ঢাকা ১০:২৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

লালমোহনে রেমেলে এর ক্ষতিগ্রস্ত স্থান পরিদর্শন ও শুকনো খাবার বিতরণ করেন ইউএনও

মোঃ জহিরুল হক, ভোলা প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৪:৫৫:৪৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪
  • / ৪৪৮ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ভোলার লালমোহন উপজেলায় ঘূর্ণিঝড় রিমেলে ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন ও ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে শুকনো খাবার বিতরণ করেন লালমোহন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ তৌহিদুল ইসলাম। গতকাল সকাল ১০ টা থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলার বদরপুর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড, ফরাজগঞ্জ ১, ২,৩ নং ওয়ার্ড সহ সাতানী, গাইমারা, পেশকার হাটসহ বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন করেন এবং  জোয়ারে ক্ষতিগ্রস্ত সাকো ও পানিবন্দী এলাকায় গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সাথে আলাপ করেন এবং তাদের মাঝে শুকনো খাবার বিতরণ করেন।

ইউএনও মোঃ তৌহিদুল ইসলাম জানান ঘূর্ণিঝড় রেমেলে লালমোহন উপজেলায় অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। জোয়ারে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় এ ক্ষতি হয়েছে। পানি প্রবাহের কারনে  বিশেষ করে মৎস খামারী, কৃষক, কিছু বাড়ি ঘড়, রাস্তার উপরের পিচ সহ মাটি সরে গিয়ে এসব রাস্তার ক্ষতি হয়েছে। কিছু এলাকার রাস্তা এত ক্ষতি হয়েছে যে তা মেরামত না করা পর্যন্ত ঐসব এলাকায় মানুষের চলাচল করা অসম্ভব।

তিনি নিজেও বিভিন্ন রাস্তায় গিয়ে ফিরে অন্য রাস্তায় যেতে হয়েছে বলে জানান। ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিয়ে বলেন মৎস অফিস, কৃষি অফিস, ইন্জিনিয়ারিং অফিস, ত্রাণ অফিস সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে  ক্ষয়ক্ষতির তালিকা করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে তাদের সঠিক তালিকা পাওয়া গেলে সঠিক পরিমান জানা যাবে।

এ বিষয়ে সঠিক তালিকা নিরুপনের জন্য আজ বিকেলে সকল ইউপি চেয়ারম্যানদের নিয়ে আলোচনার জন্য মিটিং করবেন বলে জানান তিনি। ইউএনও  জানান স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন মহোদয়ের  সাথে আলোচনা করে পরবর্তী ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।পরিদর্শন কালে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সোহাগ ঘোষ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে ফরাজগঞ্জ ইউনিয়নের জাফর হাওলাদার জানান সাতানী বাজার এলাকার বেরী বাধের বাহিরের সাথে সংযোগের একমাত্র রাস্তাটি পানির স্রোতে ভেসে গেছে যার ফলে বেরী বাধের বাহিরের কয়েকশত পরিবার বিছিন্ন হয়ে পরেছে। কোথাও যোগাযোগ করা যাচ্ছে না। ইউএনও সাহেব এলাকা দেখে গেছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এর সাথে আলোচনা করে রাস্তার কাজ দ্রুত মেরামত করার আশ্বাস দিয়েছেন।বদরপুর ৮ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মিজানুর রহমান জানান তার এলাকায় দীর্ঘ  সাঁকোটি জোয়ারের পানিতে ভেসে গিয়ে বিচ্ছিন্ন হয়ে  এলাকায় মানুষের যোগাযোগের সমস্যা হচ্ছে। তার এলাকায় অনেক বাড়ীঘড় পরে গিয়ে অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

লডর্হাডিঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কাশেম জানান তার এলাকায় বেরী বাধ এলাকায় অনেক ঘড়বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, মাছের ঘের ভেসে গিয়ে অনেক ক্ষতি হয়েছে। ধলীগৌড়নগড়, রমাগঞ্জ,কালমা, পশ্চিম চরউমেদ ইউনিয়ন সহ বিভিস্থানে অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা যায়।

উল্লেখ, ঘূর্ণিঝড় রিমেলে ঘড় চাপা পরে পশ্চিম চরউমেদ ইউনিয়ন ৭ নং ওয়ার্ডে মনেজা খাতুন (৫০) নামে একজন নিহত হয়।তার পরিবারকে সরকারি ভাবে আর্থিক সাহায্য দেয়া হয়েছে।

 

বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

লালমোহনে রেমেলে এর ক্ষতিগ্রস্ত স্থান পরিদর্শন ও শুকনো খাবার বিতরণ করেন ইউএনও

আপডেট সময় : ০৪:৫৫:৪৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪

ভোলার লালমোহন উপজেলায় ঘূর্ণিঝড় রিমেলে ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন ও ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে শুকনো খাবার বিতরণ করেন লালমোহন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ তৌহিদুল ইসলাম। গতকাল সকাল ১০ টা থেকে দুপুর পর্যন্ত উপজেলার বদরপুর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ড, ফরাজগঞ্জ ১, ২,৩ নং ওয়ার্ড সহ সাতানী, গাইমারা, পেশকার হাটসহ বিভিন্ন স্থান পরিদর্শন করেন এবং  জোয়ারে ক্ষতিগ্রস্ত সাকো ও পানিবন্দী এলাকায় গিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের সাথে আলাপ করেন এবং তাদের মাঝে শুকনো খাবার বিতরণ করেন।

ইউএনও মোঃ তৌহিদুল ইসলাম জানান ঘূর্ণিঝড় রেমেলে লালমোহন উপজেলায় অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। জোয়ারে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় এ ক্ষতি হয়েছে। পানি প্রবাহের কারনে  বিশেষ করে মৎস খামারী, কৃষক, কিছু বাড়ি ঘড়, রাস্তার উপরের পিচ সহ মাটি সরে গিয়ে এসব রাস্তার ক্ষতি হয়েছে। কিছু এলাকার রাস্তা এত ক্ষতি হয়েছে যে তা মেরামত না করা পর্যন্ত ঐসব এলাকায় মানুষের চলাচল করা অসম্ভব।

তিনি নিজেও বিভিন্ন রাস্তায় গিয়ে ফিরে অন্য রাস্তায় যেতে হয়েছে বলে জানান। ক্ষয়ক্ষতির পরিমান নিয়ে বলেন মৎস অফিস, কৃষি অফিস, ইন্জিনিয়ারিং অফিস, ত্রাণ অফিস সহ সংশ্লিষ্ট সকলকে  ক্ষয়ক্ষতির তালিকা করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে তাদের সঠিক তালিকা পাওয়া গেলে সঠিক পরিমান জানা যাবে।

এ বিষয়ে সঠিক তালিকা নিরুপনের জন্য আজ বিকেলে সকল ইউপি চেয়ারম্যানদের নিয়ে আলোচনার জন্য মিটিং করবেন বলে জানান তিনি। ইউএনও  জানান স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন মহোদয়ের  সাথে আলোচনা করে পরবর্তী ব্যাবস্থা গ্রহন করা হবে।পরিদর্শন কালে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সোহাগ ঘোষ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে ফরাজগঞ্জ ইউনিয়নের জাফর হাওলাদার জানান সাতানী বাজার এলাকার বেরী বাধের বাহিরের সাথে সংযোগের একমাত্র রাস্তাটি পানির স্রোতে ভেসে গেছে যার ফলে বেরী বাধের বাহিরের কয়েকশত পরিবার বিছিন্ন হয়ে পরেছে। কোথাও যোগাযোগ করা যাচ্ছে না। ইউএনও সাহেব এলাকা দেখে গেছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন এর সাথে আলোচনা করে রাস্তার কাজ দ্রুত মেরামত করার আশ্বাস দিয়েছেন।বদরপুর ৮ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মিজানুর রহমান জানান তার এলাকায় দীর্ঘ  সাঁকোটি জোয়ারের পানিতে ভেসে গিয়ে বিচ্ছিন্ন হয়ে  এলাকায় মানুষের যোগাযোগের সমস্যা হচ্ছে। তার এলাকায় অনেক বাড়ীঘড় পরে গিয়ে অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

লডর্হাডিঞ্জ ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কাশেম জানান তার এলাকায় বেরী বাধ এলাকায় অনেক ঘড়বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, মাছের ঘের ভেসে গিয়ে অনেক ক্ষতি হয়েছে। ধলীগৌড়নগড়, রমাগঞ্জ,কালমা, পশ্চিম চরউমেদ ইউনিয়ন সহ বিভিস্থানে অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানা যায়।

উল্লেখ, ঘূর্ণিঝড় রিমেলে ঘড় চাপা পরে পশ্চিম চরউমেদ ইউনিয়ন ৭ নং ওয়ার্ডে মনেজা খাতুন (৫০) নামে একজন নিহত হয়।তার পরিবারকে সরকারি ভাবে আর্থিক সাহায্য দেয়া হয়েছে।

 

বাখ//আর