ঢাকা ১০:০৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

মঠবাড়িয়ায় কৃষক বিদ্রোহের কেন্দ্রস্থলে মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজের পাঠদান

জুলফিকার আমীন সোহেল, মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৪:১৭:২৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ নভেম্বর ২০২৩
  • / ১৫০১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় সালে কৃষক বিদ্রোহের কেন্দ্রস্থল পরিদর্শন ও সেখানে পাঠদান করান উপজেলার মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজ। ৭ম শ্রেণীর পাঠ্য বইয়ের স্থান পাওয়া বাংলাদেশের কৃষক বিদ্রোহ বিষটি শিক্ষার্থীদেও সরাসরি বোঝানোর জন্য ৪ অক্টোবর শনিবার দিনভর বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেন মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজ।

সকাল দশটায় উপজেলার উদরতাঁরা বুড়িরচর মোমিন মসজিদ চত্বরে পৌছে “ফিরিঙ্গিদের জমিনা-খাজনাও তাই দিমুনা” এই শ্লোগানে এলাকা প্রকম্পিত করে মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজ এর শিক্ষক ও শিক্ষার্থরা। পরে কৃষক বিদ্রোহে শহীদ হওয়া ইদির, খিদির, ইসাফ এ তিন ভাইয়ের কবর জিয়ারত করা হয়। পরে মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আলমগীর হোসেন খান ৭ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের মোমিন মসজিদ চত্বরে ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান বইয়ের ১৩১ পৃষ্ঠার তুষখালীর কৃষক বিদ্রোহের উপর পাঠদার করান।

পাঠদান শেষে অধ্যক্ষ মোঃ আলমগীর হোসেন খানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন শিক্ষাবিদ আবু জাফর আহমেদ, শিক্ষক ও সাংবাদিক মিজানুর রহমান তালুকদার, ইতিহাসবিদ লেখক আবুল কালাম আজাদ আকন, কবি মোস্তফা কামাল খান, মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজের সহকারি প্রধান শিক্ষক এনামুল হক মৃধা, প্রভাষক নাসরিন আক্তার নীলা, প্রভাষক মোঃ আবু জাফর প্রমুখ।

এ সময় এলাকার একটি কৃষক জোট অনুষ্ঠানে কৃষক সেজে কৃষক আন্দোলনের প্রতীক হিসেবে শিক্ষার্থীদের অনুপ্রেরণা জোগায়। জমিদারী প্রথা বাতিলের জন্য ১৮৩০ থেকে ১৮৭১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে কৃষক বিদ্রোহের ঘটনা ঘটে।

মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আলমগীর হোসেন খান বলেন, খুবই অযতেœ অবহেলায় পরে রয়েছে এক স্থানে কৃষক বিদ্রোহের ৩ শহীদের কবর। সেকানে যেতে রাস্তা খুবই খারাপ। তিনি সরকারের কাছে এ কবর ৩ টি রক্ষণাবেক্ষণ, স্মৃতিসৌধ এবং কৃষক বিদ্রোহের চারন ভূমিতে পর্যটন কেন্দ্র স্থাপনের অনুরোধ জানান। এছাড়াও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের আশার পথটি সুগম করার জন্য রাস্তা পাকা করনের আহ্বান জানান।

 

বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

মঠবাড়িয়ায় কৃষক বিদ্রোহের কেন্দ্রস্থলে মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজের পাঠদান

আপডেট সময় : ০৪:১৭:২৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ৫ নভেম্বর ২০২৩

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় সালে কৃষক বিদ্রোহের কেন্দ্রস্থল পরিদর্শন ও সেখানে পাঠদান করান উপজেলার মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজ। ৭ম শ্রেণীর পাঠ্য বইয়ের স্থান পাওয়া বাংলাদেশের কৃষক বিদ্রোহ বিষটি শিক্ষার্থীদেও সরাসরি বোঝানোর জন্য ৪ অক্টোবর শনিবার দিনভর বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেন মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজ।

সকাল দশটায় উপজেলার উদরতাঁরা বুড়িরচর মোমিন মসজিদ চত্বরে পৌছে “ফিরিঙ্গিদের জমিনা-খাজনাও তাই দিমুনা” এই শ্লোগানে এলাকা প্রকম্পিত করে মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজ এর শিক্ষক ও শিক্ষার্থরা। পরে কৃষক বিদ্রোহে শহীদ হওয়া ইদির, খিদির, ইসাফ এ তিন ভাইয়ের কবর জিয়ারত করা হয়। পরে মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আলমগীর হোসেন খান ৭ম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের মোমিন মসজিদ চত্বরে ইতিহাস ও সামাজিক বিজ্ঞান বইয়ের ১৩১ পৃষ্ঠার তুষখালীর কৃষক বিদ্রোহের উপর পাঠদার করান।

পাঠদান শেষে অধ্যক্ষ মোঃ আলমগীর হোসেন খানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন শিক্ষাবিদ আবু জাফর আহমেদ, শিক্ষক ও সাংবাদিক মিজানুর রহমান তালুকদার, ইতিহাসবিদ লেখক আবুল কালাম আজাদ আকন, কবি মোস্তফা কামাল খান, মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজের সহকারি প্রধান শিক্ষক এনামুল হক মৃধা, প্রভাষক নাসরিন আক্তার নীলা, প্রভাষক মোঃ আবু জাফর প্রমুখ।

এ সময় এলাকার একটি কৃষক জোট অনুষ্ঠানে কৃষক সেজে কৃষক আন্দোলনের প্রতীক হিসেবে শিক্ষার্থীদের অনুপ্রেরণা জোগায়। জমিদারী প্রথা বাতিলের জন্য ১৮৩০ থেকে ১৮৭১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশে কৃষক বিদ্রোহের ঘটনা ঘটে।

মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আলমগীর হোসেন খান বলেন, খুবই অযতেœ অবহেলায় পরে রয়েছে এক স্থানে কৃষক বিদ্রোহের ৩ শহীদের কবর। সেকানে যেতে রাস্তা খুবই খারাপ। তিনি সরকারের কাছে এ কবর ৩ টি রক্ষণাবেক্ষণ, স্মৃতিসৌধ এবং কৃষক বিদ্রোহের চারন ভূমিতে পর্যটন কেন্দ্র স্থাপনের অনুরোধ জানান। এছাড়াও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের আশার পথটি সুগম করার জন্য রাস্তা পাকা করনের আহ্বান জানান।

 

বাখ//আর