ঢাকা ০৯:৫৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

বেলকুচিতে অপসারন হয়নি রাস্তা দখল করে রাখা এমপির তোরণ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৪:৩৫:২৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ মার্চ ২০২৩
  • / ৪৮২ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
আব্দুর রাজ্জাক বাবু, বেলকুচি (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি :
নিরাপত্তার কথা না ভেবেই সিরাজগঞ্জের বেলকুচি-এনায়েতপুর আঞ্চলিক সড়ক জুড়ে বসানো হয়েছে স্থায়ীভাবে সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি-চৌহালী) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আব্দুল মমিন মন্ডলের  ব্যক্তিগত ৬ টি  তোরণ। তোরণ এখন দুর্ঘটনার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সড়কের একাংশ ও ফুটপাত ভেঙ্গে পাকা গাঁথুনীর ওপর লোহার পাত দিয়ে নির্মিত হয়েছে এই তোরণ। চার বছররে অধিক সময় পেরিয়ে গেলেও অপসারনের উদ্যোগ নেয়নি প্রশাসন।
সিরাজগঞ্জের তাঁত শিল্প সমৃদ্ধ ৪টি থানার মানুষের যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে বেলকুচি আঞ্চলিক সড়ক। যা সিরাজগঞ্জ শহর ও ঢাকার সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ায় রাস্তাটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। শাহজাদপুর, উল্লাপাড়া অনেকটাই যাতায়াতের মাধ্যম  তাছাড়া এই সড়ক দিয়েই এনায়েতপুর খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজ যেতে হয়। বর্তমানে জনবহুল এই এলাকার ব্যস্ততম সড়কে কোনো রকম নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে সড়কের পাশের বাইলেন রাস্তাটি দখল করে তৈরি করা হয়েছে ৬টি বিশাল তোরণ। তোরণগুলো স্থায়ী করতে রাস্তা খুঁড়ে সিমেন্ট পাথর দিয়ে ঢালাই দেয়া হয়েছে। এতে রাস্তার পূর্ব পাশের ফুটপাত ও পশ্চিম পাশের বাইলেন রাস্তার মাঝখান পুরোপুরি দখল করে রাখা হয়েছে।
সরেজমিনে দেখা যায়, এনায়েতপুর ইসলামীয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠের পাশে, আজগড়া মহিউস সুন্নাহ মাদরাসার পাশে, বেলকুচি পৌরসভার সামনে, মুকন্দগাঁতী, চালা ও সমেশপুর সড়কে নির্মিত ৬টি তোরণে এমপি মমিন মন্ডলের শুভেচ্ছা ও শ্রদ্ধাঞ্জলি ব্যানার শোভা পাচ্ছে। তবে সড়ক দখল করে রাখা এমন তোরণ নিয়ে এখন সমালোচনা চলছে।
সুবর্নসাড়া গ্রামের ভ্যান চালক  আব্দুল সালাম বলেন, ক্ষমতাসীন দলের এমপি দীর্ঘদিন যাবৎ ধরে রাস্তায় গেইট তৈরি করে রেখেছেন। আমরা কইবার গেলি চোপার দাঁত খুইলা ফালাইবো। তাই কষ্ট অইলেও নক কইরা থাকি। জীবনের ঝুঁকি নিয়েই গাড়ি চালাই।
ট্রাকচালক হালিম সরকার বলেন, তোরণে লাগানো ব্যানারের জন্য অনেক সময় পথচারীরা যানবাহন দেখতে পান না। এ কারণে মাঝেমধ্যে দুর্ঘটনা ঘটছে।
এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জ জেলার অটো টেম্পু, অটো রিক্সা (সিএনজি) মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন জানান, অনেক সময় ওই সব দৃষ্টিনন্দন  ব্যানার তোরণের দিকে গাড়িচালকদের নজর চলে যায়। এতে দুর্ঘটনায় প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে। সড়কে স্থাপিত তোরণের দ্রুত অপসারণের দাবি জানাই।
এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রিন্ট মিডিয়ায় একাধিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হলেও টনক নড়ছে না কতৃপক্ষের। এদিকে তোরণ গুলো অপসারনের সিদ্ধান্ত আজো বাস্তবায়ন না হওয়ায় সচেতন এলাকাবাসীর মনে দেখা দিয়েছে নানান প্রশ্ন। তারা বলছেন এটি জনসার্থেই তোরণ গুলো অপসারনের প্রয়োজন।
এ ব্যাপারে সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি-চৌহালী) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব  আব্দুল মমিন মন্ডলের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন ধরেননি।
এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জ  সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের  প্রকৌশলী দিদারুল আলম তরফদার জানান, এসব তোরণ ব্যানারের কারণে জননিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তোরণ গুলোর কোনো অনুমোদন নেই। এগুলো অপসারণের জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে চিঠি ইস্যু করা হয়েছিলো। কিন্তু তাঁরা সেগুলো অপসারণ করছেন না। এ ব্যাপারে  আবারো চিঠি  ইস্যু করা হবে।
বা/খ: জই

নিউজটি শেয়ার করুন

বেলকুচিতে অপসারন হয়নি রাস্তা দখল করে রাখা এমপির তোরণ

আপডেট সময় : ০৪:৩৫:২৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১১ মার্চ ২০২৩
আব্দুর রাজ্জাক বাবু, বেলকুচি (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি :
নিরাপত্তার কথা না ভেবেই সিরাজগঞ্জের বেলকুচি-এনায়েতপুর আঞ্চলিক সড়ক জুড়ে বসানো হয়েছে স্থায়ীভাবে সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি-চৌহালী) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আব্দুল মমিন মন্ডলের  ব্যক্তিগত ৬ টি  তোরণ। তোরণ এখন দুর্ঘটনার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সড়কের একাংশ ও ফুটপাত ভেঙ্গে পাকা গাঁথুনীর ওপর লোহার পাত দিয়ে নির্মিত হয়েছে এই তোরণ। চার বছররে অধিক সময় পেরিয়ে গেলেও অপসারনের উদ্যোগ নেয়নি প্রশাসন।
সিরাজগঞ্জের তাঁত শিল্প সমৃদ্ধ ৪টি থানার মানুষের যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম হচ্ছে বেলকুচি আঞ্চলিক সড়ক। যা সিরাজগঞ্জ শহর ও ঢাকার সঙ্গে সম্পৃক্ত হওয়ায় রাস্তাটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। শাহজাদপুর, উল্লাপাড়া অনেকটাই যাতায়াতের মাধ্যম  তাছাড়া এই সড়ক দিয়েই এনায়েতপুর খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজ যেতে হয়। বর্তমানে জনবহুল এই এলাকার ব্যস্ততম সড়কে কোনো রকম নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে সড়কের পাশের বাইলেন রাস্তাটি দখল করে তৈরি করা হয়েছে ৬টি বিশাল তোরণ। তোরণগুলো স্থায়ী করতে রাস্তা খুঁড়ে সিমেন্ট পাথর দিয়ে ঢালাই দেয়া হয়েছে। এতে রাস্তার পূর্ব পাশের ফুটপাত ও পশ্চিম পাশের বাইলেন রাস্তার মাঝখান পুরোপুরি দখল করে রাখা হয়েছে।
সরেজমিনে দেখা যায়, এনায়েতপুর ইসলামীয়া উচ্চ বিদ্যালয় মাঠের পাশে, আজগড়া মহিউস সুন্নাহ মাদরাসার পাশে, বেলকুচি পৌরসভার সামনে, মুকন্দগাঁতী, চালা ও সমেশপুর সড়কে নির্মিত ৬টি তোরণে এমপি মমিন মন্ডলের শুভেচ্ছা ও শ্রদ্ধাঞ্জলি ব্যানার শোভা পাচ্ছে। তবে সড়ক দখল করে রাখা এমন তোরণ নিয়ে এখন সমালোচনা চলছে।
সুবর্নসাড়া গ্রামের ভ্যান চালক  আব্দুল সালাম বলেন, ক্ষমতাসীন দলের এমপি দীর্ঘদিন যাবৎ ধরে রাস্তায় গেইট তৈরি করে রেখেছেন। আমরা কইবার গেলি চোপার দাঁত খুইলা ফালাইবো। তাই কষ্ট অইলেও নক কইরা থাকি। জীবনের ঝুঁকি নিয়েই গাড়ি চালাই।
ট্রাকচালক হালিম সরকার বলেন, তোরণে লাগানো ব্যানারের জন্য অনেক সময় পথচারীরা যানবাহন দেখতে পান না। এ কারণে মাঝেমধ্যে দুর্ঘটনা ঘটছে।
এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জ জেলার অটো টেম্পু, অটো রিক্সা (সিএনজি) মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন জানান, অনেক সময় ওই সব দৃষ্টিনন্দন  ব্যানার তোরণের দিকে গাড়িচালকদের নজর চলে যায়। এতে দুর্ঘটনায় প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে। সড়কে স্থাপিত তোরণের দ্রুত অপসারণের দাবি জানাই।
এ ব্যাপারে স্থানীয় প্রিন্ট মিডিয়ায় একাধিক প্রতিবেদন প্রকাশিত হলেও টনক নড়ছে না কতৃপক্ষের। এদিকে তোরণ গুলো অপসারনের সিদ্ধান্ত আজো বাস্তবায়ন না হওয়ায় সচেতন এলাকাবাসীর মনে দেখা দিয়েছে নানান প্রশ্ন। তারা বলছেন এটি জনসার্থেই তোরণ গুলো অপসারনের প্রয়োজন।
এ ব্যাপারে সিরাজগঞ্জ-৫ (বেলকুচি-চৌহালী) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব  আব্দুল মমিন মন্ডলের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন ধরেননি।
এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জ  সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের  প্রকৌশলী দিদারুল আলম তরফদার জানান, এসব তোরণ ব্যানারের কারণে জননিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তোরণ গুলোর কোনো অনুমোদন নেই। এগুলো অপসারণের জন্য সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিকে চিঠি ইস্যু করা হয়েছিলো। কিন্তু তাঁরা সেগুলো অপসারণ করছেন না। এ ব্যাপারে  আবারো চিঠি  ইস্যু করা হবে।
বা/খ: জই