ঢাকা ১১:৪১ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৯ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

মেসির স্ত্রীর সাবেক প্রেমিক এলেন প্রকাশ্যে

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:১৩:০৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ ডিসেম্বর ২০২২
  • / ৪৬৯ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

স্পোর্টস ডেস্ক : 

দীর্ঘ ৩৬ বছর পর আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ শিরোপা পুনরুদ্ধার হয়েছে লিওনেল মেসির হাত ধরে। বিশ্বজয়ের আনন্দের জোয়ারে ভাসছে মেসির পরিবার। এর মধ্যেই প্রকাশ্যে এলেন মেসির স্ত্রী আন্তোনেল্লা রোকুজ্জোর সাবেক প্রেমিক। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানালেন সম্পর্ক ভাঙাগড়ার ঘটনাটি।

ছোটবেলার বান্ধবী আন্তোনেল্লা রোকুজ্জোকে ২০১৭ সালে বিয়ে করেন মেসি। রোকুজ্জো ছাড়া অন্য কারো সঙ্গে মেসির সম্পর্কের কথা কখনো শোনা যায়নি। তাদের সম্পর্কের কথা সামনে আসে ২০০৮ সালে। ২০১২ সালে তাদের প্রথম সন্তানের জন্ম হয়। প্রথম সন্তান থিয়াগোর জন্মের তিন বছর পর দ্বিতীয় সন্তানের জন্ম দেন আন্তোনেল্লা। তার নাম মাতেয়োর। আর ২০১৮ সালে জন্ম নেয় মেসিদের কনিষ্ঠ সন্তান সিরো। ফুটবলের বাইরে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে ভালোবাসেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক।

কিন্তু অন্য কারও সঙ্গে মেসির সম্পর্কে জড়ানোর কথা শোনা না গেলেও সম্পর্কে জাড়িয়েছিলেন রোকুজ্জো। ওই যে কথায় আছে, দৃষ্টির বাইরে কেউ দীর্ঘদিন থাকলে তিনি মানুষের স্মৃতিতেও ধূসর হতে থাকেন। সেটাই ঘটেছিল মেসির ক্ষেত্রে।

মেসির সঙ্গে রোকুজ্জোর সম্পর্ক ছোটবেলা থেকেই। কিন্তু মেসি ছোট বয়সেই আর্জেন্টিনার রোজারিও গ্রাম ছেড়ে বার্সেলোনার অ্যাকাডেমিতে যোগ দিতে চলে যান স্পেনে। ফলে আন্তোনেল্লাও দীর্ঘদিন একা হয়ে যান। ফুটবলের জন্য আর্জেন্টিনায় খুব একটা আসতেও পারতেন না মেসি। যোগাযোগ থাকলেও দীর্ঘ দিন দেখা না হওয়ায় মেসির প্রতি আকর্ষণ কমে যায় আন্তোনেল্লার। আর সেইসময় এক স্বদেশি যুবকের সঙ্গে পরিচয় হয় আন্তোনেল্লার। তারপর সেই থেকে প্রেমও চলতে থাকে।

ঘটনাটি ২০০৭ সালের। মেসির কানে এ খবর পৌঁছালে তিনি চিঠিও লেখেন ছোট বেলার বন্ধু তথা আন্তোনেল্লার ভাই লুকা স্কাগলিয়াকে। লুকার মাধ্যমেই আন্তোনেল্লার সঙ্গে পরিচয় হয়েছিল মেসির। আর অন্যজনের সঙ্গে প্রেমের বিষয়টিও জানতে পারেন তার মাধ্যমেই। চিঠিতে মেসি লেখেন, এই ছেলেটা কে? আমরা তো কয়েকদিন পর থেকেই দু’জনে ভালো বন্ধু হয়ে যাব। তারপরেও…।

পরে পরিস্থিতি অন্য দিকে যাচ্ছে বুঝে, ছুটি নিয়ে কয়েক দিনের জন্য আর্জেন্টিনায় ফেরেন মেসি। আন্তোনেল্লার সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি সমাধান করেই স্পেনে ফিরেছিলেন আর্জেন্টাইন মহাতারকা।

এবার সেই যুবক নতুন করে আলোচনায় উঠে এসেছেন আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি আন্তোনেল্লার সঙ্গে ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, আমাদের মধ্যে সম্পর্ক থাকলেও আন্তোনেল্লার ওপর কোনো রাগ নেই। সে মেসির জন্য আমাকে ছেড়ে দিয়েছে। আর সেটি সে ঠিকই করেছে। একদিন আমার কাছে এসে একটি ফোন ব্যাগ থেকে বের করে বলেছিল, এটা মেসি তাকে দিয়েছে। আমি বুঝে যাই, তাদের দু’জনের মধ্যে পুরনো সম্পর্ক আবার জোড়া লেগেছে। তাই আমিও দূরে চলে যাই।

আর্জেন্টিনার একটি সংবাদপত্রে ২০১০ সালে আন্তোনেল্লার সম্পর্ক নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। ওই যুবকই আন্তোনেল্লার সঙ্গে তার সম্পর্কের কথা প্রকাশ করেছিলেন। সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ায় কষ্ট পেলেও মেনে নিয়েছিলেন। ততদিনে অবশ্য মেসির সঙ্গে পাকাপাকিভাবে থাকতে শুরু করেন আন্তোনেল্লা। সেই যুবক অবশ্য নিজের নাম গোপন রেখেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

মেসির স্ত্রীর সাবেক প্রেমিক এলেন প্রকাশ্যে

আপডেট সময় : ০৩:১৩:০৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ ডিসেম্বর ২০২২

স্পোর্টস ডেস্ক : 

দীর্ঘ ৩৬ বছর পর আর্জেন্টিনার বিশ্বকাপ শিরোপা পুনরুদ্ধার হয়েছে লিওনেল মেসির হাত ধরে। বিশ্বজয়ের আনন্দের জোয়ারে ভাসছে মেসির পরিবার। এর মধ্যেই প্রকাশ্যে এলেন মেসির স্ত্রী আন্তোনেল্লা রোকুজ্জোর সাবেক প্রেমিক। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানালেন সম্পর্ক ভাঙাগড়ার ঘটনাটি।

ছোটবেলার বান্ধবী আন্তোনেল্লা রোকুজ্জোকে ২০১৭ সালে বিয়ে করেন মেসি। রোকুজ্জো ছাড়া অন্য কারো সঙ্গে মেসির সম্পর্কের কথা কখনো শোনা যায়নি। তাদের সম্পর্কের কথা সামনে আসে ২০০৮ সালে। ২০১২ সালে তাদের প্রথম সন্তানের জন্ম হয়। প্রথম সন্তান থিয়াগোর জন্মের তিন বছর পর দ্বিতীয় সন্তানের জন্ম দেন আন্তোনেল্লা। তার নাম মাতেয়োর। আর ২০১৮ সালে জন্ম নেয় মেসিদের কনিষ্ঠ সন্তান সিরো। ফুটবলের বাইরে পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাতে ভালোবাসেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক।

কিন্তু অন্য কারও সঙ্গে মেসির সম্পর্কে জড়ানোর কথা শোনা না গেলেও সম্পর্কে জাড়িয়েছিলেন রোকুজ্জো। ওই যে কথায় আছে, দৃষ্টির বাইরে কেউ দীর্ঘদিন থাকলে তিনি মানুষের স্মৃতিতেও ধূসর হতে থাকেন। সেটাই ঘটেছিল মেসির ক্ষেত্রে।

মেসির সঙ্গে রোকুজ্জোর সম্পর্ক ছোটবেলা থেকেই। কিন্তু মেসি ছোট বয়সেই আর্জেন্টিনার রোজারিও গ্রাম ছেড়ে বার্সেলোনার অ্যাকাডেমিতে যোগ দিতে চলে যান স্পেনে। ফলে আন্তোনেল্লাও দীর্ঘদিন একা হয়ে যান। ফুটবলের জন্য আর্জেন্টিনায় খুব একটা আসতেও পারতেন না মেসি। যোগাযোগ থাকলেও দীর্ঘ দিন দেখা না হওয়ায় মেসির প্রতি আকর্ষণ কমে যায় আন্তোনেল্লার। আর সেইসময় এক স্বদেশি যুবকের সঙ্গে পরিচয় হয় আন্তোনেল্লার। তারপর সেই থেকে প্রেমও চলতে থাকে।

ঘটনাটি ২০০৭ সালের। মেসির কানে এ খবর পৌঁছালে তিনি চিঠিও লেখেন ছোট বেলার বন্ধু তথা আন্তোনেল্লার ভাই লুকা স্কাগলিয়াকে। লুকার মাধ্যমেই আন্তোনেল্লার সঙ্গে পরিচয় হয়েছিল মেসির। আর অন্যজনের সঙ্গে প্রেমের বিষয়টিও জানতে পারেন তার মাধ্যমেই। চিঠিতে মেসি লেখেন, এই ছেলেটা কে? আমরা তো কয়েকদিন পর থেকেই দু’জনে ভালো বন্ধু হয়ে যাব। তারপরেও…।

পরে পরিস্থিতি অন্য দিকে যাচ্ছে বুঝে, ছুটি নিয়ে কয়েক দিনের জন্য আর্জেন্টিনায় ফেরেন মেসি। আন্তোনেল্লার সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি সমাধান করেই স্পেনে ফিরেছিলেন আর্জেন্টাইন মহাতারকা।

এবার সেই যুবক নতুন করে আলোচনায় উঠে এসেছেন আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি আন্তোনেল্লার সঙ্গে ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, আমাদের মধ্যে সম্পর্ক থাকলেও আন্তোনেল্লার ওপর কোনো রাগ নেই। সে মেসির জন্য আমাকে ছেড়ে দিয়েছে। আর সেটি সে ঠিকই করেছে। একদিন আমার কাছে এসে একটি ফোন ব্যাগ থেকে বের করে বলেছিল, এটা মেসি তাকে দিয়েছে। আমি বুঝে যাই, তাদের দু’জনের মধ্যে পুরনো সম্পর্ক আবার জোড়া লেগেছে। তাই আমিও দূরে চলে যাই।

আর্জেন্টিনার একটি সংবাদপত্রে ২০১০ সালে আন্তোনেল্লার সম্পর্ক নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। ওই যুবকই আন্তোনেল্লার সঙ্গে তার সম্পর্কের কথা প্রকাশ করেছিলেন। সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ায় কষ্ট পেলেও মেনে নিয়েছিলেন। ততদিনে অবশ্য মেসির সঙ্গে পাকাপাকিভাবে থাকতে শুরু করেন আন্তোনেল্লা। সেই যুবক অবশ্য নিজের নাম গোপন রেখেছেন।