ঢাকা ০১:১৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৬ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

সরকারি দপ্তরেরই কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া!

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:৪৬:০০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
  • / ৪৪৮ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

খাগড়াছড়িতে সরকারি দপ্তরগুলোর কাছে প্রায় দুই কোটি টাকার বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রয়েছে। এ হিসাব চলতিবছরের জুলাই মাস পর্যন্ত। সম্প্রতি আন্ত:মন্ত্রণালয় সভায় পিডিবির পাওনা বিল পরিশোধের সিদ্ধান্ত হওয়ার পর টাকা পরিশোধে আশ্বাস দিচ্ছেন সংশ্লিষ্ট দপ্তরের প্রধানরা।

খাগড়াছড়ির সরকারি বিদ্যুত ব্যবহার করেও দপ্তরগুলো পিডিবিকে বিল দেয়না বছরের পর বছর। বিদ্যুত উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য মতে, চলতি বছরের জুলাই মাস পর্যন্ত বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রয়েছে খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশের ৭০ লাখ টাকা, রামগড় পৌরসভার ৪৫ লাখ টাকা, সদর উপজেলা পরিষদের ১০ লাখ, গণপূর্ত বিভাগের ১২ লাখ, রামগড় উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের ৬ লাখ, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের ৪ লাখ এবং অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের বাস ভবনের নামে ৩ লাখ টাকা।

সব সরকারি দপ্তর মিলে বকেয়ার পরিমাণ প্রায় ২ কোটি টাকা। খাগড়াছড়ির বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবির এবং সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন আক্তারসহ কয়েকটি দপ্তরের প্রধানরা জানালেন বরাদ্দ পেলে বকেয়া বিল পরিশোধ করা হবে।

পাওনা আদায়ে চিঠি দেয়ার পাশাপাশি আইন প্রয়োগের ইঙ্গিত দিলেন বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী স্বাগত সরকার।

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা খোঁজ নিয়ে বিল পরিশোধের আশ্বাস দিয়েছেন।

খাগড়াছড়িতে ১৩টি উপ কেন্দ্রে গ্রাহকের সংখ্যা ৭৭ হাজার ৫শ ৪৭টি। দৈনিক বিদ্যুতের চাহিদা ৩৭ মেগা ওয়াট।

নিউজটি শেয়ার করুন

সরকারি দপ্তরেরই কোটি টাকা বিদ্যুৎ বিল বকেয়া!

আপডেট সময় : ১০:৪৬:০০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২

খাগড়াছড়িতে সরকারি দপ্তরগুলোর কাছে প্রায় দুই কোটি টাকার বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রয়েছে। এ হিসাব চলতিবছরের জুলাই মাস পর্যন্ত। সম্প্রতি আন্ত:মন্ত্রণালয় সভায় পিডিবির পাওনা বিল পরিশোধের সিদ্ধান্ত হওয়ার পর টাকা পরিশোধে আশ্বাস দিচ্ছেন সংশ্লিষ্ট দপ্তরের প্রধানরা।

খাগড়াছড়ির সরকারি বিদ্যুত ব্যবহার করেও দপ্তরগুলো পিডিবিকে বিল দেয়না বছরের পর বছর। বিদ্যুত উন্নয়ন বোর্ডের তথ্য মতে, চলতি বছরের জুলাই মাস পর্যন্ত বিদ্যুৎ বিল বকেয়া রয়েছে খাগড়াছড়ি জেলা পুলিশের ৭০ লাখ টাকা, রামগড় পৌরসভার ৪৫ লাখ টাকা, সদর উপজেলা পরিষদের ১০ লাখ, গণপূর্ত বিভাগের ১২ লাখ, রামগড় উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগের ৬ লাখ, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের ৪ লাখ এবং অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের বাস ভবনের নামে ৩ লাখ টাকা।

সব সরকারি দপ্তর মিলে বকেয়ার পরিমাণ প্রায় ২ কোটি টাকা। খাগড়াছড়ির বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. হুমায়ুন কবির এবং সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জেসমিন আক্তারসহ কয়েকটি দপ্তরের প্রধানরা জানালেন বরাদ্দ পেলে বকেয়া বিল পরিশোধ করা হবে।

পাওনা আদায়ে চিঠি দেয়ার পাশাপাশি আইন প্রয়োগের ইঙ্গিত দিলেন বিদ্যুৎ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী স্বাগত সরকার।

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের চেয়ারম্যান নিখিল কুমার চাকমা খোঁজ নিয়ে বিল পরিশোধের আশ্বাস দিয়েছেন।

খাগড়াছড়িতে ১৩টি উপ কেন্দ্রে গ্রাহকের সংখ্যা ৭৭ হাজার ৫শ ৪৭টি। দৈনিক বিদ্যুতের চাহিদা ৩৭ মেগা ওয়াট।