ঢাকা ০৪:১৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

শাহজাদপুরে সনাতনী পরিবারের ওপরে হামলার ঘটনায় গ্রেফতার -১

স্টাফ রিপোর্টার
  • আপডেট সময় : ০৪:২৮:৫৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ১১৮১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার পোতাজিয়া ইউনিয়নের পোতাজিয়া মধ্যপাড়া গ্রামে শিশুদের খেলাকে কেন্দ্র করে এক অসহায় সনাতনী পরিবারের ওপর আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যানের আপন ভাতিজা কর্তৃক মারপিট করে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীসহ ৫ জনকে পিটিয়ে জখম করেছে । আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে । থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ ১ জনকে আটক করেছে ।

অভিযোগে জানা যায়, গত শুক্রবার দুপুরে উপজেলার পোতাজিয়া মধ্যপাড়া গ্রামের মোরেশেদ আলী ভোলা, মানিকসহ তারা বাড়িতে ঢুকে হাতুঁড়ি দিয়ে দিনেশ মালাকারের স্ত্রী লিপি রানী দাশ (৪২) মেয়ে শান্তনা রানী দাস (২২), রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী অন্তরা রানী দাস (২০), দিশা দাস (১২)কে বেদম মারপিট এবং শ্লীলতাহানীর চেষ্টা চালায় এবং শরীরের আপত্তিকর স্থানে হাত দেয় এবং তাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে কানের রিং ও মালা ছিনিয়ে নেয় । এদিন বিকেলে তাদেরকে বিকেলে পোতাজিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ।

আহততের বাবা ভ্যান চালক দেনেশ দাস শনিবার সাংবাদিকদের জানান, চেয়ারম্যান হাজী আলমগীর জাহান এর ভাতিজা মূর্শিদ আলী গংদের সাথে পূর্বে বাড়ি নিয়ে তাদের সাথে বিরোধ চলে আসছে।  সেই বাড়ি নিয়ে তারা প্রতিনিয়ত আমাদের পরিবারকে হুমকি প্রদর্শন করে আসছে । সামান্য ঘটনাকে কেন্দ্র করে তারা আমার পরিবারের ওপর হামলা করে । হামলায় রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শান্তনা ও সরকারী কলেজের শিক্ষার্থী অন্তরা দাসের ডান হাত জখম হওয়ায় তারা পরীক্ষা দিতে পারবে কি না, তা নিয়ে অনিশ্চয়তার সৃষ্টি হয়েছে । এমন জঘন্য হামলায় গোটা ইউনিয়নবাসী ক্ষোভে বিক্ষোভে ফেটে পড়ছে ।

স্থানীয় এলাকাবাসি অভিযোগ, তারা এলাকায় সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে । শনিবার সকালে থানায় আহতের বাবা দেনেশ দাস বাদি হয়ে মূর্শিদ আলী, গোলাম হায়দার, মানিক হোসেন, রতন আলী ও কাফি হোসেনকে নামীয় আসামীসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে করে থানায় মামলা দায়ের করে ।

এ ঘটনায় থানায় অফিসার ইনচার্জ খায়রুল বাশার জানান, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ একই পরিবারের ৫ জনকে বেদম মারপিট করে সোনার গহনা ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনায় মেয়ের বাবা দেনেশ দাস ৫ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছে ।

এ ঘটনায় শনিবার সকালে ঘটনার ২ নং আসামী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক গোলাম হায়দারকে গ্রেফতার করা হয়েছে । ওসি ঘটনাস্থলও পরিদর্শন করেন ।

এদিকে রাতে উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অসীম কুমার সাহা বাণী,  পৌর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি রতন বসাক ও পৌর পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদক এবং বাংলা খবর বিডি ডট কমের প্রকাশক মানিক সরকার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। সেই সাথে এ ধরনের হামলার তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করে অন্যান্য আসামীদেরও দ্রুত আইনের আওতায় আনার দাবী জানান।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

শাহজাদপুরে সনাতনী পরিবারের ওপরে হামলার ঘটনায় গ্রেফতার -১

আপডেট সময় : ০৪:২৮:৫৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার পোতাজিয়া ইউনিয়নের পোতাজিয়া মধ্যপাড়া গ্রামে শিশুদের খেলাকে কেন্দ্র করে এক অসহায় সনাতনী পরিবারের ওপর আওয়ামী লীগ নেতা ও ইউপি চেয়ারম্যানের আপন ভাতিজা কর্তৃক মারপিট করে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীসহ ৫ জনকে পিটিয়ে জখম করেছে । আহতদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে । থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। পুলিশ ১ জনকে আটক করেছে ।

অভিযোগে জানা যায়, গত শুক্রবার দুপুরে উপজেলার পোতাজিয়া মধ্যপাড়া গ্রামের মোরেশেদ আলী ভোলা, মানিকসহ তারা বাড়িতে ঢুকে হাতুঁড়ি দিয়ে দিনেশ মালাকারের স্ত্রী লিপি রানী দাশ (৪২) মেয়ে শান্তনা রানী দাস (২২), রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী অন্তরা রানী দাস (২০), দিশা দাস (১২)কে বেদম মারপিট এবং শ্লীলতাহানীর চেষ্টা চালায় এবং শরীরের আপত্তিকর স্থানে হাত দেয় এবং তাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করে কানের রিং ও মালা ছিনিয়ে নেয় । এদিন বিকেলে তাদেরকে বিকেলে পোতাজিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ।

আহততের বাবা ভ্যান চালক দেনেশ দাস শনিবার সাংবাদিকদের জানান, চেয়ারম্যান হাজী আলমগীর জাহান এর ভাতিজা মূর্শিদ আলী গংদের সাথে পূর্বে বাড়ি নিয়ে তাদের সাথে বিরোধ চলে আসছে।  সেই বাড়ি নিয়ে তারা প্রতিনিয়ত আমাদের পরিবারকে হুমকি প্রদর্শন করে আসছে । সামান্য ঘটনাকে কেন্দ্র করে তারা আমার পরিবারের ওপর হামলা করে । হামলায় রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শান্তনা ও সরকারী কলেজের শিক্ষার্থী অন্তরা দাসের ডান হাত জখম হওয়ায় তারা পরীক্ষা দিতে পারবে কি না, তা নিয়ে অনিশ্চয়তার সৃষ্টি হয়েছে । এমন জঘন্য হামলায় গোটা ইউনিয়নবাসী ক্ষোভে বিক্ষোভে ফেটে পড়ছে ।

স্থানীয় এলাকাবাসি অভিযোগ, তারা এলাকায় সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছে । শনিবার সকালে থানায় আহতের বাবা দেনেশ দাস বাদি হয়ে মূর্শিদ আলী, গোলাম হায়দার, মানিক হোসেন, রতন আলী ও কাফি হোসেনকে নামীয় আসামীসহ অজ্ঞাতনামা আরও ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে করে থানায় মামলা দায়ের করে ।

এ ঘটনায় থানায় অফিসার ইনচার্জ খায়রুল বাশার জানান, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ একই পরিবারের ৫ জনকে বেদম মারপিট করে সোনার গহনা ছিনিয়ে নেয়ার ঘটনায় মেয়ের বাবা দেনেশ দাস ৫ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছে ।

এ ঘটনায় শনিবার সকালে ঘটনার ২ নং আসামী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক গোলাম হায়দারকে গ্রেফতার করা হয়েছে । ওসি ঘটনাস্থলও পরিদর্শন করেন ।

এদিকে রাতে উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অসীম কুমার সাহা বাণী,  পৌর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি রতন বসাক ও পৌর পুজা উদযাপন পরিষদের সাধারন সম্পাদক এবং বাংলা খবর বিডি ডট কমের প্রকাশক মানিক সরকার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। সেই সাথে এ ধরনের হামলার তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করে অন্যান্য আসামীদেরও দ্রুত আইনের আওতায় আনার দাবী জানান।