের হিজাব পরে কলেজের শ্রেণিকক্ষে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। সেই সময় রাজ্যটির একাধিক স্কুলে হিজাব পরিহিত মুসলিম ছাত্রীদের ঢুকতে না দেওয়াকে কেন্দ্র করে শুরু হওয়া বিক্ষোভ-প্রতিবাদ দেশটির বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে পড়ে।

পরে রাজ্যের মুসলিম ছাত্রীরা সরকারের হিজাব নিষিদ্ধের সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে কর্ণাটকের হাইকোর্টে আবেদন করে। গত ১৫ মার্চ কর্ণাটকের উদুপিতে গভর্নমেন্ট প্রি-ইউনিভার্সিটি গার্লস কলেজের কিছু মুসলিম ছাত্রীর করা এক আবেদন খারিজ করে দেয় হাইকোর্ট। রায়ে আদালত সেই সময় জানায়, শ্রেণিকক্ষের ভেতরে ছাত্রীদের হিজাব পরার অনুরোধ ইসলাম ধর্মে বিশ্বাসীদের জন্য অপরিহার্য ধর্মীয় চর্চার অংশ নয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *