ঢাকা ১০:৫৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

শ্রীমঙ্গলে হামলা ও বাড়ির প্রাচীর ভাঙার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৩:৫২:৪৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪
  • / ৪৬০ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে পূর্ব শত্রুতার জেরে বাড়িতে হামলা চালিয়ে নতুন সীমানা প্রাচীর ভাঙচুর ও আহতের ঘটনায় সংবাদ সম্মেলন করেছেন সিন্দুরখাঁন সড়কের বাসিন্দা মৃত মো. আব্দুল গনির ছেলে আব্দুল হাসিম।
মঙ্গলবার (২১ মে) সকাল ১১ টায় শ্রীমঙ্গল প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মো. আব্দুল হাসিম লিখিত বক্তব্যে জানান, গত ১৬ মে ভোর ৪টার দিকে সিন্দুখাঁন ইউনিয়নের হুগলিয়া গ্রামের আব্দুল খালেক এর ছেলে আবু তাহেরের নেতৃত্বে ১৫/১৬জন লোক দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আমার বাড়িতে প্রবেশ করে প্রথমে গ্রীলে তালা মেরে পরিবারের সবাইকে জিম্মি করে নেয়। পরে আমার বাড়ির নবনির্মিত সীমানা প্রাচীরটি ভাঙতে থাকে।
এ সময় আমি অন্য একটি ঘরে রাত্রীযাপন করছিলাম। প্রাচীর ভাঙার শব্দ শোনে আমি ঘর থেকে বেরিয়ে আসলে তাঁরা আমার উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এক পর্যায়ে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসলে হামলাকারী আবু তাহের আমাকে প্রাণে মারার হুমকি দিয়ে দলবল নিয়ে চলে যায়।
এরপর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা আমাকে শ্রীমঙ্গল সরকারি হাসপাতালে পাঠায়। এ ঘটনায় মো. আবু তাহের, মো. জিতু মিয়া, কয়েছ মিয়া, আবুল খায়ের, মো. সামি, মো. স্বপন মিয়াসহ অজ্ঞাত আরও ১০/১৫ জনের বিরুদ্ধে শ্রীমঙ্গল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আব্দুল হাসিম আরও বলেন, বিগত ২০১৬ সালে তিনি সিন্দুরখাঁন রোডস্থ জামেয়া ইসলামিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন এলাকায় মো, জৈন আলীর নিকট থেকে বাসা ক্রয় করে বসবাস করে আসছি। জৈন আলী বাসাটি বিক্রির আগে প্রতিবেশী আবু তাহেরকে কেনার প্রস্তাব দেন। আবু তাহের বাসাটি কিনতে অপারগতা প্রকাশ করলে আমি জৈন আলীর কাছ থেকে বাসাটি ক্রয় করে পরিবার নিয়ে বসবাস করছি।
বাসা কেনার পর থেকেই আবু তাহের তার সাথে বিভিন্ন ভাবে শত্রুতা করে আসছে। আমার বাসার পাশেই আবু তাহেরের একটি বাসা রয়েছে। সেখানে আবু তাহের ব্যাচালার ভাড়াটিয়াদের থাকতে দেন। ব্যাচালার ভাড়াটিয়া থাকার কারণে আমার বাসার মহিলাদের চলাফেরায় সমস্যা হচ্ছিল। পরে আমি বাসার মহিলাদের নির্ভিগ্নে চলাচল করার জন্য গত ১০ মে বাসায় নতুন প্রাচীর নির্মাণ করি।
আব্দুল হাসিম সংবাদ সম্মেলনে আরও বলেন, আমি আমার ক্রয়কৃত ০.৩৭ শতাংশ জায়গার উপর প্রাচীর নির্মাণ করেছি। প্রাচীর নির্মাণের পর আবু তাহের আমাকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকি দিয়ে আসছিল। এক পর্যায়ে গত ১৬ মে ভোর ৪টার সময় আবু তাহের দলবল নিয়ে আমার বাড়িতে হামলা চালিয়ে নবনির্মিত প্রাচীর ভেঙে আমার ৫০ হাজার টাকার ক্ষতি করেছে। এবং আমার উপর হামলা করে আমাকে আহত করেছে।
সংবাদ সম্মেলনে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানান আব্দুল হাসিম। এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে অভিযুক্ত আবু তাহেরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি তাঁর বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ অস্বীকার করেন।
শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ বিনয় ভূষন রায় বলেন, এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

শ্রীমঙ্গলে হামলা ও বাড়ির প্রাচীর ভাঙার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন

আপডেট সময় : ০৩:৫২:৪৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪
মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে পূর্ব শত্রুতার জেরে বাড়িতে হামলা চালিয়ে নতুন সীমানা প্রাচীর ভাঙচুর ও আহতের ঘটনায় সংবাদ সম্মেলন করেছেন সিন্দুরখাঁন সড়কের বাসিন্দা মৃত মো. আব্দুল গনির ছেলে আব্দুল হাসিম।
মঙ্গলবার (২১ মে) সকাল ১১ টায় শ্রীমঙ্গল প্রেস ক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মো. আব্দুল হাসিম লিখিত বক্তব্যে জানান, গত ১৬ মে ভোর ৪টার দিকে সিন্দুখাঁন ইউনিয়নের হুগলিয়া গ্রামের আব্দুল খালেক এর ছেলে আবু তাহেরের নেতৃত্বে ১৫/১৬জন লোক দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে আমার বাড়িতে প্রবেশ করে প্রথমে গ্রীলে তালা মেরে পরিবারের সবাইকে জিম্মি করে নেয়। পরে আমার বাড়ির নবনির্মিত সীমানা প্রাচীরটি ভাঙতে থাকে।
এ সময় আমি অন্য একটি ঘরে রাত্রীযাপন করছিলাম। প্রাচীর ভাঙার শব্দ শোনে আমি ঘর থেকে বেরিয়ে আসলে তাঁরা আমার উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এক পর্যায়ে প্রতিবেশীরা এগিয়ে আসলে হামলাকারী আবু তাহের আমাকে প্রাণে মারার হুমকি দিয়ে দলবল নিয়ে চলে যায়।
এরপর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা আমাকে শ্রীমঙ্গল সরকারি হাসপাতালে পাঠায়। এ ঘটনায় মো. আবু তাহের, মো. জিতু মিয়া, কয়েছ মিয়া, আবুল খায়ের, মো. সামি, মো. স্বপন মিয়াসহ অজ্ঞাত আরও ১০/১৫ জনের বিরুদ্ধে শ্রীমঙ্গল থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আব্দুল হাসিম আরও বলেন, বিগত ২০১৬ সালে তিনি সিন্দুরখাঁন রোডস্থ জামেয়া ইসলামিয়া মাদ্রাসা সংলগ্ন এলাকায় মো, জৈন আলীর নিকট থেকে বাসা ক্রয় করে বসবাস করে আসছি। জৈন আলী বাসাটি বিক্রির আগে প্রতিবেশী আবু তাহেরকে কেনার প্রস্তাব দেন। আবু তাহের বাসাটি কিনতে অপারগতা প্রকাশ করলে আমি জৈন আলীর কাছ থেকে বাসাটি ক্রয় করে পরিবার নিয়ে বসবাস করছি।
বাসা কেনার পর থেকেই আবু তাহের তার সাথে বিভিন্ন ভাবে শত্রুতা করে আসছে। আমার বাসার পাশেই আবু তাহেরের একটি বাসা রয়েছে। সেখানে আবু তাহের ব্যাচালার ভাড়াটিয়াদের থাকতে দেন। ব্যাচালার ভাড়াটিয়া থাকার কারণে আমার বাসার মহিলাদের চলাফেরায় সমস্যা হচ্ছিল। পরে আমি বাসার মহিলাদের নির্ভিগ্নে চলাচল করার জন্য গত ১০ মে বাসায় নতুন প্রাচীর নির্মাণ করি।
আব্দুল হাসিম সংবাদ সম্মেলনে আরও বলেন, আমি আমার ক্রয়কৃত ০.৩৭ শতাংশ জায়গার উপর প্রাচীর নির্মাণ করেছি। প্রাচীর নির্মাণের পর আবু তাহের আমাকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকি দিয়ে আসছিল। এক পর্যায়ে গত ১৬ মে ভোর ৪টার সময় আবু তাহের দলবল নিয়ে আমার বাড়িতে হামলা চালিয়ে নবনির্মিত প্রাচীর ভেঙে আমার ৫০ হাজার টাকার ক্ষতি করেছে। এবং আমার উপর হামলা করে আমাকে আহত করেছে।
সংবাদ সম্মেলনে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচারের দাবি জানান আব্দুল হাসিম। এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে অভিযুক্ত আবু তাহেরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি তাঁর বিরুদ্ধে আনা সকল অভিযোগ অস্বীকার করেন।
শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ বিনয় ভূষন রায় বলেন, এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
বাখ//আর