ঢাকা ১০:৩১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

সুনামগঞ্জে হাছন রাজার ১৬৮তম জন্মবার্ষিকী পালিত

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:১৬:৩৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২২
  • / ৪৪৪ বার পড়া হয়েছে

সুনামগঞ্জে হাছন রাজার ১৬৮তম জন্মবার্ষিকী পালিত

বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

রাজু আহমেদ রমজান, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :

সুনামগঞ্জে মরমী কবি হাছন রাজার ১৬৮তম জন্মবার্ষিকী আলোচনা ও হাছনগীতি পরিবেশনের মধ্যে দিয়ে পালিত হয়েছে। বুধবার (২১ ডিসেম্বর) রাতে সুনামগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমির হাছনরাজা মিলনায়তনে এ উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী। স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ জাকির হোসেন এর সভাপতিত্বে ও শিল্পকলা একাডেমির কালচারাল অফিসার আহমেদ মঞ্জুরুল হক চৌধুরী পাভেলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, লোকগীতি সংগ্রাহক গবেষক সৈয়দা আখি হক, কবি সুখেন্দু সেন রায়, গবেষক সুবাস উদ্দিন ও নাট্যকার দেওয়ান গিয়াস চৌধুরী প্রমুখ।

আলোচনার ফাকে পর্যায়ক্রমে মরমী কবি হাছন রাজার গান পরিবেশন করেন প্রবীন বাউল শিল্পী তছকীর আলী, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সহ-সাধারন সম্পাদক এডভোকেট দেবদাস চৌধুরী রঞ্জন, জয়বাংলা সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি বাউল শাহজাহান, বাউল কামাল পাশা সংস্কৃতি সংসদের সাধারন সম্পাদক বাউল আল-হেলাল, সদর উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারন সম্পাদক সন্তোষ কুমার চন্দ মন্তোষ, বাউল যুবায়ের বখত সেবুল, বাউল হীরামোহন তালূকদার ও শিল্পী দীপায়ন চৌধুরী চয়নসহ স্থানীয় শিল্পীবৃন্দ।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী বলেন, ৫ প্রধান লোককবিসহ অগনিত মরমী সাধকদের রচিত দেশপ্রেম ও মানতাবোধের গানে সুনামগঞ্জ জেলা সমৃদ্ধ। এ জেলার সংস্কৃতি জগতের মরমী সাধকরা অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গঠনে নিরলসভাবে সাধনা করে গেছেন। এখন থেকে প্রতিবছর নিয়মিতভাবে জেলা শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে মরমী কবি হাছন রাজার জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা হবে। এছাড়াও হাছন লোক উৎসবসহ যেখানে যা করা দরকার তার সবকিছুই করবে জেলা প্রশাসন।’

অতিথির আলোচনায় একাধিক গ্রন্থপ্রণেতা সৈয়দা আখি হক জেলার ৫ প্রধান লোককবির নামে ভাস্কর্য্য স্থাপন ও লোক উৎসবের আয়োজন করার দাবী জানিয়ে বলেন, বর্তমান জেলা প্রশাসক একজন প্রকৃত সংস্কৃতিবান সেবক। যিনি সুনামগঞ্জে যোগদান করেই ৬ ডিসেম্বর মৃত্যুবার্ষিকীতে মরমী কবি হাছন রাজার কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। নাট্যকর্মী সাংবাদিক গিয়াস চৌধুরী ১৬৮তম জন্মবার্ষিকী পালন করায় হাছন রাজার পরিবারের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসককে কৃতজ্ঞতা জানান। সাংবাদিক আল-হেলাল মরমী কবি হাছন রাজার দর্শন ও সংগীতকে সবার মাঝে সর্বপ্রথম প্রচার প্রসারে ভূমিকা পালন করায় জেলা শিল্পকলা একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক মরহুম সাংবাদিক আবদুল হাই হাছন পছন্দ ও শিল্পী নির্মলেন্দু চৌধুরীকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।

উল্লেখ্য, মরমী কবি হাছন রাজা ১৮৫৪ সালের ২১ ডিসেম্বর জন্মগ্রহন এবং ১৯২২ খ্রিস্টাব্দের ৬ ডিসেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। ১৯০৭ খ্রিস্টাব্দে তাঁর রচিত ২০৬টি গান নিয়ে ‘হাসন উদাস’ নামেপ্রথম গানের বই প্রকাশিত হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

সুনামগঞ্জে হাছন রাজার ১৬৮তম জন্মবার্ষিকী পালিত

আপডেট সময় : ০৭:১৬:৩৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২২

রাজু আহমেদ রমজান, সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :

সুনামগঞ্জে মরমী কবি হাছন রাজার ১৬৮তম জন্মবার্ষিকী আলোচনা ও হাছনগীতি পরিবেশনের মধ্যে দিয়ে পালিত হয়েছে। বুধবার (২১ ডিসেম্বর) রাতে সুনামগঞ্জ জেলা শিল্পকলা একাডেমির হাছনরাজা মিলনায়তনে এ উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী। স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোঃ জাকির হোসেন এর সভাপতিত্বে ও শিল্পকলা একাডেমির কালচারাল অফিসার আহমেদ মঞ্জুরুল হক চৌধুরী পাভেলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, লোকগীতি সংগ্রাহক গবেষক সৈয়দা আখি হক, কবি সুখেন্দু সেন রায়, গবেষক সুবাস উদ্দিন ও নাট্যকার দেওয়ান গিয়াস চৌধুরী প্রমুখ।

আলোচনার ফাকে পর্যায়ক্রমে মরমী কবি হাছন রাজার গান পরিবেশন করেন প্রবীন বাউল শিল্পী তছকীর আলী, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সহ-সাধারন সম্পাদক এডভোকেট দেবদাস চৌধুরী রঞ্জন, জয়বাংলা সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি বাউল শাহজাহান, বাউল কামাল পাশা সংস্কৃতি সংসদের সাধারন সম্পাদক বাউল আল-হেলাল, সদর উপজেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারন সম্পাদক সন্তোষ কুমার চন্দ মন্তোষ, বাউল যুবায়ের বখত সেবুল, বাউল হীরামোহন তালূকদার ও শিল্পী দীপায়ন চৌধুরী চয়নসহ স্থানীয় শিল্পীবৃন্দ।

প্রধান অতিথির বক্তৃতায় দিদারে আলম মোহাম্মদ মাকসুদ চৌধুরী বলেন, ৫ প্রধান লোককবিসহ অগনিত মরমী সাধকদের রচিত দেশপ্রেম ও মানতাবোধের গানে সুনামগঞ্জ জেলা সমৃদ্ধ। এ জেলার সংস্কৃতি জগতের মরমী সাধকরা অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গঠনে নিরলসভাবে সাধনা করে গেছেন। এখন থেকে প্রতিবছর নিয়মিতভাবে জেলা শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে মরমী কবি হাছন রাজার জন্ম ও মৃত্যুবার্ষিকী পালন করা হবে। এছাড়াও হাছন লোক উৎসবসহ যেখানে যা করা দরকার তার সবকিছুই করবে জেলা প্রশাসন।’

অতিথির আলোচনায় একাধিক গ্রন্থপ্রণেতা সৈয়দা আখি হক জেলার ৫ প্রধান লোককবির নামে ভাস্কর্য্য স্থাপন ও লোক উৎসবের আয়োজন করার দাবী জানিয়ে বলেন, বর্তমান জেলা প্রশাসক একজন প্রকৃত সংস্কৃতিবান সেবক। যিনি সুনামগঞ্জে যোগদান করেই ৬ ডিসেম্বর মৃত্যুবার্ষিকীতে মরমী কবি হাছন রাজার কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন। নাট্যকর্মী সাংবাদিক গিয়াস চৌধুরী ১৬৮তম জন্মবার্ষিকী পালন করায় হাছন রাজার পরিবারের পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসককে কৃতজ্ঞতা জানান। সাংবাদিক আল-হেলাল মরমী কবি হাছন রাজার দর্শন ও সংগীতকে সবার মাঝে সর্বপ্রথম প্রচার প্রসারে ভূমিকা পালন করায় জেলা শিল্পকলা একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক মরহুম সাংবাদিক আবদুল হাই হাছন পছন্দ ও শিল্পী নির্মলেন্দু চৌধুরীকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন।

উল্লেখ্য, মরমী কবি হাছন রাজা ১৮৫৪ সালের ২১ ডিসেম্বর জন্মগ্রহন এবং ১৯২২ খ্রিস্টাব্দের ৬ ডিসেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। ১৯০৭ খ্রিস্টাব্দে তাঁর রচিত ২০৬টি গান নিয়ে ‘হাসন উদাস’ নামেপ্রথম গানের বই প্রকাশিত হয়।