ঢাকা ১১:১১ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

স্থায়ী যুদ্ধবিরতি না হওয়ায় গাজায় মানবিক প্রচেষ্টা সম্পূর্ণ ব্যর্থ : রাশিয়া

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৪:০৬:৫৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪
  • / ৪৩৫ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

টেকসই ও স্থায়ী যুদ্ধবিরতি ছাড়া গাজায় মানবিক প্রচেষ্টা সম্পূর্ণরূপে ব্যর্থ হবে। জাতিসংঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে এ কথা বলেছেন।

ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া বলেন, ‘আমরা বারবার সতর্ক করেছি, একটি স্থায়ী ও টেকসই যুদ্ধবিরতি ব্যবস্থার অনুপস্থিতিতে মানবিক প্রচেষ্টা ধ্বংস হয়ে গেছে। অবশ্যই এই যুদ্ধবিরতি সামরিক পর্যবেক্ষকদের মাধ্যমে সঠিকভাবে পর্যবেক্ষণ করা উচিত। সহকর্মী, মানবিক কর্মীরা সেনাবাহিনীর হামলার মুখে সম্পূর্ণ অরক্ষিত। যদি এক পক্ষ যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হয় এবং বিশেষ করে যখন নিরাপত্তা পরিষদের কোনো সদস্যের কাছ থেকে এমন ইঙ্গিত পাওয়া যায় যে, কাউন্সিলের প্রস্তাবগুলো বাধ্যতামূলক নয়, তাহলে কোন স্বেচ্ছাসেবী মানবিক সহযোগিতায় এগিয়ে আসবে না।’

ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া আরও বলেন, ‘ফিলিস্তিনি ভূখন্ড যুদ্ধ জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের রেজ্যুলেশন ২৭২৮ এর দাবির বিপরীতে এবং আন্তর্জাতিক মানবিক আইন ও নিয়ম লঙ্ঘন করে তীব্র রূপ ধারণ করেছে। এই পরিস্থিতিতে গাজার জনসংখ্যার জন্য মানবিক সাহায্য বিতরণ কার্যত অচল হয়ে পড়েছে। জাতিসংঘ সংস্থাগুলো একমত যে, ছিটমহলে মানবিক সরবরাহ কার্যত অস্তিত্বহীন। ওসিএইচএ-এর মতে, ইসরায়েলি প্রতিরক্ষা বাহিনী মানবিক সহায়তার অর্ধেক সরবরাহ যান অবরুদ্ধ করে রেখেছে। একই সময়ে মানবিক কর্মীদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, সীমান্তে মানবিক সরবরাহের জন্য অপেক্ষা করা হচ্ছে এবং সরবরাহের ব্যবস্থা করার জন্য যথেষ্ট আর্থিক সংস্থান রয়েছে। শুধু চেকপয়েন্টগুলো খুলে দেওয়া এবং তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা দরকার।’

জাতিসংঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি বলেন, ‘জাতিসংঘের রিলিফ অ্যান্ড ওয়ার্কস এজেন্সি ফর প্যালেস্টাইন রিফিউজিস ইন দ্য নিয়ার ইস্ট (ইউএনআরডব্লিউএ) এর কার্যক্রম এই পরিস্থিতিতে অপরিহার্য। আমরা এজেন্সির কর্মীদের বীরত্বের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আহ্বান জানাই। যারা অমানবিক পরিস্থিতিতে তাদের জীবন দিয়ে মানবিক দায়িত্ব পালন করেন। আজ পর্যন্ত ১৭৮ জন কর্মী সদস্য তাদের জীবন হারিয়েছেন। একক মানবিক সহায়তা কার্যক্রমে এটি সর্বোচ্চ সংখ্যক মৃত্যু।’

রাশিয়ান কূটনীতিক বলেন, ‘সেই পটভূমিতে ইউএনআরডব্লিউএ-কে একটি সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত করার প্রচেষ্টা এবং এজেন্সিটি ভেঙে দেওয়ার আহ্বান যা আমরা এই চেম্বারেও শুনেছি, স্পষ্টতই অগ্রহণযোগ্য। ইউএনআরডব্লিউএ প্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে নির্বিচার অভিযোগগুলো এই বৃহৎ এবং অত্যাবশ্যক জাতিসংঘের সত্ত্বাকে আঘাত করার জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়। গাজায় সংস্থাটির ১৩ হাজার কর্মীর কার্যক্রম স্থগিত করা হলে তা লাখ লাখ ফিলিস্তিনির জন্য সম্মিলিত শাস্তির আরেকটি বেআইনি এবং অনৈতিক হাতিয়ার হয়ে উঠবে।’

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের অধিবেশন ফিলিস্তিন ছিটমহলে নিহত মানবিক কর্মীদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতার মধ্য দিয়ে কাজ শুরু করে। জাতিসংঘের সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী গত বছরের ৭ অক্টোবর, ২০২৩-এ সংঘাত বৃদ্ধি পাওয়ার পর থেকে গাজা উপত্যকায় কমপক্ষে ২২৪ মানবিক কর্মী নিহত হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

স্থায়ী যুদ্ধবিরতি না হওয়ায় গাজায় মানবিক প্রচেষ্টা সম্পূর্ণ ব্যর্থ : রাশিয়া

আপডেট সময় : ০৪:০৬:৫৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪

টেকসই ও স্থায়ী যুদ্ধবিরতি ছাড়া গাজায় মানবিক প্রচেষ্টা সম্পূর্ণরূপে ব্যর্থ হবে। জাতিসংঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে এ কথা বলেছেন।

ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া বলেন, ‘আমরা বারবার সতর্ক করেছি, একটি স্থায়ী ও টেকসই যুদ্ধবিরতি ব্যবস্থার অনুপস্থিতিতে মানবিক প্রচেষ্টা ধ্বংস হয়ে গেছে। অবশ্যই এই যুদ্ধবিরতি সামরিক পর্যবেক্ষকদের মাধ্যমে সঠিকভাবে পর্যবেক্ষণ করা উচিত। সহকর্মী, মানবিক কর্মীরা সেনাবাহিনীর হামলার মুখে সম্পূর্ণ অরক্ষিত। যদি এক পক্ষ যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হয় এবং বিশেষ করে যখন নিরাপত্তা পরিষদের কোনো সদস্যের কাছ থেকে এমন ইঙ্গিত পাওয়া যায় যে, কাউন্সিলের প্রস্তাবগুলো বাধ্যতামূলক নয়, তাহলে কোন স্বেচ্ছাসেবী মানবিক সহযোগিতায় এগিয়ে আসবে না।’

ভ্যাসিলি নেবেনজিয়া আরও বলেন, ‘ফিলিস্তিনি ভূখন্ড যুদ্ধ জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের রেজ্যুলেশন ২৭২৮ এর দাবির বিপরীতে এবং আন্তর্জাতিক মানবিক আইন ও নিয়ম লঙ্ঘন করে তীব্র রূপ ধারণ করেছে। এই পরিস্থিতিতে গাজার জনসংখ্যার জন্য মানবিক সাহায্য বিতরণ কার্যত অচল হয়ে পড়েছে। জাতিসংঘ সংস্থাগুলো একমত যে, ছিটমহলে মানবিক সরবরাহ কার্যত অস্তিত্বহীন। ওসিএইচএ-এর মতে, ইসরায়েলি প্রতিরক্ষা বাহিনী মানবিক সহায়তার অর্ধেক সরবরাহ যান অবরুদ্ধ করে রেখেছে। একই সময়ে মানবিক কর্মীদের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, সীমান্তে মানবিক সরবরাহের জন্য অপেক্ষা করা হচ্ছে এবং সরবরাহের ব্যবস্থা করার জন্য যথেষ্ট আর্থিক সংস্থান রয়েছে। শুধু চেকপয়েন্টগুলো খুলে দেওয়া এবং তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা দরকার।’

জাতিসংঘে রাশিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি বলেন, ‘জাতিসংঘের রিলিফ অ্যান্ড ওয়ার্কস এজেন্সি ফর প্যালেস্টাইন রিফিউজিস ইন দ্য নিয়ার ইস্ট (ইউএনআরডব্লিউএ) এর কার্যক্রম এই পরিস্থিতিতে অপরিহার্য। আমরা এজেন্সির কর্মীদের বীরত্বের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আহ্বান জানাই। যারা অমানবিক পরিস্থিতিতে তাদের জীবন দিয়ে মানবিক দায়িত্ব পালন করেন। আজ পর্যন্ত ১৭৮ জন কর্মী সদস্য তাদের জীবন হারিয়েছেন। একক মানবিক সহায়তা কার্যক্রমে এটি সর্বোচ্চ সংখ্যক মৃত্যু।’

রাশিয়ান কূটনীতিক বলেন, ‘সেই পটভূমিতে ইউএনআরডব্লিউএ-কে একটি সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত করার প্রচেষ্টা এবং এজেন্সিটি ভেঙে দেওয়ার আহ্বান যা আমরা এই চেম্বারেও শুনেছি, স্পষ্টতই অগ্রহণযোগ্য। ইউএনআরডব্লিউএ প্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে নির্বিচার অভিযোগগুলো এই বৃহৎ এবং অত্যাবশ্যক জাতিসংঘের সত্ত্বাকে আঘাত করার জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়। গাজায় সংস্থাটির ১৩ হাজার কর্মীর কার্যক্রম স্থগিত করা হলে তা লাখ লাখ ফিলিস্তিনির জন্য সম্মিলিত শাস্তির আরেকটি বেআইনি এবং অনৈতিক হাতিয়ার হয়ে উঠবে।’

জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের অধিবেশন ফিলিস্তিন ছিটমহলে নিহত মানবিক কর্মীদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতার মধ্য দিয়ে কাজ শুরু করে। জাতিসংঘের সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী গত বছরের ৭ অক্টোবর, ২০২৩-এ সংঘাত বৃদ্ধি পাওয়ার পর থেকে গাজা উপত্যকায় কমপক্ষে ২২৪ মানবিক কর্মী নিহত হয়েছে।