ঢাকা ১২:৫৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

মিয়ানমারে সেনাবাহিনীতে জোর করে যোগদান বন্ধের দাবি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০২:১৭:৩৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩ মার্চ ২০২৪
  • / ৪৫০ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

মিয়ানমারে সেনাবাহিনীতে জোর করে নিয়োগ বন্ধে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ৩৯৭টি সুশীল সমাজ সংগঠন। এ তথ্য জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম ইরাবতী।

সংগঠনগুলোর মধ্যে রয়েছে রোহিঙ্গা গোষ্ঠী, নারী অধিকার সংগঠন এবং ধর্মঘট কমিটিসহ অন্যান্য সুশীল সমাজ ও অ্যাক্টিভিস্ট গ্রুপগুলো।

এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সামরিক সরকারের এই সন্ত্রাসী কার্যক্রম সহিংসতাকে আরও বাড়িয়ে দেবে। আরও বলা হয়, জোর করে সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে বাধ্য করার মধ্যদিয়ে জনগণকে একে অপরের বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত করা এবং জাতিগত ও ধর্মীয় সংঘাত বাড়াতে চায় জান্তা বাহিনী।

বিবৃতিতে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীকে একটি অবৈধ ও আন্তর্জাতিক অপরাধী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কয়েক দশকের যুদ্ধাপরাধ, মানবতাবিরোধী অপরাধ এবং গণহত্যার জন্য জবাবদিহিতার আওতায় না আনা পর্যন্ত আঞ্চলিক শান্তি আসবে না বলেও দাবি করা হয়।

সংস্থাগুলো নিরাপত্তা পরিষদকে জাতিসংঘ সনদের ৭ম অধ্যায়ের অধীনে একটি বাধ্যতামূলক প্রস্তাব গ্রহণ করার আহ্বান জানিয়েছে। যা জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা এবং অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপের পথ সুগম করবে।

সংস্থাগুলো বলেছে, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের উচিত দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় দেশগুলোর সংগঠনগুলোকে সহযোগিতা করা। জোরপূর্বক নিয়োগ ও নৃশংসতা থেকে পালিয়ে যাওয়া লোকদের আইনি সুরক্ষা নিশ্চিত করারও আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাগুলো।

নিউজটি শেয়ার করুন

মিয়ানমারে সেনাবাহিনীতে জোর করে যোগদান বন্ধের দাবি

আপডেট সময় : ০২:১৭:৩৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩ মার্চ ২০২৪

মিয়ানমারে সেনাবাহিনীতে জোর করে নিয়োগ বন্ধে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে ব্যবস্থা নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন ৩৯৭টি সুশীল সমাজ সংগঠন। এ তথ্য জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম ইরাবতী।

সংগঠনগুলোর মধ্যে রয়েছে রোহিঙ্গা গোষ্ঠী, নারী অধিকার সংগঠন এবং ধর্মঘট কমিটিসহ অন্যান্য সুশীল সমাজ ও অ্যাক্টিভিস্ট গ্রুপগুলো।

এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সামরিক সরকারের এই সন্ত্রাসী কার্যক্রম সহিংসতাকে আরও বাড়িয়ে দেবে। আরও বলা হয়, জোর করে সেনাবাহিনীতে যোগ দিতে বাধ্য করার মধ্যদিয়ে জনগণকে একে অপরের বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত করা এবং জাতিগত ও ধর্মীয় সংঘাত বাড়াতে চায় জান্তা বাহিনী।

বিবৃতিতে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীকে একটি অবৈধ ও আন্তর্জাতিক অপরাধী প্রতিষ্ঠান হিসেবে কয়েক দশকের যুদ্ধাপরাধ, মানবতাবিরোধী অপরাধ এবং গণহত্যার জন্য জবাবদিহিতার আওতায় না আনা পর্যন্ত আঞ্চলিক শান্তি আসবে না বলেও দাবি করা হয়।

সংস্থাগুলো নিরাপত্তা পরিষদকে জাতিসংঘ সনদের ৭ম অধ্যায়ের অধীনে একটি বাধ্যতামূলক প্রস্তাব গ্রহণ করার আহ্বান জানিয়েছে। যা জান্তা সরকারের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা এবং অস্ত্র নিষেধাজ্ঞা আরোপের পথ সুগম করবে।

সংস্থাগুলো বলেছে, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের উচিত দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় দেশগুলোর সংগঠনগুলোকে সহযোগিতা করা। জোরপূর্বক নিয়োগ ও নৃশংসতা থেকে পালিয়ে যাওয়া লোকদের আইনি সুরক্ষা নিশ্চিত করারও আহ্বান জানিয়েছে সংস্থাগুলো।