ঢাকা ০২:৪৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

সংবাদ সংস্থা বিবিসি’র চেয়ারম্যানের পদত্যাগ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৮:১২:২৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ এপ্রিল ২০২৩
  • / ৪৫১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: অনিয়মের অভিযোগে পদত্যাগ করেছেন বিবিসির চেয়ারম্যান রিচার্ড শার্প। এক তদন্ত প্রতিবেদনে, নিয়ম ভঙ্গ করে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে ঋণ পেতে সহযোগিতা করার অভিযোগ উঠে আসায় এ পদক্ষেপ নিলেন তিনি। আজ শুক্রবার (২৮শে এপ্রিল) পদত্যাগের ঘোষণা দেন বিবিসি চেয়ারম্যান।

বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, নিজের প্রভাব খাটিয়ে ও সরকারী বিধি লঙ্ঘন করে বরিস জনসনকে ৮ লাখ পাউন্ড ব্যাংক ঋণ পেতে সহযোগিতা করেছিলেন শার্প। এটা তিনি করেছিলেন বিবিসির চেয়ারম্যান পদে বরিসের সুপারিশ লাভের মাত্র এক সপ্তাহ আগে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির স্বার্থকে অগ্রাধিকার দিতে পদত্যাগ করছেন উল্লে­খ করে রিচার্ড বলেছেন, সচেতনভাবে এই অনিয়ম তিনি করেননি। এটি ছিল একটি ‘অনিচ্ছাকৃত ভুল’।

তিনি বলেছেন, ‘আমি মনে করি, এই পরিস্থিতিতে আমার মেয়াদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত এই পদে থাকলে তা বিভ্রান্তিকর হতে পারে।’

উল্লে­খ্য বিবিসি যখন কোনো চেয়ারম্যান নিয়োগ করে, তখন তার মনোনয়ন আসে সরকারের তরফ থেকে। কিন্তু একটি বোর্ডের কাছে ওই ব্যক্তিকে সমস্ত তথ্য জানাতে হয়। সরকারের সঙ্গে তার সম্পর্কের বিষয়টি স্পষ্ট করে জানাতে হয়। কিন্তু রিচার্ড যখন চেয়ারম্যান হন, তখন তিনি ঋণের বিষয়টি সম্পূর্ণ আড়ালে রেখেছিলেন। আর সেটিই তার দোষ বলে মনে করা হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

সংবাদ সংস্থা বিবিসি’র চেয়ারম্যানের পদত্যাগ

আপডেট সময় : ০৮:১২:২৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ এপ্রিল ২০২৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: অনিয়মের অভিযোগে পদত্যাগ করেছেন বিবিসির চেয়ারম্যান রিচার্ড শার্প। এক তদন্ত প্রতিবেদনে, নিয়ম ভঙ্গ করে সাবেক ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে ঋণ পেতে সহযোগিতা করার অভিযোগ উঠে আসায় এ পদক্ষেপ নিলেন তিনি। আজ শুক্রবার (২৮শে এপ্রিল) পদত্যাগের ঘোষণা দেন বিবিসি চেয়ারম্যান।

বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী, নিজের প্রভাব খাটিয়ে ও সরকারী বিধি লঙ্ঘন করে বরিস জনসনকে ৮ লাখ পাউন্ড ব্যাংক ঋণ পেতে সহযোগিতা করেছিলেন শার্প। এটা তিনি করেছিলেন বিবিসির চেয়ারম্যান পদে বরিসের সুপারিশ লাভের মাত্র এক সপ্তাহ আগে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির স্বার্থকে অগ্রাধিকার দিতে পদত্যাগ করছেন উল্লে­খ করে রিচার্ড বলেছেন, সচেতনভাবে এই অনিয়ম তিনি করেননি। এটি ছিল একটি ‘অনিচ্ছাকৃত ভুল’।

তিনি বলেছেন, ‘আমি মনে করি, এই পরিস্থিতিতে আমার মেয়াদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত এই পদে থাকলে তা বিভ্রান্তিকর হতে পারে।’

উল্লে­খ্য বিবিসি যখন কোনো চেয়ারম্যান নিয়োগ করে, তখন তার মনোনয়ন আসে সরকারের তরফ থেকে। কিন্তু একটি বোর্ডের কাছে ওই ব্যক্তিকে সমস্ত তথ্য জানাতে হয়। সরকারের সঙ্গে তার সম্পর্কের বিষয়টি স্পষ্ট করে জানাতে হয়। কিন্তু রিচার্ড যখন চেয়ারম্যান হন, তখন তিনি ঋণের বিষয়টি সম্পূর্ণ আড়ালে রেখেছিলেন। আর সেটিই তার দোষ বলে মনে করা হচ্ছে।