ঢাকা ১০:২৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

ভাতিজাকে ২০ টাকা ঈদ সালামী দেয়ায় স্ত্রীর দায়ের কোপে স্বামী হাসপাতালে 

হাতীবান্ধা প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৭:২৯:৪৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪
  • / ৪৩২ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় ভাতিজাদের ঈদ সালামি দেয়ার অপরাধে স্ত্রী-র দায়ের কোপে গুরত্বর আহত, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে স্বামী তাইজুল ইসলাম।
 তার অবস্থা এতটা আশংকাজনক যে শনিবার সকালে চিকিৎসকগন তাকে দ্রুত উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।
গত ১১ এপ্রিল ঈদের দিন সকালে এমন ঘটনাটি ঘটে হাতীবান্ধা উপজেলার  নওদাবাস ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের চৌপুতি বটতলা এলাকায়।
প্রাপ্ত অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, মকবুল হোসেনের পুত্র তাইজুল ইসলাম ঈদের দিন সকালে তার ভাতিজাদের ২০ টাকা করে ঈদ সালামী দিতে থাকে। এ সময় তার স্ত্রী রাশেদা বেগম ২০ টাকার পরিবর্তে ১০ টাকা দিতে বলে। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর তর্ক শুরু হয়। এক পযার্য়ে রাশেদা বেগম দা দিয়ে তার স্বামী তাইজুল ইসলামকে কোপ দেয় এমন দাবী তাইজুল ও তার পরিবারের। এতে তাইরুলে ঘাড়ের নিচে কেটে যায়।
পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে প্রথমে হাতীবান্ধা হাসপাতাল পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান। তার অবস্থা এতটা আশংকাজন যে শনিবার সকালে চিকিৎসকগন তাকে দ্রুত উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। এ ঘটনায় তাইজুল বাদী হয়ে স্থানীয় থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।
তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তাইজুলের স্ত্রী রাশেদা বেগম। তার দাবী তার স্বামী তাকে ওই দা নিয়ে আঘাত করার চেষ্টা করেন এতে তিনি বাঁধা দিলে ওই দা তার স্বামী ঘাড়ের নিচে লাগে।
হাতীবান্ধা থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) নির্মল চন্দ্র রায় জানান, অভিযোগের আলোকে তদন্ত করে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ভাতিজাকে ২০ টাকা ঈদ সালামী দেয়ায় স্ত্রীর দায়ের কোপে স্বামী হাসপাতালে 

আপডেট সময় : ০৭:২৯:৪৫ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪
লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় ভাতিজাদের ঈদ সালামি দেয়ার অপরাধে স্ত্রী-র দায়ের কোপে গুরত্বর আহত, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছে স্বামী তাইজুল ইসলাম।
 তার অবস্থা এতটা আশংকাজনক যে শনিবার সকালে চিকিৎসকগন তাকে দ্রুত উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।
গত ১১ এপ্রিল ঈদের দিন সকালে এমন ঘটনাটি ঘটে হাতীবান্ধা উপজেলার  নওদাবাস ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের চৌপুতি বটতলা এলাকায়।
প্রাপ্ত অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, মকবুল হোসেনের পুত্র তাইজুল ইসলাম ঈদের দিন সকালে তার ভাতিজাদের ২০ টাকা করে ঈদ সালামী দিতে থাকে। এ সময় তার স্ত্রী রাশেদা বেগম ২০ টাকার পরিবর্তে ১০ টাকা দিতে বলে। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর তর্ক শুরু হয়। এক পযার্য়ে রাশেদা বেগম দা দিয়ে তার স্বামী তাইজুল ইসলামকে কোপ দেয় এমন দাবী তাইজুল ও তার পরিবারের। এতে তাইরুলে ঘাড়ের নিচে কেটে যায়।
পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে প্রথমে হাতীবান্ধা হাসপাতাল পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান। তার অবস্থা এতটা আশংকাজন যে শনিবার সকালে চিকিৎসকগন তাকে দ্রুত উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। এ ঘটনায় তাইজুল বাদী হয়ে স্থানীয় থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন।
তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তাইজুলের স্ত্রী রাশেদা বেগম। তার দাবী তার স্বামী তাকে ওই দা নিয়ে আঘাত করার চেষ্টা করেন এতে তিনি বাঁধা দিলে ওই দা তার স্বামী ঘাড়ের নিচে লাগে।
হাতীবান্ধা থানা পুলিশের ওসি (তদন্ত) নির্মল চন্দ্র রায় জানান, অভিযোগের আলোকে তদন্ত করে আইনী ব্যবস্থা নেয়া হবে।