ঢাকা ১০:১৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

রবেলকে ধরিয়ে দিলে লাখ টাকার পুরষ্কার : এমপি রাজু

সাইফুল ইসলাম রুদ্র, নরসিংদী থেকে
  • আপডেট সময় : ০১:৩৮:০৭ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪
  • / ৪৩৪ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নরসিংদীর রাযপুরা নির্বাচনী প্রচারনায গিযে হামলায নিহত ভাইস চেযারম্যান প্রার্থী সুমন মিযার জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকালে সেরাজনগর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রথম ও চরসুবুদ্ধি ইদগাহ মাঠে দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয় সুমন মিয়ার।

এর আগে দুপুরে মরদেহ মযনাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হয। পরিবারের পক্ষ থেকে এখনও মামলা না হলেও সন্দেহভাজন দুইজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার। এদিকে প্রার্থী নিহতের ঘটনায় স্থগিত করা হয়েছে এ উপজেলার সকল পদের নির্বাচন।

বৃহস্পতিবার বিকালে সেরাজনগর এমএ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী সুমন মিয়ার প্রথম জানাজা নামাজে অংশগ্রহণ করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজুসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এ সময় সুমনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার কথা জানিয়ে হত্যাকারীদের বিচার দাবী করেন দলীয় কর্মী ও স্বজনেরা। আগামী ৭২ ঘন্টার মধ্যে হামলায় অভিযুক্ত ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী আবিদ হাসান রবেলসহ জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানান সংসদ সদস্য। অন্যথায় সড়ক ও রেলপথ অবরোধের হুশিয়ারি দেন তিনি।

এ সময় এমপি রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু বলেন, গুলশানের একটি বাসায় দুইদিন বসে এই হামলার ঘটনার পূর্ব পরিকল্পনা করেছে। ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী আবিদ হাসান রবেল একটি বাজে ছেলে, সন্ত্রাসী, ভূমিদস্যু, ইয়াবা ব্যবসায়ী। তার বাবাও খুনী, আর খুনীর ছেলে খুনীই হয়। বুধবার রবেল প্রকাশ্যে বলেছিল সুমনকে ছাড়া যাবে না, যেভাবেই হউক সে (সুমন মিয়া) যেন ফিরে যেতে না পারে। আজকে কোথায় (রবেল)? লেজ গুটাইয়া পালাইসো। আমি ১ লাখ টাকার পুরস্কার ঘোষণা করলাম, যে রবেলকে ধরিয়ে দিতে পারবে। বিনা চিকিৎসায় সুমন মারা গেছে, আমরা এর বিচার চাই।

এমপি আরও বলেন, আমি ৫৩ বছর রায়পুরায় নেতৃত্ব দিচ্ছি, কোনদিন সন্ত্রাসী লালন করিনি। আমি কাউকে ভয় করি না। রায়পুরায় কোন সন্ত্রাসী মাদক ব্যবসায়ীর স্থান হবে না।

এমপি প্রশাসনকে উদেশ্য করে বলেন, আমি আজ থেকেই আন্দোলনে যেতাম। কিন্তু ৭২ ঘন্টার সময় দিলাম, যদি ৭২ ঘন্টার মধ্যে জড়িতদের ধরতে না পারেন, তাহলে জেলা উত্তাল করে দেব। আমি খবর পেয়েছি রবেল মালয়েশিয়া পালানোর চেষ্টা করছে। আমি কোনদিন প্রশাসনের বিরদ্ধে যাইনি, আপনারা দ্রুত অ্যাকশনে যান, অন্যথায় রায়পুরাকে শান্ত করতে পারবেন না।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

রবেলকে ধরিয়ে দিলে লাখ টাকার পুরষ্কার : এমপি রাজু

আপডেট সময় : ০১:৩৮:০৭ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪

নরসিংদীর রাযপুরা নির্বাচনী প্রচারনায গিযে হামলায নিহত ভাইস চেযারম্যান প্রার্থী সুমন মিযার জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকালে সেরাজনগর পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রথম ও চরসুবুদ্ধি ইদগাহ মাঠে দ্বিতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হয় সুমন মিয়ার।

এর আগে দুপুরে মরদেহ মযনাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হয। পরিবারের পক্ষ থেকে এখনও মামলা না হলেও সন্দেহভাজন দুইজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার। এদিকে প্রার্থী নিহতের ঘটনায় স্থগিত করা হয়েছে এ উপজেলার সকল পদের নির্বাচন।

বৃহস্পতিবার বিকালে সেরাজনগর এমএ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী সুমন মিয়ার প্রথম জানাজা নামাজে অংশগ্রহণ করেন স্থানীয় সংসদ সদস্য রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজুসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

এ সময় সুমনকে পরিকল্পিতভাবে হত্যার কথা জানিয়ে হত্যাকারীদের বিচার দাবী করেন দলীয় কর্মী ও স্বজনেরা। আগামী ৭২ ঘন্টার মধ্যে হামলায় অভিযুক্ত ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী আবিদ হাসান রবেলসহ জড়িতদের আইনের আওতায় আনার দাবি জানান সংসদ সদস্য। অন্যথায় সড়ক ও রেলপথ অবরোধের হুশিয়ারি দেন তিনি।

এ সময় এমপি রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু বলেন, গুলশানের একটি বাসায় দুইদিন বসে এই হামলার ঘটনার পূর্ব পরিকল্পনা করেছে। ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী আবিদ হাসান রবেল একটি বাজে ছেলে, সন্ত্রাসী, ভূমিদস্যু, ইয়াবা ব্যবসায়ী। তার বাবাও খুনী, আর খুনীর ছেলে খুনীই হয়। বুধবার রবেল প্রকাশ্যে বলেছিল সুমনকে ছাড়া যাবে না, যেভাবেই হউক সে (সুমন মিয়া) যেন ফিরে যেতে না পারে। আজকে কোথায় (রবেল)? লেজ গুটাইয়া পালাইসো। আমি ১ লাখ টাকার পুরস্কার ঘোষণা করলাম, যে রবেলকে ধরিয়ে দিতে পারবে। বিনা চিকিৎসায় সুমন মারা গেছে, আমরা এর বিচার চাই।

এমপি আরও বলেন, আমি ৫৩ বছর রায়পুরায় নেতৃত্ব দিচ্ছি, কোনদিন সন্ত্রাসী লালন করিনি। আমি কাউকে ভয় করি না। রায়পুরায় কোন সন্ত্রাসী মাদক ব্যবসায়ীর স্থান হবে না।

এমপি প্রশাসনকে উদেশ্য করে বলেন, আমি আজ থেকেই আন্দোলনে যেতাম। কিন্তু ৭২ ঘন্টার সময় দিলাম, যদি ৭২ ঘন্টার মধ্যে জড়িতদের ধরতে না পারেন, তাহলে জেলা উত্তাল করে দেব। আমি খবর পেয়েছি রবেল মালয়েশিয়া পালানোর চেষ্টা করছে। আমি কোনদিন প্রশাসনের বিরদ্ধে যাইনি, আপনারা দ্রুত অ্যাকশনে যান, অন্যথায় রায়পুরাকে শান্ত করতে পারবেন না।