ঢাকা ০৫:২৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

সম্পত্তি বিলিয়ে দিয়ে ভিক্ষাবৃত্তি বেছে নিলেন দম্পতি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৩:৩৬:১৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪
  • / ৪৭১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজেদের যাবতীয় সম্পত্তি বিলিয়ে দিয়ে সন্ন্যাসব্রত নিলেন ভারতের গুজরাটের এক ব্যবসায়ী ও তাঁর স্ত্রী। দেশজুড়ে ভিক্ষা করেই বাকী জীবন কাটাবেন এই দম্পতি। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়।

গুজরাটের হিম্মতনগরের বাসিন্দা ওই ব্যবসায়ীর নাম ভবেশ ভাণ্ডারি। নির্মাণকাজের ব্যবসা আছে তাঁর। সবমিলিয়ে ২০০ কোটি মূল্যের সম্পদের মালিক তিনি। গত ফেব্রুয়ারিতে ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান করে নিজেদের সমস্ত সম্পত্তি দান করেন ভবেশ দম্পতি। আগামী ২২ এপ্রিল শপথ নেওয়ার পরে শুরু হবে তাঁদের সন্ন্যাস জীবন।

সম্পত্তি দানে একটি বিশেষ শোভাযাত্রার আয়োজন করেন ভবেশ ও তাঁর স্ত্রী। রাজকীয় পোশাকে সেজে নিজেদের যাবতীয় সম্পদ ওই শোভাযাত্রা থেকেই বিলিয়ে দেন। প্রায় চার কিলোমিটার পথ একটি ট্রাকে চেপে পাড়ি দেন তাঁরা। এ সময় নগদ অর্থের পাশাপাশি বাড়ির এসি থেকে শুরু করে স্মার্টফোনও দান করেন এই দম্পতি। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় এই শোভাযাত্রার ভিডিও ভাইরাল হয়।

অনেকের প্রশ্ন, কীভাবে বাকি জীবন কাটাবেন ২০০ কোটির মালিক? জানা গেছে, সংসারের সঙ্গে সমস্ত বন্ধন কাটিয়ে ফেলতে হবে তাঁদের। কোনো সম্পত্তি রাখতে পারবেন না। সঙ্গে থাকবে কেবল সাদা রঙের দুটি পোশাক। আর থাকবে ভিক্ষার পাত্র ও একটি ঝাড়ু। জৈন ধর্মের সন্ন্যাসীরা কোথাও বসতে গেলে এই ঝাড়ু দিয়ে পোকামাকড় সরিয়ে দেন। সন্ন্যাস নেওয়ার পর থেকে খালি পায়ে গোটা ভারত ঘুরবেন ভবেশ ও তাঁর স্ত্রী। ভিক্ষার অর্থেই চলবে তাঁদের জীবন।

এর আগে ২০২২ সালে সংসারের মোহ কাটিয়ে সন্ন্যাস নেন ভবেশ দম্পতির ১৯ বছরের মেয়ে ও ১৬ বছরের ছেলে। সন্তানদের দেখেই তাঁরা অনুপ্রাণিত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এর আগে ২০২৩ সালে এক হীরা ব্যবসায়ী ধনকুবের ও তাঁর স্ত্রীর সব সম্পদ দান করে সন্ন্যাসব্রত নেওয়ার খবর প্রকাশ পেয়েছিল।

নিউজটি শেয়ার করুন

সম্পত্তি বিলিয়ে দিয়ে ভিক্ষাবৃত্তি বেছে নিলেন দম্পতি

আপডেট সময় : ০৩:৩৬:১৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪

নিজেদের যাবতীয় সম্পত্তি বিলিয়ে দিয়ে সন্ন্যাসব্রত নিলেন ভারতের গুজরাটের এক ব্যবসায়ী ও তাঁর স্ত্রী। দেশজুড়ে ভিক্ষা করেই বাকী জীবন কাটাবেন এই দম্পতি। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়।

গুজরাটের হিম্মতনগরের বাসিন্দা ওই ব্যবসায়ীর নাম ভবেশ ভাণ্ডারি। নির্মাণকাজের ব্যবসা আছে তাঁর। সবমিলিয়ে ২০০ কোটি মূল্যের সম্পদের মালিক তিনি। গত ফেব্রুয়ারিতে ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান করে নিজেদের সমস্ত সম্পত্তি দান করেন ভবেশ দম্পতি। আগামী ২২ এপ্রিল শপথ নেওয়ার পরে শুরু হবে তাঁদের সন্ন্যাস জীবন।

সম্পত্তি দানে একটি বিশেষ শোভাযাত্রার আয়োজন করেন ভবেশ ও তাঁর স্ত্রী। রাজকীয় পোশাকে সেজে নিজেদের যাবতীয় সম্পদ ওই শোভাযাত্রা থেকেই বিলিয়ে দেন। প্রায় চার কিলোমিটার পথ একটি ট্রাকে চেপে পাড়ি দেন তাঁরা। এ সময় নগদ অর্থের পাশাপাশি বাড়ির এসি থেকে শুরু করে স্মার্টফোনও দান করেন এই দম্পতি। সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় এই শোভাযাত্রার ভিডিও ভাইরাল হয়।

অনেকের প্রশ্ন, কীভাবে বাকি জীবন কাটাবেন ২০০ কোটির মালিক? জানা গেছে, সংসারের সঙ্গে সমস্ত বন্ধন কাটিয়ে ফেলতে হবে তাঁদের। কোনো সম্পত্তি রাখতে পারবেন না। সঙ্গে থাকবে কেবল সাদা রঙের দুটি পোশাক। আর থাকবে ভিক্ষার পাত্র ও একটি ঝাড়ু। জৈন ধর্মের সন্ন্যাসীরা কোথাও বসতে গেলে এই ঝাড়ু দিয়ে পোকামাকড় সরিয়ে দেন। সন্ন্যাস নেওয়ার পর থেকে খালি পায়ে গোটা ভারত ঘুরবেন ভবেশ ও তাঁর স্ত্রী। ভিক্ষার অর্থেই চলবে তাঁদের জীবন।

এর আগে ২০২২ সালে সংসারের মোহ কাটিয়ে সন্ন্যাস নেন ভবেশ দম্পতির ১৯ বছরের মেয়ে ও ১৬ বছরের ছেলে। সন্তানদের দেখেই তাঁরা অনুপ্রাণিত হয়েছেন বলে জানা গেছে। এর আগে ২০২৩ সালে এক হীরা ব্যবসায়ী ধনকুবের ও তাঁর স্ত্রীর সব সম্পদ দান করে সন্ন্যাসব্রত নেওয়ার খবর প্রকাশ পেয়েছিল।