ঢাকা ০৪:১৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

ভারী বৃষ্টি-উজানের ঢলে ১০ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপরে

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:২১:০৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৬ জুন ২০২৩
  • / ৪৫৫ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক: বৃষ্টি-উজানের ঢলে সিলেট অঞ্চলের ১০ নদীর পানি বিপদসীমার কাছাকাছি। মেঘালয়-আসামে ভারী বৃষ্টির শঙ্কা থাকায় সুরমা, কুশিয়ারা, মনু, জাদুকাটার পানিতে প্লাবিত হওয়ার মুখে সুনামগঞ্চ, সিলেট। বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র বলছে, হাওরে আকস্মিক বন্যা হতে পারে আগামী ৭২ ঘণ্টায়।

আষাঢের প্রথম দিন থেকেই চেরাপুঞ্জিতে প্রায় দুইশ মিলিমিটার ভারি বৃষ্টি। উজানের ঢল ধেয়ে আসছে ভাটিতে। হাওরের কোলে-ভাঁজে জমে থাকা এই পানি এখন উপচে পড়ছে চারপাশে।

সুনামগঞ্জের ছাতক থেকে মাত্র ৪৫ কিলোমিটার উত্তরে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপ্রবণ এলাকা মেঘালয়ের চেরাপুঞ্জি। এ মৌসুমে সেখানে ভারি বৃষ্টি, যা আগামী ৭২ ঘণ্টায় আরও বাড়বে। এতে সুরমা, কুশিয়ারা, মনু, যাদুকাটা, খোয়াই, সারিগোয়াইনসহ ১০ নদীর পানিতে নিম্নাঞ্চলে প্লাবন দেখা দিয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, দীর্ঘদিন তাপপ্রাহের পর শুরু হয়েছে বৃষ্টি। মৌসুমী বায়ু সক্রিয় হওয়ায় আগামী কয়েক দিন ভারী বৃষ্টিপাত হতে পারে। সিলেট বিভাগের পরিস্থিতি আগামী ৭২ ঘণ্টায় অবনতি হওয়ার আশংকা করছে।

সিলেট বিভাগের হাওরের পানি ভৈরব বাজার ও চাঁদপুরে মেঘনা হয়ে ভাটিতে নামে। বন্যাপূর্বাভাস কেন্দ্র বলছে, এই নদীর পানি এখনও বিপদসীমার নিচে রয়েছে। তাই আকস্মিক বন্যা পরিস্থিতি নাজুক হওয়ার সম্ভাবনা কম।

গেল বছর এই মধ্য জুনেই সিলেট-সুনামগঞ্জে ভয়াবহ বন্যা দেখা দেয়। সেসময় উজানের ভারি বৃষ্টির ঢলে তলিয়ে যায় হাওর থেকে নগর।

নিউজটি শেয়ার করুন

ভারী বৃষ্টি-উজানের ঢলে ১০ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপরে

আপডেট সময় : ১১:২১:০৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৬ জুন ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: বৃষ্টি-উজানের ঢলে সিলেট অঞ্চলের ১০ নদীর পানি বিপদসীমার কাছাকাছি। মেঘালয়-আসামে ভারী বৃষ্টির শঙ্কা থাকায় সুরমা, কুশিয়ারা, মনু, জাদুকাটার পানিতে প্লাবিত হওয়ার মুখে সুনামগঞ্চ, সিলেট। বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র বলছে, হাওরে আকস্মিক বন্যা হতে পারে আগামী ৭২ ঘণ্টায়।

আষাঢের প্রথম দিন থেকেই চেরাপুঞ্জিতে প্রায় দুইশ মিলিমিটার ভারি বৃষ্টি। উজানের ঢল ধেয়ে আসছে ভাটিতে। হাওরের কোলে-ভাঁজে জমে থাকা এই পানি এখন উপচে পড়ছে চারপাশে।

সুনামগঞ্জের ছাতক থেকে মাত্র ৪৫ কিলোমিটার উত্তরে বিশ্বের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টিপ্রবণ এলাকা মেঘালয়ের চেরাপুঞ্জি। এ মৌসুমে সেখানে ভারি বৃষ্টি, যা আগামী ৭২ ঘণ্টায় আরও বাড়বে। এতে সুরমা, কুশিয়ারা, মনু, যাদুকাটা, খোয়াই, সারিগোয়াইনসহ ১০ নদীর পানিতে নিম্নাঞ্চলে প্লাবন দেখা দিয়েছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, দীর্ঘদিন তাপপ্রাহের পর শুরু হয়েছে বৃষ্টি। মৌসুমী বায়ু সক্রিয় হওয়ায় আগামী কয়েক দিন ভারী বৃষ্টিপাত হতে পারে। সিলেট বিভাগের পরিস্থিতি আগামী ৭২ ঘণ্টায় অবনতি হওয়ার আশংকা করছে।

সিলেট বিভাগের হাওরের পানি ভৈরব বাজার ও চাঁদপুরে মেঘনা হয়ে ভাটিতে নামে। বন্যাপূর্বাভাস কেন্দ্র বলছে, এই নদীর পানি এখনও বিপদসীমার নিচে রয়েছে। তাই আকস্মিক বন্যা পরিস্থিতি নাজুক হওয়ার সম্ভাবনা কম।

গেল বছর এই মধ্য জুনেই সিলেট-সুনামগঞ্জে ভয়াবহ বন্যা দেখা দেয়। সেসময় উজানের ভারি বৃষ্টির ঢলে তলিয়ে যায় হাওর থেকে নগর।