বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:৪৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
আইএসের শীর্ষ নেতা নিহত রসিক নির্বাচনে ১০ মেয়র প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধ জঙ্গি ছিনতাইয়ের ঘটনায় ১০ জঙ্গি ফের ৫ দিনের রিমান্ডে শিশু আয়াতের বিচ্ছিন্ন মাথা উদ্ধার কাদের ঋণ দিচ্ছে ব্যাংক, জানাতে হবে ওয়েবসাইটে: হাইকোর্ট রাজধানীর মাদকবিরোধী অভিযান গ্রেফতার ২৫ ম্যারাডোনা খুব খুশি হবেন: মেসি সেরে উঠেছেন নেইমার, ফিরছেন শেষ ষোলোতেই! গ্রাহক পর্যায়ে বিদ্যুতের দাম যাচাই-বাছাই করে সিদ্ধান্ত : প্রতিমন্ত্রী স্থায়ী জামিন পেলেন ভোরের পাতার সম্পাদক এরতেজা হাসান ৯৪ বার পেছাল সাগর-রুনি হত্যা মামলার প্রতিবেদন জোড়া লাগা নুহা-নুবার চিকিৎসার দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী তিতাসে ৩২শ কৃষকের মাঝে বীজ ও সার বিতরণ অনুষ্ঠিত  অসহায় পরিবারের পাশে দাঁড়ালেন পাবনা পুলিশ সুপার যমুনা-হুরাসাগরে ইলেকট্রনিক্স ডিভাইস দিয়ে রাতের আধারে মাছ শিকার

সরকার সঙ্কট সমাধানে অক্ষম: রব

সরকার সঙ্কট সমাধানে অক্ষম: রব

নিজস্ব প্রতিবেদক : 
বাংলাদেশে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভসহ ভয়াবহ অর্থনৈতিক সঙ্কট ও সমস্যার গভীরতার প্রেক্ষিতে ‘অংশগ্রহণমূলক কৌশল’ প্রণয়নে অংশিজনসহ বৃহত্তর মতৈক্য স্থাপনের প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব বলেন, রাজনৈতিক বিবেচনায় অপরিণামদর্শী মেগা প্রকল্প গ্রহণ, দুর্নীতি, অপচয় ও অর্থপাচারে মধু লোভী কার্যক্রম (রেন্ট সিকিং) এবং সরকারের দায়বদ্ধতা ও জবাবদিহিতাহীন দীর্ঘস্থায়ী ক্ষমতা আজকের এ পরিস্থিতির জন্য দায়ী। ফলে দেশকে ঋণের জালে আবদ্ধ করেও সরকার সঙ্কটের সমাধান দিতে পারবে না।

বৃহস্পতিবার (১০ নভেম্বর) গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন।

আ স ম রব বলেন, বাংলাদেশে স্বল্প সময়ের মধ্যে এবং দ্রুত হারে রিজার্ভ কমে যাওয়া বড়ই উদ্বেগের বিষয়। আমদানি নিয়ন্ত্রণ করেও কাঙ্ক্ষিত ফল মিলছে না। শুধু মুদ্রানীতি দিয়ে বা বাংলাদেশ ব্যাংক দিয়ে কিংবা জোড়াতালি দিয়ে এ সঙ্কটের সমাধান হবে না। শুধু সরকার পরিবর্তন নয়- গোটা শাসন ব্যবস্থা পরিবর্তন করেই এ সঙ্কটের সমাধান খুঁজতে হবে। এ ধরনের জাতীয় সঙ্কট জাতীয়ভাবে মোকাবিলা করার উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।

তিনি বলেন, বৈদেশিক ঋণ বাংলাদেশের আর্থিক বাস্তবতা মোকাবিলা করার জন্য যথোপযুক্ত নয়। এর জন্য রাষ্ট্রীয় কাঠামোতে অর্থবহ পরিবর্তন আনতে হবে। আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠানগুলো বিশেষ করে আইএমএফ, বিশ্ব ব্যাংক এমনভাবে বিধি-বিধান তৈরি ও নিয়ন্ত্রণ করে থাকে, যাতে সঙ্কটাপন্ন দেশসমূহের দুর্বলতা এবং ব্যর্থতা সুযোগে তারা নিজস্ব মনোভাব ও চিন্তাধারা বিশেষ করে অর্থনীতি ও সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি চাপিয়ে দিতে পারে।

আ স ম রব আরো বলেন, সারাবিশ্বে বহু উন্নয়ন মডেল রয়েছে, একেক দেশের সঙ্গে উল্লেখযোগ্য পার্থক্যও রয়েছে। সব দেশে এক ধরনের মডেল গ্রহণযোগ্য নয়। তাই বাংলাদেশে উদ্ভূত অর্থনৈতিক সঙ্কট উত্তরণে, প্রয়োজনীয় অবকাঠামোগত উন্নয়নে, আর্থিক খাত নিয়ন্ত্রণে, দারিদ্র ও অসমতা দূরীকরণে এবং সামাজিক নীতি কৌশল প্রণয়নে অংশিজনসহ বৃহত্তর ঐকমত্য প্রয়োজন।

বাংলাদেশে রাজনৈতিক দল, প্রযুক্তিবিদ, অর্থনীতিবিদ, কৃষিবিদ, ব্যবসায়ী সংগঠনসমূহের প্রতিনিধি, শিল্প কল-কারখানার প্রতিনিধি, ব্যাংকার সংগঠনের প্রতিনিধি এবং শ্রমজীবী-কর্মজীবী-পেশা জীবীদের প্রতিনিধির সমন্বয়ে ‘অংশীদারিত্বের উন্নয়ন মডেল’ প্রবর্তন করতে হবে। এ লক্ষ্যে সার্বিক উদ্যোগ নেওয়া জরুরি।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *