শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:১০ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
রাজশাহীতে কুখ্যাত ভূমি প্রতারক ফারজানাসহ আটক-৩ রাজশাহীতে আন্তর্জাতিক ক্বিরাত সম্মেলন কলমাকান্দায় সচেতনতা তৈরিতে বৈঠক শ্রীমঙ্গলে তিন দিনব্যাপী পিঠা উৎসব শুরু শ্রীমঙ্গলে টপসয়েল কাটার দায়ে ১ জনের ৫০ হাজার টাকা দন্ড রাস্তাঘাটের ব্যাপক উন্নয়নের পাশাপাশি দুর্ঘটনা অনেক বেড়েছে : সংসদে হানিফ সোনার চামচে রাজ-পরীমণির ছেলের মুখে ভাত! বাংলাদেশ সফরে ইংল্যান্ডের দল ঘোষণা চীন বাংলাদেশের বৃহৎ অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক অংশীদার : বাণিজ্যমন্ত্রী স্মার্ট বাংলাদেশ নির্মাণে সরকার কাজ করছে : স্পিকার হিরো আলমের অভিযোগের কোনও ভিত্তি নেই : ইসি রাশেদা দেশে মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২০৩১৬ : সংসদে শিক্ষামন্ত্রী রাজউকে অনলাইনে নকশার আবেদন ৩৪ হাজার : সংসদে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী আইএমএফের ঋণের প্রথম কিস্তি পেল বাংলাদেশ নোবিপ্রবিতে আট দাবিতে তৃতীয় দিনও আন্দোলন অব্যহত

স্পিকারের সঙ্গে চীন রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ

স্পিকারের সঙ্গে চীন রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সঙ্গে বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন।

বৃহস্পতিবার (৮ ডিসেম্বর) সংসদ সচিবালয়ে স্পিকারের নিজ কার্যালয়ে তারা সাক্ষাৎ করেন।

সাক্ষাৎকালে তারা বাংলাদেশ-চীনের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক, বঙ্গবন্ধুর চীন সফর, সংসদীয় কূটনীতি, বাংলাদেশের চলমান উন্নয়ন, করোনা পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ, দুই দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসার নিয়ে আলোচনা করেন।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৫২ সালে চীন সফর করেছিলেন। তিনি চীনের অর্থনৈতিক উন্নয়ন, নারীর ক্ষমতায়ন ইত্যাদি অনুসরণীয় বিষয় পুস্তকাকারে লিপিবদ্ধ করেন। করোনা পরিস্থিতিতে চীন বিনামূল্যে বাংলাদেশে ভ্যাক্সিন সরবরাহ করে, যা দুই দেশের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক প্রমাণ করে।

স্পিকার বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদক্ষ নেতৃত্ব ও সময়োপযোগী পদক্ষেপ গ্রহণের কারণে বাংলাদেশের সব শ্রেণি-পেশার মানুষের দৈনন্দিন জীবনযাপন সুরক্ষিত রয়েছে। রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখার পাশাপাশি নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মাসেতু নির্মাণ, দারিদ্র্য নিরসন, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন, জনসাধারণের দৈনন্দিন জীবন স্বাভাবিক রাখা, ব্যবসায়ীদের জন্য ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ বজায় রাখা, অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণ, সর্বোপরি ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত বাংলাদেশ নির্মাণে প্রধানমন্ত্রী নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন।
এ সময় চীনকে বাংলাদেশে আরও বেশি বিনিয়োগ করার আহ্বান জানান স্পিকার।

বাংলাদেশের স্থিতিশীল আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতি, চলমান উন্নয়ন ও সংসদীয় গণতন্ত্রের প্রশংসা করে রাষ্ট্রদূত লি জিমিং বলেন, ‘বাংলাদেশ চীনের অকৃত্রিম বন্ধু। বাংলাদেশের মানুষ অত্যন্ত অতিথিপরায়ণ।’ দুদেশের পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

এ সময় সংসদ সচিবালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *