ঢাকা ০৬:০৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

স্বপ্নের ইতালি যাওয়ার পথে বন্দী লিবিয়ায়

এস.এম. দেলোয়ার হোসাইন, মাদারীপুর প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৫:২৫:৩২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১ অক্টোবর ২০২৩
  • / ৫৪৭ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
স্বপ্নের দেশ ইতালি। আর্থিক স্বচ্ছলতা আর আধুনিক জীবনযাপনের আশায় জীবনের ঝুঁকিকে তুচ্ছ মনে করে ইতালির উদ্দেশে বাড়ি ছেড়েছিলেন মাদারীপুরের অসংখ্য যুবক।

মাদারীপুর জেলার সদর, রাজৈর, শিবচরসহ বিভিন্ন এলাকার অসংখ্য যুবকের স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে দালালদের খপ্পরে পড়ে। সন্তানকে বাঁচাতে টাকা দিতে দিতে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে অনেক পরিবার। কেউ কেউ লাশ হয়ে ফিরেছেন দেশে, কেউ এখনো নিখোঁজ।

ভুক্তভোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দালালরা লিবিয়ায় নিয়ে টাকা আদায় করতে অমানবিক নির্যাতন চালায়। নির্যাতনের ভিডিও পাঠিয়ে পরিবারের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে লাখ লাখ টাকা। একাধিক মাফিয়া চক্রের হাতে হাত বদল হচ্ছে দফায় দফায়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার উৎরাইল এলাকার বেলায়েত শেখের ছেলে স্বপন। ইতালি যাওয়ার স্বপ্ন নিয়ে দেশ ছাড়লেও দীর্ঘদিন ধরে বন্দী রয়েছেন লিবিয়াতে। সহ্য করতে হচ্ছে অমানুষিক নির্যাতন। দেশে ফিরিয়ে আনতে দফায় দফায় তার পরিবার ব্যয় করেছেন ২০ লক্ষাধিক টাকা। তবু এখনো ফিরতে পারেননি দেশে। তবে শিগগিরই দেশে ফিরিয়ে আনতে পারবেন বলে পরিবারের আশা। ইতালি যাওয়ার স্বপ্ন উঠে গেছে, প্রাণ নিয়ে দেশ ফিরতে পারলেই স্বস্তি।

মাদারীপুর সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের খাগদাহ গ্রামের আতাহার খানের ছেলে রবিন খান (২২)। এক বছর আগে ইতালি যাওয়ার স্বপ্ন নিয়ে দেশ ছাড়েন। এরপর দীর্ঘদিন বন্দী ছিলেন লিবিয়ার দালালদের কাছে। কয়েক দফায় মারধর ও হত্যার হুমকি দেওয়া হয় তাকে। পরে জমি বিক্রি করে তার পরিবার ১৭ লাখ টাকা দেয় দালালদের। চলতি বছরের ২২ আগস্ট থেকে পরিবারের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ নেই। মা-বাবা জানেন না, রবিন বেঁচে আছেন কি না।

মাদারীপুর সদর উপজেলার পেয়ারপুর ইউনিয়নের নয়ারচর গ্রামের আমজাদ বেপারীর ছেলে আজীম বেপারীর (২২) সঙ্গে তিন মাস আগে পরিবারের সদস্যদের যোগাযোগ হয়। এরপর থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। এর আগে আমির নামে এক দালাল কয়েক দফায় ১৮ লাখ টাকা নেন ইতালি পাঠানোর নামে।

আজীমের বাবা আমজাদ বেপারী বলেন, ভিটামাটি বিক্রি করে ছেলের জন্য ১৮ লাখ টাকা দিয়েছি। এখন আমরা নিঃস্ব। ছেলে কোথায় তাও জানি না।

একই এলাকার ইউনুস মোল্লার ছেলে রানা মোল্লা ইতালির উদ্দেশে দেশ ছাড়েন। এরপর তার ঠাঁই হয় লিবিয়ার বন্দীশালায়। সেখানে আটকে রেখে চালানো হয় নির্যাতন। দালাল চক্র কয়েক দফায় আদায় করে ২২ লাখ টাকা। পরে দালালদের টাকা দিয়ে চলে আসেন দেশে।

নির্যাতনের শিকার রানা জানান, দালালরা হাত-পা বেঁধে নির্যাতন করে। নির্যাতনের সময় কান্নার আওয়াজ রেকর্ড করে পরে সে রেকর্ড শুনিয়ে পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে আদায় করা হয় টাকা।

এ দিকে মাদারীপুর সদর উপজেলার মধ্য পেয়ারপুর গ্রামের তরিকুল ও রুবেল নিখোঁজ রয়েছেন চার বছর ধরে। পরিবারের সঙ্গে নেই কোনো যোগাযোগ। বেঁচে আছেন নাকি মারা গেছেন, তাও জানেন না পরিবারের সদস্যরা।

নিখোঁজ রবিন খানের বাবা আতাহার খান বলেন, দালালদের চাহিদা মতো টাকা দিতে না পারলে লিবিয়ার বিভিন্ন টর্চার সেলে শারীরিক নির্যাতন করে তুলে দেয় লিবিয়ান মাফিয়াদের হাতে। মাফিয়ারা নির্যাতনের ভিডিও পাঠিয়ে এবং হত্যার ভয়ভীতি দেখিয়ে এ দেশে দালালদের মাধ্যমে এ সব পরিবারের কাছ থেকে আদায় করছে লাখ লাখ টাকা। আমরা এর বিচার চাই।

এ দিকে এ সব ঘটনার অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মামলা হয় না। দু-একটি মামলা হলেও দালালরা থাকে ধরাছোঁয়ার বাইরে। ফলে ইউরোপে পাঠানোর কথা বলে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়া বন্ধ হচ্ছে না। জেলার সদর, শিবচর, রাজৈর, টেকেরহাট এলাকায় প্রায় দেড় ডজন দালাল রয়েছে। যারা নানা প্রলোভনে ইউরোপে পাঠানোর কথা বলে লিবিয়ায় নিয়ে আটকে রেখে মুক্তিপণ আদায় করছে।

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার মাসুদ আলম জানান, মানবপাচারের অভিযোগে এর আগে অনেকেই গ্রেপ্তার হয়েছেন। তাছাড়া অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

স্বপ্নের ইতালি যাওয়ার পথে বন্দী লিবিয়ায়

আপডেট সময় : ০৫:২৫:৩২ অপরাহ্ন, রবিবার, ১ অক্টোবর ২০২৩
স্বপ্নের দেশ ইতালি। আর্থিক স্বচ্ছলতা আর আধুনিক জীবনযাপনের আশায় জীবনের ঝুঁকিকে তুচ্ছ মনে করে ইতালির উদ্দেশে বাড়ি ছেড়েছিলেন মাদারীপুরের অসংখ্য যুবক।

মাদারীপুর জেলার সদর, রাজৈর, শিবচরসহ বিভিন্ন এলাকার অসংখ্য যুবকের স্বপ্ন ভঙ্গ হয়েছে দালালদের খপ্পরে পড়ে। সন্তানকে বাঁচাতে টাকা দিতে দিতে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে অনেক পরিবার। কেউ কেউ লাশ হয়ে ফিরেছেন দেশে, কেউ এখনো নিখোঁজ।

ভুক্তভোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, দালালরা লিবিয়ায় নিয়ে টাকা আদায় করতে অমানবিক নির্যাতন চালায়। নির্যাতনের ভিডিও পাঠিয়ে পরিবারের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে লাখ লাখ টাকা। একাধিক মাফিয়া চক্রের হাতে হাত বদল হচ্ছে দফায় দফায়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার উৎরাইল এলাকার বেলায়েত শেখের ছেলে স্বপন। ইতালি যাওয়ার স্বপ্ন নিয়ে দেশ ছাড়লেও দীর্ঘদিন ধরে বন্দী রয়েছেন লিবিয়াতে। সহ্য করতে হচ্ছে অমানুষিক নির্যাতন। দেশে ফিরিয়ে আনতে দফায় দফায় তার পরিবার ব্যয় করেছেন ২০ লক্ষাধিক টাকা। তবু এখনো ফিরতে পারেননি দেশে। তবে শিগগিরই দেশে ফিরিয়ে আনতে পারবেন বলে পরিবারের আশা। ইতালি যাওয়ার স্বপ্ন উঠে গেছে, প্রাণ নিয়ে দেশ ফিরতে পারলেই স্বস্তি।

মাদারীপুর সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়নের খাগদাহ গ্রামের আতাহার খানের ছেলে রবিন খান (২২)। এক বছর আগে ইতালি যাওয়ার স্বপ্ন নিয়ে দেশ ছাড়েন। এরপর দীর্ঘদিন বন্দী ছিলেন লিবিয়ার দালালদের কাছে। কয়েক দফায় মারধর ও হত্যার হুমকি দেওয়া হয় তাকে। পরে জমি বিক্রি করে তার পরিবার ১৭ লাখ টাকা দেয় দালালদের। চলতি বছরের ২২ আগস্ট থেকে পরিবারের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ নেই। মা-বাবা জানেন না, রবিন বেঁচে আছেন কি না।

মাদারীপুর সদর উপজেলার পেয়ারপুর ইউনিয়নের নয়ারচর গ্রামের আমজাদ বেপারীর ছেলে আজীম বেপারীর (২২) সঙ্গে তিন মাস আগে পরিবারের সদস্যদের যোগাযোগ হয়। এরপর থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। এর আগে আমির নামে এক দালাল কয়েক দফায় ১৮ লাখ টাকা নেন ইতালি পাঠানোর নামে।

আজীমের বাবা আমজাদ বেপারী বলেন, ভিটামাটি বিক্রি করে ছেলের জন্য ১৮ লাখ টাকা দিয়েছি। এখন আমরা নিঃস্ব। ছেলে কোথায় তাও জানি না।

একই এলাকার ইউনুস মোল্লার ছেলে রানা মোল্লা ইতালির উদ্দেশে দেশ ছাড়েন। এরপর তার ঠাঁই হয় লিবিয়ার বন্দীশালায়। সেখানে আটকে রেখে চালানো হয় নির্যাতন। দালাল চক্র কয়েক দফায় আদায় করে ২২ লাখ টাকা। পরে দালালদের টাকা দিয়ে চলে আসেন দেশে।

নির্যাতনের শিকার রানা জানান, দালালরা হাত-পা বেঁধে নির্যাতন করে। নির্যাতনের সময় কান্নার আওয়াজ রেকর্ড করে পরে সে রেকর্ড শুনিয়ে পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে আদায় করা হয় টাকা।

এ দিকে মাদারীপুর সদর উপজেলার মধ্য পেয়ারপুর গ্রামের তরিকুল ও রুবেল নিখোঁজ রয়েছেন চার বছর ধরে। পরিবারের সঙ্গে নেই কোনো যোগাযোগ। বেঁচে আছেন নাকি মারা গেছেন, তাও জানেন না পরিবারের সদস্যরা।

নিখোঁজ রবিন খানের বাবা আতাহার খান বলেন, দালালদের চাহিদা মতো টাকা দিতে না পারলে লিবিয়ার বিভিন্ন টর্চার সেলে শারীরিক নির্যাতন করে তুলে দেয় লিবিয়ান মাফিয়াদের হাতে। মাফিয়ারা নির্যাতনের ভিডিও পাঠিয়ে এবং হত্যার ভয়ভীতি দেখিয়ে এ দেশে দালালদের মাধ্যমে এ সব পরিবারের কাছ থেকে আদায় করছে লাখ লাখ টাকা। আমরা এর বিচার চাই।

এ দিকে এ সব ঘটনার অধিকাংশ ক্ষেত্রেই মামলা হয় না। দু-একটি মামলা হলেও দালালরা থাকে ধরাছোঁয়ার বাইরে। ফলে ইউরোপে পাঠানোর কথা বলে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়া বন্ধ হচ্ছে না। জেলার সদর, শিবচর, রাজৈর, টেকেরহাট এলাকায় প্রায় দেড় ডজন দালাল রয়েছে। যারা নানা প্রলোভনে ইউরোপে পাঠানোর কথা বলে লিবিয়ায় নিয়ে আটকে রেখে মুক্তিপণ আদায় করছে।

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার মাসুদ আলম জানান, মানবপাচারের অভিযোগে এর আগে অনেকেই গ্রেপ্তার হয়েছেন। তাছাড়া অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাখ//আর