ঢাকা ০৯:৫৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

রাতের আঁধারে রাস্তা উধাও বিপাকে হাজারো সনাতন ধর্মাবলম্বী

খাদেমুল ইসলাম, দিনাজপুর প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৩:২৮:৫৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৬ অক্টোবর ২০২৩
  • / ৫৩৪ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
দিনাজপুরের বিরল উপজেলার ১০ নম্বর রানী পুকুর ইউনিয়নের মির্জাপুর পূর্ব হিন্দু গোয়ালপাড়া এলাকায় রাতের আধারে চলাচলের জন্য রাস্তা কেটে দিয়েছে একই এলাকার জালাল উদ্দিনের পুত্র ওবায়দুর। হঠাৎ করে চলাচলের জন্য এই রাস্তাটি কেটে দেওয়ায় চরম বিপক্ষে পড়েছে প্রায় দেড় হাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী মানুষ। গেল রাতে এই ঘটনা ঘটে।
ভুক্তভোগী কালিদাসের পুত্র বিকালু বর্মন বলেন, আমরা দীর্ঘ ২০ বছর ধরে এই রাস্তা ব্যবহার করে আসছি। কেউ কখনো কোনো আপত্তি করেনি। কিন্তু বর্তমানে রাস্তাটি কেটে দেওয়ায় মির্জাপুর পূর্ব হিন্দু গোয়ালপাড়া এলাকার দেড় হাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী মানুষ চরম বিপাকে পড়েছে।
ভুক্তভোগী পল্লী চিকিৎসক গণি রাম রায়ের পুত্র শ্রী যতীন্দ্রনাথ রায় বলেন, কোনদিন কেউ এই রাস্তা দিয়ে চলাচলে আমাদের বাধা দেয়নি। আমরা নিঃসংকোচে এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করছিলাম কিন্তু  হঠাৎ করেই রাস্তা কেটে দেওয়ায হয়েছে এতে এই রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী মানুষেরা চরম বিপাকে পড়েছে।
ওই এলাকার সংরক্ষিত আসনের ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য জেসমিন আরা বলেন, আমি বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যান কে জানিয়েছি। আমি এবং চেয়ারম্যান দুজনেই স্থানীয়ভাবে মীমাংসার চেষ্টা করেছি কিন্তু জালাল উদ্দিনের পুত্র ওবায়দুর কারো কথায় কর্ণপাত করছে না। রাস্তাটি কেটে দেওয়ার ফলে সনাতন ধর্মালম্বী অধ্যুষিত পূর্ব হিন্দু গোয়ালপাড়া এলাকার মানুষ চরম অসুবিধায় পড়েছে।
বিষয়টি নিয়ে আজ ১৬ই অক্টোবর বিরল উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে ওই এলাকার বাবু লাল রায় এর পুত্র বিশ্বজিৎ রায় স্বাক্ষরিত একটি স্মারকলিপি দিতে আসে দেড় হাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী মানুষ। এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার আফছানা কাওছার অফিসে না থাকায় তার পক্ষে স্মারকলিপি গ্রহণ করেন উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ আনোয়ার হোসেন।
এ সময় তিনি আগত সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উদ্দেশ্যে বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে মিটিং এ ব্যস্ত থাকায় তার পক্ষে আমি স্মারকলিপি গ্রহণ করলাম। তিনি আসলে বিষয়টি নিয়ে আমরা আলোচনা করব।
উল্লেখ্য যে সনাতন ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব সার্বজনীন দুর্গোৎসব সামনে। দ্রুত এই রাস্তা দিয়ে চলাচলের ব্যবস্থা করে না দিতে পারলে আসন্ন এই দুর্গোৎসব তাদের কাছে ফিকে হয়ে যাবে। তাই অতি দ্রুত এই রাস্তা দিয়ে চলাচলের ব্যবস্থা করে দিতে স্থানীয় প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান তারা।
বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

রাতের আঁধারে রাস্তা উধাও বিপাকে হাজারো সনাতন ধর্মাবলম্বী

আপডেট সময় : ০৩:২৮:৫৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৬ অক্টোবর ২০২৩
দিনাজপুরের বিরল উপজেলার ১০ নম্বর রানী পুকুর ইউনিয়নের মির্জাপুর পূর্ব হিন্দু গোয়ালপাড়া এলাকায় রাতের আধারে চলাচলের জন্য রাস্তা কেটে দিয়েছে একই এলাকার জালাল উদ্দিনের পুত্র ওবায়দুর। হঠাৎ করে চলাচলের জন্য এই রাস্তাটি কেটে দেওয়ায় চরম বিপক্ষে পড়েছে প্রায় দেড় হাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী মানুষ। গেল রাতে এই ঘটনা ঘটে।
ভুক্তভোগী কালিদাসের পুত্র বিকালু বর্মন বলেন, আমরা দীর্ঘ ২০ বছর ধরে এই রাস্তা ব্যবহার করে আসছি। কেউ কখনো কোনো আপত্তি করেনি। কিন্তু বর্তমানে রাস্তাটি কেটে দেওয়ায় মির্জাপুর পূর্ব হিন্দু গোয়ালপাড়া এলাকার দেড় হাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী মানুষ চরম বিপাকে পড়েছে।
ভুক্তভোগী পল্লী চিকিৎসক গণি রাম রায়ের পুত্র শ্রী যতীন্দ্রনাথ রায় বলেন, কোনদিন কেউ এই রাস্তা দিয়ে চলাচলে আমাদের বাধা দেয়নি। আমরা নিঃসংকোচে এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করছিলাম কিন্তু  হঠাৎ করেই রাস্তা কেটে দেওয়ায হয়েছে এতে এই রাস্তা দিয়ে চলাচলকারী মানুষেরা চরম বিপাকে পড়েছে।
ওই এলাকার সংরক্ষিত আসনের ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য জেসমিন আরা বলেন, আমি বিষয়টি স্থানীয় চেয়ারম্যান কে জানিয়েছি। আমি এবং চেয়ারম্যান দুজনেই স্থানীয়ভাবে মীমাংসার চেষ্টা করেছি কিন্তু জালাল উদ্দিনের পুত্র ওবায়দুর কারো কথায় কর্ণপাত করছে না। রাস্তাটি কেটে দেওয়ার ফলে সনাতন ধর্মালম্বী অধ্যুষিত পূর্ব হিন্দু গোয়ালপাড়া এলাকার মানুষ চরম অসুবিধায় পড়েছে।
বিষয়টি নিয়ে আজ ১৬ই অক্টোবর বিরল উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে ওই এলাকার বাবু লাল রায় এর পুত্র বিশ্বজিৎ রায় স্বাক্ষরিত একটি স্মারকলিপি দিতে আসে দেড় হাজার সনাতন ধর্মাবলম্বী মানুষ। এ সময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার আফছানা কাওছার অফিসে না থাকায় তার পক্ষে স্মারকলিপি গ্রহণ করেন উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ আনোয়ার হোসেন।
এ সময় তিনি আগত সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উদ্দেশ্যে বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে মিটিং এ ব্যস্ত থাকায় তার পক্ষে আমি স্মারকলিপি গ্রহণ করলাম। তিনি আসলে বিষয়টি নিয়ে আমরা আলোচনা করব।
উল্লেখ্য যে সনাতন ধর্মালম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব সার্বজনীন দুর্গোৎসব সামনে। দ্রুত এই রাস্তা দিয়ে চলাচলের ব্যবস্থা করে না দিতে পারলে আসন্ন এই দুর্গোৎসব তাদের কাছে ফিকে হয়ে যাবে। তাই অতি দ্রুত এই রাস্তা দিয়ে চলাচলের ব্যবস্থা করে দিতে স্থানীয় প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান তারা।
বাখ//আর