ঢাকা ০৫:০০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেন কি আসলেই অসুস্থ?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ০৩:৩৭:২৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ জুলাই ২০২৪
  • / ৪২৩ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের শারীরিক অবস্থা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা এখন তুঙ্গে। বিশেষ করে প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী রিপাবলিকান নেতা ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে বিতর্কের পর তাঁর অদ্ভুত কর্মকাণ্ড নিয়ে এই আলোচনা। বলা হয়, তিনি মস্তিষ্কের জটিলতা জনিত রোগ পারকিনসনে আক্রান্ত। তবে, সব ধোঁয়াশার মীমাংসা করে দিয়েছে হোয়াইট হাউস। তারা বলছে, জো বাইডেন পারকিনসনের চিকিৎসা নিচ্ছেন না।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিবিসিনিউজ বলছে, সম্প্রতি আমেরিকার হোয়াইট হাউসে পারকিনসনের এক বিশেষজ্ঞ ডাক্তারকে ঘন ঘন যাতায়াত করতে দেখা যাচ্ছে। এ নিয়ে সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে একাধিক প্রশ্নের মুখোমুখি হন হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি কেরিন জিন-পিয়ার। এরপর সোমবার রাতে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের চিকিৎসকের লেখা একটি চিঠি প্রকাশ করেছে হোয়াইট হাউস।

এ নিয়ে প্রথম প্রতিবেদন প্রকাশ করে নিউইয়র্ক পোস্ট ও নিউইয়র্ক টাইমস। তাতে বলা হয়, গত গ্রীষ্ম থেকে বসন্তকাল পর্যন্ত মোট ৮বার হোয়াইট হাউসে গেছেন মস্তিষ্কের জটিলতা জনিত রোগ পারকিনসনের বিশেষজ্ঞ ডাক্তার কেভিন কানার্ড। এ সময় তিনি অন্তত একবার বাইডেনের ব্যক্তিগত চিকিৎসকের সঙ্গে দেখা করেছেন।

এ প্রতিবেদন প্রকাশের পর অনেকেই বলতে থাকেন জো বাইডেন পারকিনসনে আক্রান্ত। কিন্তু এই দাবি নাকচ করে দেন হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি কেরিন জিন-পিয়ার। তিনি বলেন, বাইডেন পারকিনসনের চিকিৎসা নিচ্ছেন না। এমনকি এর জন্য তিনি কোনো ওষুধও সেবন করছেন না।

কিন্তু সংবাদ সম্মেলনে পারকিনসনের বিশেষজ্ঞ ডাক্তার কেভিন কানার্ডের যাতায়াতের ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে প্রেস সেক্রেটারি কেরিন জিন-পিয়ার কোনো উত্তর দেননি। নিরাপত্তাজনিত কারণে এই প্রশ্নের কোনো উত্তর দেবেন না বলে জানান তিনি।

এ ঘটনার পর সোমবার রাতে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের চিকিৎসক কেভিন ও’কনরের লেখা একটি মেমো প্রকাশ করেছে হোয়াইট হাউস। তাতে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে কথা বলতে তিনি জো বাইডেন ও কানার্ডের কাছ থেকে অনুমতি পেয়েছেন।

প্রেসিডেন্ট বাইডেনের চিকিৎসক কেভিন ও’কনর লেখেন, ‘জো বাইডেনের শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণের জন্য বছরে একবার দেখতেন নিউরোলোজিক্যাল স্পেশালিস্ট কানার্ড। তাতে তিনি যে পর্যবেক্ষণ পেতেন তা আমরা কিন্তু নিয়মিত প্রকাশ করেছি। এর বাইরে কোনো নিউরোলোজিক্যাল স্পেশালিস্টকে দেখাতেন না বাইডেন।’

কেভিন ও’কনর জানান, ২০১২ সাল থেকে হোয়াইট হাউসের নিউরোলোজিক্যাল স্পেশালিস্ট হিসেবে রয়েছেন কানার্ড। সম্প্রতি তাঁর একাধিকবার আসার কারণ, কর্মীদের শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করা।

বাইডেনের চিকিৎসক কেভিন ও’কনর আরও জানান, সর্বশেষ যে রিপোর্ট তারা পেয়েছেন তাতে পারকিনসনের কোনো লক্ষণের কথা বলা হয়নি। এমনকি স্ট্রোক কিংবা মস্তিষ্কের কোনো জটিলতার লক্ষণও নেই।

নিউজটি শেয়ার করুন

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বাইডেন কি আসলেই অসুস্থ?

আপডেট সময় : ০৩:৩৭:২৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ জুলাই ২০২৪

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের শারীরিক অবস্থা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা এখন তুঙ্গে। বিশেষ করে প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী রিপাবলিকান নেতা ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে বিতর্কের পর তাঁর অদ্ভুত কর্মকাণ্ড নিয়ে এই আলোচনা। বলা হয়, তিনি মস্তিষ্কের জটিলতা জনিত রোগ পারকিনসনে আক্রান্ত। তবে, সব ধোঁয়াশার মীমাংসা করে দিয়েছে হোয়াইট হাউস। তারা বলছে, জো বাইডেন পারকিনসনের চিকিৎসা নিচ্ছেন না।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিবিসিনিউজ বলছে, সম্প্রতি আমেরিকার হোয়াইট হাউসে পারকিনসনের এক বিশেষজ্ঞ ডাক্তারকে ঘন ঘন যাতায়াত করতে দেখা যাচ্ছে। এ নিয়ে সোমবার এক সংবাদ সম্মেলনে একাধিক প্রশ্নের মুখোমুখি হন হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি কেরিন জিন-পিয়ার। এরপর সোমবার রাতে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের চিকিৎসকের লেখা একটি চিঠি প্রকাশ করেছে হোয়াইট হাউস।

এ নিয়ে প্রথম প্রতিবেদন প্রকাশ করে নিউইয়র্ক পোস্ট ও নিউইয়র্ক টাইমস। তাতে বলা হয়, গত গ্রীষ্ম থেকে বসন্তকাল পর্যন্ত মোট ৮বার হোয়াইট হাউসে গেছেন মস্তিষ্কের জটিলতা জনিত রোগ পারকিনসনের বিশেষজ্ঞ ডাক্তার কেভিন কানার্ড। এ সময় তিনি অন্তত একবার বাইডেনের ব্যক্তিগত চিকিৎসকের সঙ্গে দেখা করেছেন।

এ প্রতিবেদন প্রকাশের পর অনেকেই বলতে থাকেন জো বাইডেন পারকিনসনে আক্রান্ত। কিন্তু এই দাবি নাকচ করে দেন হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি কেরিন জিন-পিয়ার। তিনি বলেন, বাইডেন পারকিনসনের চিকিৎসা নিচ্ছেন না। এমনকি এর জন্য তিনি কোনো ওষুধও সেবন করছেন না।

কিন্তু সংবাদ সম্মেলনে পারকিনসনের বিশেষজ্ঞ ডাক্তার কেভিন কানার্ডের যাতায়াতের ব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে প্রেস সেক্রেটারি কেরিন জিন-পিয়ার কোনো উত্তর দেননি। নিরাপত্তাজনিত কারণে এই প্রশ্নের কোনো উত্তর দেবেন না বলে জানান তিনি।

এ ঘটনার পর সোমবার রাতে প্রেসিডেন্ট বাইডেনের চিকিৎসক কেভিন ও’কনরের লেখা একটি মেমো প্রকাশ করেছে হোয়াইট হাউস। তাতে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে কথা বলতে তিনি জো বাইডেন ও কানার্ডের কাছ থেকে অনুমতি পেয়েছেন।

প্রেসিডেন্ট বাইডেনের চিকিৎসক কেভিন ও’কনর লেখেন, ‘জো বাইডেনের শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণের জন্য বছরে একবার দেখতেন নিউরোলোজিক্যাল স্পেশালিস্ট কানার্ড। তাতে তিনি যে পর্যবেক্ষণ পেতেন তা আমরা কিন্তু নিয়মিত প্রকাশ করেছি। এর বাইরে কোনো নিউরোলোজিক্যাল স্পেশালিস্টকে দেখাতেন না বাইডেন।’

কেভিন ও’কনর জানান, ২০১২ সাল থেকে হোয়াইট হাউসের নিউরোলোজিক্যাল স্পেশালিস্ট হিসেবে রয়েছেন কানার্ড। সম্প্রতি তাঁর একাধিকবার আসার কারণ, কর্মীদের শারীরিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করা।

বাইডেনের চিকিৎসক কেভিন ও’কনর আরও জানান, সর্বশেষ যে রিপোর্ট তারা পেয়েছেন তাতে পারকিনসনের কোনো লক্ষণের কথা বলা হয়নি। এমনকি স্ট্রোক কিংবা মস্তিষ্কের কোনো জটিলতার লক্ষণও নেই।