ঢাকা ০৩:০৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

সরকারের পতন অনিবার্য, শুধু সময়ের ব্যবধান মাত্র : কর্নেল অলি

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:১৬:৫৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০২২
  • / ৪৫১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) প্রেসিডেন্ট ড. কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীর বিক্রম বলেন, শত বাধা ও জুলুম-নির্যাতন চালিয়েও বর্তমান সরকার জনবিস্ফোরণ ঠেকাতে পারবে না, ন্যায়সঙ্গত আন্দোলনকে দমাতে পারবে না। এ সরকারের পতন অনিবার্য। শুধু সময়ের ব্যবধান মাত্র।

মঙ্গলবার (১৩ ডিসেম্বর) হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত নয়াপল্টন বিএনপির কার্যালয় পরিদর্শনে এসে এসব কথা বলেন তিনি। বেলা ১১টায় নয়াপল্টন দলীয় কার্যালয়ে আসেন তিনি। এ সময় তিনি ভাঙচুর হাওয়া বিভিন্ন কক্ষ ঘুরে দেখেন।

যে পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে আমরা যুদ্ধ করেছি সেই পাকিস্তানি বাহিনীও এভাবে কোনো অফিসে বা বাড়িতে হামলা চালায়নি বলে অভিযোগ করেন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) প্রেসিডেন্ট কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীর বিক্রম।

তিনি বলেন, আমি মনে করি বিএনপি’র এখানে হয়তো ৫০-৬০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। কিন্তু এ ঘটনায় পৃথিবীর মানুষ বুঝতে পেরেছে, তারা কত জঘন্য, কত বর্বর। তারা সভ্য সমাজে বসবাস করার মতো উপযুক্ত নয়।

কর্নেল অলি বলেন, পুলিশ বাহিনী মনে করেছে এই সরকার আমৃত্যু ক্ষমতায় থাকবে। কিন্তু বুঝতে হবে কোনো স্বৈরাচার বেশি দিন রাজত্ব করতে পারেনি।

তিনি বলেন, এ সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরানোর জন্য যা যা করার দরকার তাই করতে হবে। আমাদের কর্মসূচি আইন, সংবিধান অনুযায়ী হবে। তারা যতই অন্যায় করুক না কেন! আমরা তাদের পাতা ফাঁদে পা দেবো না। এ সরকারের পতন সময়ের ব্যাপার।

অলি আহমদ বলেন, বর্তমান সরকার বিএনপিসহ বিরোধীদলগুলোর শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে বাধা দিচ্ছে। বিএনপি নেতাকর্মীদের হত্যা, বানোয়াট মামলা দিয়ে গ্রেফতার করে কারাগারে আবদ্ধ রেখেছে। জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে কেউ কখনও ক্ষমতায় টিকতে পারেনি। এ সরকারও পারবে না।

এ সময় তিনি বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের মুক্তি দাবি করেন। একইসঙ্গে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অভিযানের নিন্দা জানান।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান ও ভারপ্রাপ্ত দপ্তর সম্পাদক ইমরান সালেহ প্রিন্সসহ বিএনপি ও এলডিপির নেতাকর্মীরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

সরকারের পতন অনিবার্য, শুধু সময়ের ব্যবধান মাত্র : কর্নেল অলি

আপডেট সময় : ০১:১৬:৫৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) প্রেসিডেন্ট ড. কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীর বিক্রম বলেন, শত বাধা ও জুলুম-নির্যাতন চালিয়েও বর্তমান সরকার জনবিস্ফোরণ ঠেকাতে পারবে না, ন্যায়সঙ্গত আন্দোলনকে দমাতে পারবে না। এ সরকারের পতন অনিবার্য। শুধু সময়ের ব্যবধান মাত্র।

মঙ্গলবার (১৩ ডিসেম্বর) হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত নয়াপল্টন বিএনপির কার্যালয় পরিদর্শনে এসে এসব কথা বলেন তিনি। বেলা ১১টায় নয়াপল্টন দলীয় কার্যালয়ে আসেন তিনি। এ সময় তিনি ভাঙচুর হাওয়া বিভিন্ন কক্ষ ঘুরে দেখেন।

যে পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে আমরা যুদ্ধ করেছি সেই পাকিস্তানি বাহিনীও এভাবে কোনো অফিসে বা বাড়িতে হামলা চালায়নি বলে অভিযোগ করেন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) প্রেসিডেন্ট কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীর বিক্রম।

তিনি বলেন, আমি মনে করি বিএনপি’র এখানে হয়তো ৫০-৬০ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। কিন্তু এ ঘটনায় পৃথিবীর মানুষ বুঝতে পেরেছে, তারা কত জঘন্য, কত বর্বর। তারা সভ্য সমাজে বসবাস করার মতো উপযুক্ত নয়।

কর্নেল অলি বলেন, পুলিশ বাহিনী মনে করেছে এই সরকার আমৃত্যু ক্ষমতায় থাকবে। কিন্তু বুঝতে হবে কোনো স্বৈরাচার বেশি দিন রাজত্ব করতে পারেনি।

তিনি বলেন, এ সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরানোর জন্য যা যা করার দরকার তাই করতে হবে। আমাদের কর্মসূচি আইন, সংবিধান অনুযায়ী হবে। তারা যতই অন্যায় করুক না কেন! আমরা তাদের পাতা ফাঁদে পা দেবো না। এ সরকারের পতন সময়ের ব্যাপার।

অলি আহমদ বলেন, বর্তমান সরকার বিএনপিসহ বিরোধীদলগুলোর শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে বাধা দিচ্ছে। বিএনপি নেতাকর্মীদের হত্যা, বানোয়াট মামলা দিয়ে গ্রেফতার করে কারাগারে আবদ্ধ রেখেছে। জুলুম-নির্যাতন চালিয়ে কেউ কখনও ক্ষমতায় টিকতে পারেনি। এ সরকারও পারবে না।

এ সময় তিনি বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের মুক্তি দাবি করেন। একইসঙ্গে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অভিযানের নিন্দা জানান।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান ও ভারপ্রাপ্ত দপ্তর সম্পাদক ইমরান সালেহ প্রিন্সসহ বিএনপি ও এলডিপির নেতাকর্মীরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।