ঢাকা ০৬:১৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

শ্রদ্ধাকে খুনের পর চিকেন রোল অর্ডার করেন আফতাব

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:৫১:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
  • / ৪৪১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 

ভারতের দিল্লির আলোচিত শ্রদ্ধা ওয়ালকার হত্যাকাণ্ডে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। আর এই চার্জশিটে উঠে এসেছে খুনের নৃশংস বিবরণ। একাধিক নারীসঙ্গ থাকায় আফতাবের সঙ্গে এ নিয়ে শ্রদ্ধার প্রাইয় ঝামেলা হত। দিল্লি পুলিশের ৬ হাজার ৬০০ পাতার চার্জশিটে এ কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

দিল্লিতে শ্রদ্ধা ওয়ালকরকে খুনের সেই নৃশংস বিবরণ উঠে এসেছে পুলিশের চার্জশিটে। লিভ ইন সঙ্গী শ্রদ্ধাকে কীভাবে খুন করেছিলেন প্রেমিক আফতাব আমিন পুনাওয়ালা? সেই ভয় ধরানো কাহিনিই তুলে ধরা হয়েছে ৬ হাজার ৬০০ পাতার চার্জশিটে। শ্রদ্ধাকে খুনের পর চিকেন রোল খেয়েছিলেন আফতাব। প্রেমিকার রক্ত সাফ করেছিলেন হারপিক দিয়ে। এমন তথ্যই তুলে ধরা হয়েছে চার্জশিটে।

একটি ডেটিং অ্যাপের মাধ্যমে মহারাষ্ট্রের পালঘরের তরুণী শ্রদ্ধার সঙ্গে আলাপ হয়েছিল আফতাবের। সেই আলাপ প্রেম। বাড়ির অমতেই আফতাবকে জীবনসঙ্গী হিসাবে বেছে নেন শ্রদ্ধা। যার জন্য আপনজনদের ছেড়েছেন, সেই আফতাবের হাতেই খুন হতে হয় শ্রদ্ধাকে।

গত বছরের ১৮ মে শ্রদ্ধাকে খুন করেন তার প্রেমিক। তবে এই হত্যাকাণ্ডের খবর প্রকাশ্যে আসে গত বছরের নভেম্বরে। শ্রদ্ধার নামে নিখোঁজ ডায়েরি করেন তার বাবা বিকাশ ওয়ালকর। ঘটনার তদন্তে নেমেই পর্দাফাঁস করে পুলিশ। শ্রদ্ধাকে খুনের পর তার দেহ ৩৫ টুকরো করেন আফতাব। এই নৃশংস হত্যার ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই শোরগোল পড়ে যায়। ১২ নভেম্বর গ্রেপ্তার করা হয় আফতাবকে।

দিল্লির ছতরপুরে যে ভাড়া বাড়িতে থাকতেন শ্রদ্ধা এবং আফতাব, গত বছরের ১৮ মে সেখানেই খুন করা হয় শ্রদ্ধাকে। চার্জশিটে উল্লেখ করা হয়েছে, শ্রদ্ধাকে জাপটে ধরে প্রথমে মেঝেতে ফেলে দেন আফতাব। শ্রদ্ধার বুকের উপর চড়ে বসেন তিনি। তার পর দু’হাত দিয়ে শ্রদ্ধার গলা চেপে ধরেন। মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর শ্রদ্ধার দেহ শৌচাগারে লুকিয়ে রাখেন আফতাব। সূত্র: আনন্দবাজার।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

শ্রদ্ধাকে খুনের পর চিকেন রোল অর্ডার করেন আফতাব

আপডেট সময় : ০৪:৫১:৪৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 

ভারতের দিল্লির আলোচিত শ্রদ্ধা ওয়ালকার হত্যাকাণ্ডে চার্জশিট দিয়েছে পুলিশ। আর এই চার্জশিটে উঠে এসেছে খুনের নৃশংস বিবরণ। একাধিক নারীসঙ্গ থাকায় আফতাবের সঙ্গে এ নিয়ে শ্রদ্ধার প্রাইয় ঝামেলা হত। দিল্লি পুলিশের ৬ হাজার ৬০০ পাতার চার্জশিটে এ কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

দিল্লিতে শ্রদ্ধা ওয়ালকরকে খুনের সেই নৃশংস বিবরণ উঠে এসেছে পুলিশের চার্জশিটে। লিভ ইন সঙ্গী শ্রদ্ধাকে কীভাবে খুন করেছিলেন প্রেমিক আফতাব আমিন পুনাওয়ালা? সেই ভয় ধরানো কাহিনিই তুলে ধরা হয়েছে ৬ হাজার ৬০০ পাতার চার্জশিটে। শ্রদ্ধাকে খুনের পর চিকেন রোল খেয়েছিলেন আফতাব। প্রেমিকার রক্ত সাফ করেছিলেন হারপিক দিয়ে। এমন তথ্যই তুলে ধরা হয়েছে চার্জশিটে।

একটি ডেটিং অ্যাপের মাধ্যমে মহারাষ্ট্রের পালঘরের তরুণী শ্রদ্ধার সঙ্গে আলাপ হয়েছিল আফতাবের। সেই আলাপ প্রেম। বাড়ির অমতেই আফতাবকে জীবনসঙ্গী হিসাবে বেছে নেন শ্রদ্ধা। যার জন্য আপনজনদের ছেড়েছেন, সেই আফতাবের হাতেই খুন হতে হয় শ্রদ্ধাকে।

গত বছরের ১৮ মে শ্রদ্ধাকে খুন করেন তার প্রেমিক। তবে এই হত্যাকাণ্ডের খবর প্রকাশ্যে আসে গত বছরের নভেম্বরে। শ্রদ্ধার নামে নিখোঁজ ডায়েরি করেন তার বাবা বিকাশ ওয়ালকর। ঘটনার তদন্তে নেমেই পর্দাফাঁস করে পুলিশ। শ্রদ্ধাকে খুনের পর তার দেহ ৩৫ টুকরো করেন আফতাব। এই নৃশংস হত্যার ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই শোরগোল পড়ে যায়। ১২ নভেম্বর গ্রেপ্তার করা হয় আফতাবকে।

দিল্লির ছতরপুরে যে ভাড়া বাড়িতে থাকতেন শ্রদ্ধা এবং আফতাব, গত বছরের ১৮ মে সেখানেই খুন করা হয় শ্রদ্ধাকে। চার্জশিটে উল্লেখ করা হয়েছে, শ্রদ্ধাকে জাপটে ধরে প্রথমে মেঝেতে ফেলে দেন আফতাব। শ্রদ্ধার বুকের উপর চড়ে বসেন তিনি। তার পর দু’হাত দিয়ে শ্রদ্ধার গলা চেপে ধরেন। মৃত্যু নিশ্চিত হওয়ার পর শ্রদ্ধার দেহ শৌচাগারে লুকিয়ে রাখেন আফতাব। সূত্র: আনন্দবাজার।