ঢাকা ১১:৩৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

রায়গঞ্জের কৃষি উপসহকারী কর্মকর্তারা এখন কৃষকের মধ্যমণি 

 রায়গঞ্জ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ১১:৪৮:০৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর ২০২৩
  • / ৫৩৩ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

উপযুক্ত কলা কৌশল প্রয়োগ করে সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জে উপসহকারী কর্মকর্তারা নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে প্রান্তিক কৃষকদের জন্য, নিত্য নতুন চিন্তা ধারার মাধ্যমে কৃষকের মুখে হাসি ফোটানোর লক্ষ্যে দিনরাত উপসহকারী কর্মকর্তারা মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের ধানের বিভিন্ন প্রকার রোগ বালাইয়ের জন্য সচেতনতা মূলক তথ্য দিয়ে লিফলেট বিতরণ ও ইঁদুর নিধেনে সফলভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

এছাড়া বাড়ি বাড়ি গিয়ে রাতের বেলায় আলো দিয়ে কিভাবে রোগ নির্ণয় করা যায় সেই পরামর্শ দিচ্ছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার দিকনির্দেশনায় কৃষি উন্নয়নে ব্যাপকভাবে যেন কৃষক সেবা পায় সেই লক্ষ্যে ইতি পূর্ব থেকেই নির্দেশনা দেওয়া আছে। উৎসক কৃষকদের মাঝে ইতিমধ্যে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে , মাঠ পর্যায়ে উপসহকারী কর্মকর্তা আলামিন ও শেখ সাদী ইতিমধ্যে কৃষকদের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে। সেবার মান নিয়ে এলাকায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, মানুষ মানুষের জন্য, কৃষকের সাথে আমরা গভীরভাবে মিশতে চাই ,তাদের মাঝে আধুনিকতার উন্নত প্রযুক্তি নির্ভর পরামর্শ দিয়ে মাঠ পর্যায়ে সহযোগিতা করছি।

কৃষিকার্য বা কৃষি (Agriculture) মানবজাতির আদিম পেশা হিসেবে চিহ্নিত। মানুষের জীবনধারনের জন্য শষ্য উৎপাদন কিংবা গৃহপালিত পশু রক্ষণাবেক্ষনের জন্যে যথোচিত খাদ্য এবং প্রয়োজনীয় কাঁচামাল উৎপাদন ও সরবরাহসহ বহুবিধ উদ্দশ্যে প্রতিপালনের লক্ষ্যে কৃষিকার্য নির্বাহ করা হয়। যিনি কৃষির সাথে সংশ্লিষ্ট তিনিই কৃষক।

কৃষিকার্য প্রচলনের ইতিহাস হাজার হাজার বছরের পুরনো। আধুনিক পর্যায়ে এসে কৃষির উন্নয়ন ও উত্তরণ বহুমূখী জলবায়ু, সংস্কৃতি এবং উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের উপর বহুলাংশে নির্ভরশীল। সবধরনের কৃষিকাজই উপযুক্ত কলা-কৌশল প্রয়োগ ও ভূমির উপযুক্ততা নিরূপণ পূর্বক ব্যবহার উপযোগী ফসল বপনের উপর নির্ভর করে। প্রয়োজনে সময়ে সময়ে ফসল বৃদ্ধিকল্পে প্রয়োজনীয় সেচও প্রয়োগ করতে হয়।

ফসল বৃদ্ধিকল্পে আধুনিক চাষাবাদে কীটনাশক, উদ্ভিদের পরাগায়ণ, সার প্রয়োগ এবং প্রযুক্তির ক্রমবর্ধমান উন্নয়নের মাধ্যমে ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটানোর প্রাণ পণ প্রয়াস চালানো হচ্ছে। এরফলে, পরিবেশের ভারসাম্যহীনতাসহ জীববৈচিত্র ধ্বংসাযজ্ঞ দ্রুত হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং মানব স্বাস্থের উপর নেতিবাচক ও বিরূপ প্রভাব ফেলেছে, এগুলো থেকে উত্তরণের জন্য কৃষকদেরকে আমাদের পক্ষ থেকে টেকসই কৃষি উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখব ।

বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

রায়গঞ্জের কৃষি উপসহকারী কর্মকর্তারা এখন কৃষকের মধ্যমণি 

আপডেট সময় : ১১:৪৮:০৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর ২০২৩

উপযুক্ত কলা কৌশল প্রয়োগ করে সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জে উপসহকারী কর্মকর্তারা নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে প্রান্তিক কৃষকদের জন্য, নিত্য নতুন চিন্তা ধারার মাধ্যমে কৃষকের মুখে হাসি ফোটানোর লক্ষ্যে দিনরাত উপসহকারী কর্মকর্তারা মাঠ পর্যায়ে কৃষকদের ধানের বিভিন্ন প্রকার রোগ বালাইয়ের জন্য সচেতনতা মূলক তথ্য দিয়ে লিফলেট বিতরণ ও ইঁদুর নিধেনে সফলভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

এছাড়া বাড়ি বাড়ি গিয়ে রাতের বেলায় আলো দিয়ে কিভাবে রোগ নির্ণয় করা যায় সেই পরামর্শ দিচ্ছে। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার দিকনির্দেশনায় কৃষি উন্নয়নে ব্যাপকভাবে যেন কৃষক সেবা পায় সেই লক্ষ্যে ইতি পূর্ব থেকেই নির্দেশনা দেওয়া আছে। উৎসক কৃষকদের মাঝে ইতিমধ্যে আলোড়ন সৃষ্টি করেছে , মাঠ পর্যায়ে উপসহকারী কর্মকর্তা আলামিন ও শেখ সাদী ইতিমধ্যে কৃষকদের হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছে। সেবার মান নিয়ে এলাকায় ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, মানুষ মানুষের জন্য, কৃষকের সাথে আমরা গভীরভাবে মিশতে চাই ,তাদের মাঝে আধুনিকতার উন্নত প্রযুক্তি নির্ভর পরামর্শ দিয়ে মাঠ পর্যায়ে সহযোগিতা করছি।

কৃষিকার্য বা কৃষি (Agriculture) মানবজাতির আদিম পেশা হিসেবে চিহ্নিত। মানুষের জীবনধারনের জন্য শষ্য উৎপাদন কিংবা গৃহপালিত পশু রক্ষণাবেক্ষনের জন্যে যথোচিত খাদ্য এবং প্রয়োজনীয় কাঁচামাল উৎপাদন ও সরবরাহসহ বহুবিধ উদ্দশ্যে প্রতিপালনের লক্ষ্যে কৃষিকার্য নির্বাহ করা হয়। যিনি কৃষির সাথে সংশ্লিষ্ট তিনিই কৃষক।

কৃষিকার্য প্রচলনের ইতিহাস হাজার হাজার বছরের পুরনো। আধুনিক পর্যায়ে এসে কৃষির উন্নয়ন ও উত্তরণ বহুমূখী জলবায়ু, সংস্কৃতি এবং উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহারের উপর বহুলাংশে নির্ভরশীল। সবধরনের কৃষিকাজই উপযুক্ত কলা-কৌশল প্রয়োগ ও ভূমির উপযুক্ততা নিরূপণ পূর্বক ব্যবহার উপযোগী ফসল বপনের উপর নির্ভর করে। প্রয়োজনে সময়ে সময়ে ফসল বৃদ্ধিকল্পে প্রয়োজনীয় সেচও প্রয়োগ করতে হয়।

ফসল বৃদ্ধিকল্পে আধুনিক চাষাবাদে কীটনাশক, উদ্ভিদের পরাগায়ণ, সার প্রয়োগ এবং প্রযুক্তির ক্রমবর্ধমান উন্নয়নের মাধ্যমে ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটানোর প্রাণ পণ প্রয়াস চালানো হচ্ছে। এরফলে, পরিবেশের ভারসাম্যহীনতাসহ জীববৈচিত্র ধ্বংসাযজ্ঞ দ্রুত হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং মানব স্বাস্থের উপর নেতিবাচক ও বিরূপ প্রভাব ফেলেছে, এগুলো থেকে উত্তরণের জন্য কৃষকদেরকে আমাদের পক্ষ থেকে টেকসই কৃষি উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখব ।

বাখ//আর