ঢাকা ০৭:১৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

সংবিধানের কোথাও নির্বাচনকালীন সরকারের কথা বলা নেই: আইনমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট সময় : ০৮:৫৪:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০২৩
  • / ৫৩১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন, সংবিধানের কোথাও নির্বাচনকালীন সরকারের কথা বলা নেই। নির্বাচন পরিচালনা করবে নির্বাচন কমিশন। ওই সময় সরকার তার রুটিন কার্যক্রম পরিচালনা করবে।

মঙ্গলবার (১৭ অক্টোবর) সচিবালয়ে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ মন্তব্য করেন। আইএলও’র বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর টুমো পোটিআইনেন নেতৃত্বে প্রতিনিধিদল বৈঠকে অংশগ্রহণ করে।

আইনমন্ত্রী বলেন, এটা প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নেবেন, তার কতজন মন্ত্রী নির্বাচনকালীন সময়ে প্রয়োজন, কতজন না। যদি তার সবার প্রয়োজন থাকে সবাই থাকবেন। আর যদি তিনি মনে করেন ছোট আকারে করতে পারেন, সেটা তার ইচ্ছা। সংবিধান তাকে সেই ক্ষমতা দিয়েছে।

সংসদের আগামী অধিবেশন বিষয়ে জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে জাতীয় সংসদের শেষ অধিবেশন বসবে কয়েকদিন পরেই। ওই অধিবেশনে আইন পাশের পাশাপাশি অনেক কিছু নিয়েই আলোচনা হতে পারে।

মন্ত্রী বলেন, আমরা শ্রম আইনে কিছু পরিবর্তন এনেছি। আমাদের সঙ্গে আইএলও’র আলোচনা হয়েছে। তাদের কিছু বক্তব্য ছিল। সেই বক্তব্য নিয়ে এসেছিল আইএলও’র কান্ট্রি ডিরেক্টর। আমরা সেগুলো শুনেছি এবং কিছু কিছু বিষয়ে সমাধান করে ফেলেছি। আইএলও শ্রমিকদের স্ট্রাইক করার ক্ষমতা এবং লেবার কোর্টের ক্ষমতা বৃদ্ধির ওপর জোর দিয়েছেন। তারা আমাদের বেশিরভাগ সংশোধনীতে খুশি। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে তারা আন্তর্জাতিক মানদণ্ড বা আইএলও’র মানদণ্ড অনুযায়ী করার পরামর্শ দিয়েছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

সংবিধানের কোথাও নির্বাচনকালীন সরকারের কথা বলা নেই: আইনমন্ত্রী

আপডেট সময় : ০৮:৫৪:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০২৩

আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়কমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন, সংবিধানের কোথাও নির্বাচনকালীন সরকারের কথা বলা নেই। নির্বাচন পরিচালনা করবে নির্বাচন কমিশন। ওই সময় সরকার তার রুটিন কার্যক্রম পরিচালনা করবে।

মঙ্গলবার (১৭ অক্টোবর) সচিবালয়ে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ মন্তব্য করেন। আইএলও’র বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর টুমো পোটিআইনেন নেতৃত্বে প্রতিনিধিদল বৈঠকে অংশগ্রহণ করে।

আইনমন্ত্রী বলেন, এটা প্রধানমন্ত্রী সিদ্ধান্ত নেবেন, তার কতজন মন্ত্রী নির্বাচনকালীন সময়ে প্রয়োজন, কতজন না। যদি তার সবার প্রয়োজন থাকে সবাই থাকবেন। আর যদি তিনি মনে করেন ছোট আকারে করতে পারেন, সেটা তার ইচ্ছা। সংবিধান তাকে সেই ক্ষমতা দিয়েছে।

সংসদের আগামী অধিবেশন বিষয়ে জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের আমলে জাতীয় সংসদের শেষ অধিবেশন বসবে কয়েকদিন পরেই। ওই অধিবেশনে আইন পাশের পাশাপাশি অনেক কিছু নিয়েই আলোচনা হতে পারে।

মন্ত্রী বলেন, আমরা শ্রম আইনে কিছু পরিবর্তন এনেছি। আমাদের সঙ্গে আইএলও’র আলোচনা হয়েছে। তাদের কিছু বক্তব্য ছিল। সেই বক্তব্য নিয়ে এসেছিল আইএলও’র কান্ট্রি ডিরেক্টর। আমরা সেগুলো শুনেছি এবং কিছু কিছু বিষয়ে সমাধান করে ফেলেছি। আইএলও শ্রমিকদের স্ট্রাইক করার ক্ষমতা এবং লেবার কোর্টের ক্ষমতা বৃদ্ধির ওপর জোর দিয়েছেন। তারা আমাদের বেশিরভাগ সংশোধনীতে খুশি। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে তারা আন্তর্জাতিক মানদণ্ড বা আইএলও’র মানদণ্ড অনুযায়ী করার পরামর্শ দিয়েছেন।