ঢাকা ০৫:৪৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

সুনামগঞ্জে কলিম শাহ বাউল সংঘের ৭ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:৫২:২১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ ডিসেম্বর ২০২২
  • / ৪৫১ বার পড়া হয়েছে

কলিম শাহ বাউল সংঘের ৭ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত

বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:

সুনামগঞ্জের সুুস্থ ধারার সাংস্কৃতিক সংগঠন সাধকপুর উচারগাঁও কলিম শাহ বাউল সংঘ ক্লাব এর ৭ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে। সোমবার (১৯ ডিসেম্বর) দিবাগত রাত ১২টা ১ মিনিটে জেলার সদর উপজেলার মোল্লাপাড়া ইউনিয়নের সাধকপুর উচারগাঁও গ্রামস্থ কার্যালয়ে কেক কাটা ও পরবর্তীতে রাতব্যাপী মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে এলাকার সংস্কৃতিসেবীরা সংগঠনটির জন্মদিন পালন করেন। এ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মোঃ ফজলুল হক। সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও গীতিকার আবুল আজাদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরো বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্য প্রবাসী এম.এ শাহিদ, বাউল কল্যাণ পরিষদের সভাপতি প্রবীণ বাউল শিল্পী তছকীর আলী, জেলা মৎস্যজীবীলীগ নেতা ছাদিকুর রহমান ছাদিক, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি বাউল শাহজাহান সিরাজ, বাউল কামাল পাশা সংস্কৃতি সংসদ এর প্রতিষ্ঠাতা আহবায়ক সাংবাদিক বাউল আল-হেলাল, বাউল আমজাদ আলী, বাউল রসিদ উদ্দিন সরকার, বাউল কলিম শাহ শিল্পী গোষ্ঠীর উপদেষ্টা আব্দুল হান্নান, কোষাধ্যক্ষ আক্তার মিয়া, সংগঠনের সদস্য কবির হোসেন, বাউল রশনা আক্তার, বাউল জহুর উদ্দিন, শিল্পী বিরাজ আলী, পাবেল মিয়া, মানিক ভান্ডারী ও শামছ উদ্দিনসহ স্থানীয় সংস্কৃতানুরাগী গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
এসময় প্রবাসী গীতিকার আবুল আজাদ বলেন, করোনাকালে দীর্ঘ দুই বছর যাবৎ সুনামগঞ্জের বাউল শিল্পীদের আয়-রোজগার বন্ধ ছিল। কোথাও বাউল গানের আসর হয়নি। শিল্পীরা পরিবার পরিজন নিয়ে এখনও মানবেতর জীবন যাপন করছেন। করোনার শুরুতে কলিম শাহ বাউল সংঘ ক্লাব দুঃস্থ অসহায় বাউল শিল্পীদের পাশে ছিলো আজো আছে এবং ভবিষ্যতেও পাশে থাকবে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংস্কৃতিসেবী ফজলুল হক বলেন, দূরদূরান্ত থেকে আসা বাউল শিল্পীরা, কলিম শাহ সংগীত একাডেমীতে অনেক বছর যাবত দেশীয় বাউল গান চর্চা করে যাচ্ছেন দেখে আমরা আনন্দিত। আমরা চাই এ সংগঠনটির কর্মতৎপরতার মধ্যে ভাটি বাংলার সুস্থ ধারার বাউল সংস্কৃতি বিশ্বায়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় টিকে থাকুক। তারা বাউল শিল্পীদের সহযোগিতার জন্য সরকার ও সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার উদাত্ত আহ্বান জানান।

নিউজটি শেয়ার করুন

সুনামগঞ্জে কলিম শাহ বাউল সংঘের ৭ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

আপডেট সময় : ০৪:৫২:২১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ ডিসেম্বর ২০২২

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:

সুনামগঞ্জের সুুস্থ ধারার সাংস্কৃতিক সংগঠন সাধকপুর উচারগাঁও কলিম শাহ বাউল সংঘ ক্লাব এর ৭ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত হয়েছে। সোমবার (১৯ ডিসেম্বর) দিবাগত রাত ১২টা ১ মিনিটে জেলার সদর উপজেলার মোল্লাপাড়া ইউনিয়নের সাধকপুর উচারগাঁও গ্রামস্থ কার্যালয়ে কেক কাটা ও পরবর্তীতে রাতব্যাপী মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্যে দিয়ে এলাকার সংস্কৃতিসেবীরা সংগঠনটির জন্মদিন পালন করেন। এ উপলক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী মৎস্যজীবী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মোঃ ফজলুল হক। সংগঠনটির প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ও গীতিকার আবুল আজাদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরো বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্য প্রবাসী এম.এ শাহিদ, বাউল কল্যাণ পরিষদের সভাপতি প্রবীণ বাউল শিল্পী তছকীর আলী, জেলা মৎস্যজীবীলীগ নেতা ছাদিকুর রহমান ছাদিক, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি বাউল শাহজাহান সিরাজ, বাউল কামাল পাশা সংস্কৃতি সংসদ এর প্রতিষ্ঠাতা আহবায়ক সাংবাদিক বাউল আল-হেলাল, বাউল আমজাদ আলী, বাউল রসিদ উদ্দিন সরকার, বাউল কলিম শাহ শিল্পী গোষ্ঠীর উপদেষ্টা আব্দুল হান্নান, কোষাধ্যক্ষ আক্তার মিয়া, সংগঠনের সদস্য কবির হোসেন, বাউল রশনা আক্তার, বাউল জহুর উদ্দিন, শিল্পী বিরাজ আলী, পাবেল মিয়া, মানিক ভান্ডারী ও শামছ উদ্দিনসহ স্থানীয় সংস্কৃতানুরাগী গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।
এসময় প্রবাসী গীতিকার আবুল আজাদ বলেন, করোনাকালে দীর্ঘ দুই বছর যাবৎ সুনামগঞ্জের বাউল শিল্পীদের আয়-রোজগার বন্ধ ছিল। কোথাও বাউল গানের আসর হয়নি। শিল্পীরা পরিবার পরিজন নিয়ে এখনও মানবেতর জীবন যাপন করছেন। করোনার শুরুতে কলিম শাহ বাউল সংঘ ক্লাব দুঃস্থ অসহায় বাউল শিল্পীদের পাশে ছিলো আজো আছে এবং ভবিষ্যতেও পাশে থাকবে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংস্কৃতিসেবী ফজলুল হক বলেন, দূরদূরান্ত থেকে আসা বাউল শিল্পীরা, কলিম শাহ সংগীত একাডেমীতে অনেক বছর যাবত দেশীয় বাউল গান চর্চা করে যাচ্ছেন দেখে আমরা আনন্দিত। আমরা চাই এ সংগঠনটির কর্মতৎপরতার মধ্যে ভাটি বাংলার সুস্থ ধারার বাউল সংস্কৃতি বিশ্বায়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় টিকে থাকুক। তারা বাউল শিল্পীদের সহযোগিতার জন্য সরকার ও সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার উদাত্ত আহ্বান জানান।