ঢাকা ০৬:০২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

লাশ ফেরতের দাবীতে বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানী রপ্তানী বন্ধ

ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে বাংলাদেশী ট্রাক চালকের মৃত্যু

// মসিয়ার রহমান কাজল, বেনাপোল //
  • আপডেট সময় : ০৩:০৫:৫৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০২৩
  • / ৫৪২ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

বেনাপোল চেকপোষ্টের বিপরীতে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে নাজমুজ শাহাদাত বাবুল নাম এক বাংলাদশী ট্রাক চালকের মৃত্যু হয়েছে। তার মরাদেহ ফেরতের দাবীতে ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের ডাকে বেনাপোল- পেট্রাপোল বন্দরে আমদানী-রপ্তানী বানিজ্য বন্ধ রয়েছে। তবে বন্দরে লোড-আনলোড, শুল্কায়ন ও পাসপার্ট যাত্রী যাতায়াত স্বাভাবিক রয়েছে। মৃত নাজমুজ শাহাদাত বাবলু যশারের ঝিকরগাছা সদর উপজেলার মৃত অলিয়ার রহমান সরদারের পুত্র।

বন্দর সূত্রে জানা যায়, বুধবার (১১ অক্টাবর) সকালে ফরিদপুরের গোল্ডেন জুট ইন্ডাস্ট্রিজ থেকে ঢাকা মেট্রো-ট-১৮-৩০৫৩ নং ট্রাক ২৩৫ বেল পাটজাতীয় পণ্য নিয়ে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে যান। তার ট্রাকে থাকা মালামাল খালি না হওয়ায় সে পেট্রাপোল বন্দরে রাতে অবস্থান করছিলেন। হঠাৎ রাত সাড় ৯টার দিকে হৃদযন্তের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তার মৃত্যু হয়। মরদেহটি এখনও ভারত রয়েছে। বেনাপোল বন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক রেজাউল ইসলাম জানান, যথাযথ আইনি প্রক্রিয়া শেষে তার মরাদেহ ভারত থেকে বাংলাদেশে আনার প্রক্রিয়া চলছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

লাশ ফেরতের দাবীতে বেনাপোল বন্দর দিয়ে আমদানী রপ্তানী বন্ধ

ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে বাংলাদেশী ট্রাক চালকের মৃত্যু

আপডেট সময় : ০৩:০৫:৫৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১২ অক্টোবর ২০২৩

বেনাপোল চেকপোষ্টের বিপরীতে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে নাজমুজ শাহাদাত বাবুল নাম এক বাংলাদশী ট্রাক চালকের মৃত্যু হয়েছে। তার মরাদেহ ফেরতের দাবীতে ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের ডাকে বেনাপোল- পেট্রাপোল বন্দরে আমদানী-রপ্তানী বানিজ্য বন্ধ রয়েছে। তবে বন্দরে লোড-আনলোড, শুল্কায়ন ও পাসপার্ট যাত্রী যাতায়াত স্বাভাবিক রয়েছে। মৃত নাজমুজ শাহাদাত বাবলু যশারের ঝিকরগাছা সদর উপজেলার মৃত অলিয়ার রহমান সরদারের পুত্র।

বন্দর সূত্রে জানা যায়, বুধবার (১১ অক্টাবর) সকালে ফরিদপুরের গোল্ডেন জুট ইন্ডাস্ট্রিজ থেকে ঢাকা মেট্রো-ট-১৮-৩০৫৩ নং ট্রাক ২৩৫ বেল পাটজাতীয় পণ্য নিয়ে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে যান। তার ট্রাকে থাকা মালামাল খালি না হওয়ায় সে পেট্রাপোল বন্দরে রাতে অবস্থান করছিলেন। হঠাৎ রাত সাড় ৯টার দিকে হৃদযন্তের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে তার মৃত্যু হয়। মরদেহটি এখনও ভারত রয়েছে। বেনাপোল বন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক রেজাউল ইসলাম জানান, যথাযথ আইনি প্রক্রিয়া শেষে তার মরাদেহ ভারত থেকে বাংলাদেশে আনার প্রক্রিয়া চলছে।