ঢাকা ০৪:৫৫ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৬:২৯:৫৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪
  • / ৪২৯ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ধর্মীয় উন্মাদনা সৃষ্টি করে দেশকে বিপথে নেয়ার অপচেষ্টা রুখে দিতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘সবার ধর্ম পালনে সমানাধিকার নিশ্চিত করতে সরকার প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।’

আজ (শনিবার, ২৫ মে) দুপুরে গণভবনে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সাথে বৌদ্ধ পূর্ণিমার শুভেচ্ছা বিনিময়কালে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ধর্মনিরপেক্ষতা বিকৃত করে দেয়া হচ্ছিল। প্রকৃতপক্ষে যার যার ধর্ম সে সে পালন করবে। এইটা হচ্ছে ধর্মনিরপেক্ষতা। ধর্মনিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা নয়। অনেক গোষ্ঠী এইটা অপপ্রচার করার চেষ্টা করেছে। কিন্তু আমরা তা স্পষ্ট করেছি।’

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘আমি নিজেই স্লোগান দিয়েছি ধর্ম যার যার উৎসব সকলের। অনেকেই পহেলা বৈশাখ পালন করতে দিতে চাইনি এইটা হিন্দু উৎসব বলে কিন্তু এখন আমরা রাষ্ট্রীয়ভাবে পহেলা বৈশাখ পালন করি। এই একটা উৎসব আমরা ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলে মিলেই করি।’

মুসলমানদের একটা হেবা আইন রয়েছে যেখান আপনজনকে সম্পত্তি দিতে গেলে একটা অঙ্কের টাকা জমা দিয়ে দিতে হয়। উত্তরাধিকারসূত্রে যারা পাবে। কিন্তু অন্যের ধর্ম এই সুযোগ ছিল না, বর্তমান সরকার সেই সুযোগটা সকলের জন্য উম্মুক্ত করে দিয়েছে বলেও জানান তিনি।

নিউজটি শেয়ার করুন

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় কাজ করছে সরকার: প্রধানমন্ত্রী

আপডেট সময় : ০৬:২৯:৫৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪

ধর্মীয় উন্মাদনা সৃষ্টি করে দেশকে বিপথে নেয়ার অপচেষ্টা রুখে দিতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘সবার ধর্ম পালনে সমানাধিকার নিশ্চিত করতে সরকার প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।’

আজ (শনিবার, ২৫ মে) দুপুরে গণভবনে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সাথে বৌদ্ধ পূর্ণিমার শুভেচ্ছা বিনিময়কালে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ধর্মনিরপেক্ষতা বিকৃত করে দেয়া হচ্ছিল। প্রকৃতপক্ষে যার যার ধর্ম সে সে পালন করবে। এইটা হচ্ছে ধর্মনিরপেক্ষতা। ধর্মনিরপেক্ষতা মানে ধর্মহীনতা নয়। অনেক গোষ্ঠী এইটা অপপ্রচার করার চেষ্টা করেছে। কিন্তু আমরা তা স্পষ্ট করেছি।’

শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘আমি নিজেই স্লোগান দিয়েছি ধর্ম যার যার উৎসব সকলের। অনেকেই পহেলা বৈশাখ পালন করতে দিতে চাইনি এইটা হিন্দু উৎসব বলে কিন্তু এখন আমরা রাষ্ট্রীয়ভাবে পহেলা বৈশাখ পালন করি। এই একটা উৎসব আমরা ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলে মিলেই করি।’

মুসলমানদের একটা হেবা আইন রয়েছে যেখান আপনজনকে সম্পত্তি দিতে গেলে একটা অঙ্কের টাকা জমা দিয়ে দিতে হয়। উত্তরাধিকারসূত্রে যারা পাবে। কিন্তু অন্যের ধর্ম এই সুযোগ ছিল না, বর্তমান সরকার সেই সুযোগটা সকলের জন্য উম্মুক্ত করে দিয়েছে বলেও জানান তিনি।