শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:৩৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
রাজশাহীতে কুখ্যাত ভূমি প্রতারক ফারজানাসহ আটক-৩ রাজশাহীতে আন্তর্জাতিক ক্বিরাত সম্মেলন কলমাকান্দায় সচেতনতা তৈরিতে বৈঠক শ্রীমঙ্গলে তিন দিনব্যাপী পিঠা উৎসব শুরু শ্রীমঙ্গলে টপসয়েল কাটার দায়ে ১ জনের ৫০ হাজার টাকা দন্ড রাস্তাঘাটের ব্যাপক উন্নয়নের পাশাপাশি দুর্ঘটনা অনেক বেড়েছে : সংসদে হানিফ সোনার চামচে রাজ-পরীমণির ছেলের মুখে ভাত! বাংলাদেশ সফরে ইংল্যান্ডের দল ঘোষণা চীন বাংলাদেশের বৃহৎ অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক অংশীদার : বাণিজ্যমন্ত্রী স্মার্ট বাংলাদেশ নির্মাণে সরকার কাজ করছে : স্পিকার হিরো আলমের অভিযোগের কোনও ভিত্তি নেই : ইসি রাশেদা দেশে মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২০৩১৬ : সংসদে শিক্ষামন্ত্রী রাজউকে অনলাইনে নকশার আবেদন ৩৪ হাজার : সংসদে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী আইএমএফের ঋণের প্রথম কিস্তি পেল বাংলাদেশ নোবিপ্রবিতে আট দাবিতে তৃতীয় দিনও আন্দোলন অব্যহত

সুইস বাধা ডিঙিয়ে শেষ ষোলোয় ব্রাজিল

সুইস বাধা ডিঙিয়ে শেষ ষোলোয় ব্রাজিল

স্পোর্টস ডেস্ক : 
অবশেষে ব্রাজিল ডিঙাল সুইস বাধা। বিশ্বকাপে আগেও দুবার মুখোমুখি হলেও একবারও সুইজারল্যান্ডকে হারাতে পারেনি পাঁচবারের চ্যাম্পিয়ন টুর্নামেন্টের হট ফেভারিট ব্রাজিল। কিন্তু দানে দানে তৃতীয়বারে এসে সুইসদের হারাল সাম্বার দেশ। ক্যাসেমিরোর একমাত্র গোলে সুইস বাধা ডিঙিয়ে দ্বিতীয় দল হিসেবে শেষ ষোলো নিশ্চিত করল ব্রাজিল।

সুইসদের বিপক্ষে এ ম্যাচে নেইমারের অভাবটা হাড়ে হাড়ে টের পেয়েছে ব্রাজিল। পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা সুইসদের বিপক্ষে প্রাধান্য বিস্তার করে খেললেও ৮৩ মিনিট পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছে গোলের জন্য।

সোমবার (২৮ নভেম্বর) বাংলাদেশ সময় রাত ১০টায় দোহার স্টেডিয়াম ৯৭৪ এ মাঠে নামবে দু’দল। প্রথমার্ধে আক্রমন-পাল্টা আক্রমণে খেলে ব্রাজিল ও সুইজারল্যান্ড। তবে কোন গোল না হলে গোলশূন্য সমতায় থেকে বিরতিতে যায় দু’দল। বিরতি থেকে ফিরে ম্যাচের ৮৩ মিনিটে ডেড লক ভাঙ্গেন ক্যাসেমিরো। তার করা গোলে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ব্রাজিল।

সেরা তারকা নেইমারের অনুপস্থিতিতে কোচ তিতে সুইসদের বিপক্ষে শুরু করে ৪-৩-৩ ফর্মেশনে। সুইসদের বিপক্ষে একাদশে ফেরেন ফ্রেড। ক্যাসেমিরো ও লুকাস পাকুয়েতার সঙ্গে মধ্যমাঠ সামলান তিনি।

তবে ধীরে ধীরে নিজেদের গুছিয়ে নিয়ে আক্রমণ করতে থাকে রিচার্লিসন-রাফিনিয়ারা। ম্যাচের শুরুতেই ফ্রি কিক পায় ব্রাজিল। ডি বক্সে দারুণ ক্রস পেলেও জায়গামতো কেউ না থাকায় বলে পা লাগাতে পারেনি কেউই।

ম্যাচের তৃতীয় মিনিটে বাম প্রান্তে ফাউলের শিকার হন ভিনিসিয়াস জুনিয়র। তবে ফ্রি কিক কাজে লাগাতে পারেনি ব্রাজিল। ম্যাচের ৫ মিনিটে ডিফেন্সের ভুলে বিপদের সম্ভাবনা তৈরী হলে তা ক্লিয়ার করে দেন মার্কুইনহোস। ম্যাচের ৬ মিনিটে কর্নার পায় সুইজারল্যান্ড। তবে তা কাজে লাগাতে পারেনি তারা।

ম্যাচের ১২ মিনিটে কাউন্টার অ্যাটাক থেকে গোলের ভালও সুযোগ তৈরী করলেও তা আটকে দেন সুইস ডিফেন্ডাররা। ম্যাচের ১৪ মিনিটে ফাউল করলে ফ্রি কিক পায় সুইজারল্যান্ড। তবে ফ্রি কিক থেকে সুবিধা করতে পারেনি সুইসরা। ম্যাচের ১৯ মিনিটে বাম দিক থেকে পাকুয়েতার ক্রস থেকে পা ছোঁয়াতে ব্যর্থ হলে গোল বঞ্চিত হয় ব্রাজিল।

ম্যাচের ২১ মিনিটে আবারও সুযোগ আসে ব্রাজিলের সামনে তবে তা থেকে কোন বিপদ ঘটাতে পারেনি তারা। ম্যাচের ২৩ মিনিটে অ্যাটাকে যায় সুইজারল্যান্ড। কিন্তু তা আটকে যায় ব্রাজিল ডিফেন্সে। ম্যাচের ২৭ মিনিটে ডান প্রান্ত থেকে রাফিনহার বাড়ানো বলে পা ছোঁয়ান ভিনিসিয়াস জুনিয়র। তবে তা অসাধারণ সেভে দলকে রক্ষা করেন সুইস গোলরক্ষক ইয়ান সোমার।

ম্যাচের ৩০ মিনিটে গুছিয়ে আক্রমণে যায় ব্রাজিল। ডি বক্সের বাইরে থেকে রাফিনহার নেওয়া শট নিজের গ্লোভসে নেন সোমার। ম্যাচের ৩২ মিনিটে গুছিয়ে আক্রমণে গেলেও গোলমুখে শট করতে ব্যর্থ হয় ব্রাজিল। সেখান থেকে কাউন্টার অ্যাটাকে যায় সুইজারল্যান্ড। তবে তা আটকে দেন এডার মিলিতাও। ম্যাচের ৩৭ মিনিটে গোছানো আক্রমণ থেকে ডি বক্সের বাইরে থেকে গোলমুখে শট করে এডার মিলিতাও। তবে তা ডিফেন্ডারদের গায়ে লেগে প্রতিহত হয়।

ম্যাচের ৪৩ মিনিটে ডান প্রান্ত থেকে বল বাড়ান রাফিনহা। তবে তা কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করে ডিফেন্ডাররা। কর্নার থেকে আবারও কর্নার পায় ব্রাজিল। কর্নার থেকে সুযোগ তৈরী করলেও তা থেকে গোল করতে পারেনি ব্রাজিল।

ম্যাচের অতিরিক্ত মিনিটে কর্নার পায় সুইজারল্যান্ড। তবে তা কাজে লাগাতে পারেনি তারা। শেষ পর্যন্ত কোন গোল না হলে গোলশূন্য থেকে প্রথমার্ধ শেষ করে ব্রাজিল ও সুইজারল্যান্ড।
বিরতি থেকে ফিরেই আক্রমণে যায় ব্রাজিল। তবে তা ক্লিয়ার করে দেন সুইস ডিফেন্ডাররা।

ম্যাচের ৫০ মিনিটে রদ্রিগোকে ফাউল করার কারণে ফ্যাবিয়ান রিডারকে হলুদ কার্ড দেখান রাফারি। ম্যাচের ৫২ মিনিটে ফাউল করার কারণে হলুদ কার্ড দেখেন ফ্রেড। ম্যাচের ৫৩ মিনিটে আক্রমণে যায় সুইজারল্যান্ড। ডান দিকে সাজানো আক্রমণ দারুণ ডিফেন্সে রুখে দেন থিয়াগো সিলভা।

এরপর ম্যাচের ৫৪ মিনিটে কর্নার আদায় করে সুইজারল্যান্ড। রুবেন ভ্যারগাসের নেওয়া কর্নার সহজেই ক্লিয়ার করে দেন অ্যালিসন বেকার। ম্যাচের ৫৬ মিনিটে ডিফেন্সের ভুলে বিপদের শঙ্কা জেগেছিল। তবে তা ক্লিয়ার করে দেন অ্যালিসন বেকার। ম্যাচের ৫৭ মিনিটে কাউন্টার অ্যাটাক থেকে ভিনিসিয়াস জুনিয়রের বাড়ানো বলে পা ছোঁয়াতে ব্যর্থ হয় রিচার্লিসন।

ম্যাচের ৬০ মিনিটে বেশ কয়েকটি আক্রমণ করে সুইজারল্যান্ড। তবে তা আটকে দেয় ডিফেন্ডাররা। ম্যাচের ৬৪ মিনিটে গোলের দেখা পায় ব্রাজিল। ভিনিসিয়াস জুনিয়র সুইজারল্যান্ডের জালে বল জড়ালেও তা অফ সাইডের কারণে বাতিল করে দেন রেফারি।

ম্যাচের ৬৮ মিনিটে ডি বক্সের সামান্য বাইরে ফাউলের শিকার হন ভিনিসিয়াস জুনিয়র। তবে তা থেকে গোল করতে ব্যর্থ হয় ব্রাজিল। ম্যাচের ৭৩ মিনিটে আবারও আক্রমণে গেলেও তা থেকে গোল বের করতে ব্যর্থ হয় ব্রাজিল। ম্যাচের ৭৫ মিনিটে বাম প্রান্ত থেকে ফ্রি কিক পায় ব্রাজিল। তবে রদ্রিগোর নেওয়া সেই ফ্রি কিক চলে যায় পোস্টের অনেক ওপর দিয়ে।

ম্যাচের ৭৯ মিনিটে অ্যাটাকে যায় সুইজারল্যান্ড। তবে তা থেকে কোন বিপদ ঘটাতে পারেনি তারা। ম্যাচের ৮১ মিনিটে কর্নার পায় ব্রাজিল। তবে তা থেকে গোল পেতে ব্যর্থ হয় ব্রাজিল। তবে ম্যাচের ৮৩ মিনিটে গোলের দেখা পায় ব্রাজিল। রদ্রিগোর পাসে ডি বক্সের ভেতর থেকে অসাধরণ শটে বল সুইজারল্যান্ডের জালে জড়ান ক্যাসেমিরো। তার গোলে ম্যাচে প্রথম লিড পায় ব্রাজিল।

ম্যাচে এগিয়ে গিয়ে বেশ কিছু আক্রমণ করে ব্রাজিল। তবে তা থেকে গোল করতে ব্যর্থ হয় তারা। শেষ পর্যন্ত আর কোন গোল না হলে ১-০ গোলের ব্যবধানে জয়ে নিয়ে মাঠ ছাড়ে ব্রাজিল। আর এই জয়ের ফলে নক আউট পর্ব নিশ্চিত করলো ব্রাজিল।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *