শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ১০:৫৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
রাজশাহীতে কুখ্যাত ভূমি প্রতারক ফারজানাসহ আটক-৩ রাজশাহীতে আন্তর্জাতিক ক্বিরাত সম্মেলন কলমাকান্দায় সচেতনতা তৈরিতে বৈঠক শ্রীমঙ্গলে তিন দিনব্যাপী পিঠা উৎসব শুরু শ্রীমঙ্গলে টপসয়েল কাটার দায়ে ১ জনের ৫০ হাজার টাকা দন্ড রাস্তাঘাটের ব্যাপক উন্নয়নের পাশাপাশি দুর্ঘটনা অনেক বেড়েছে : সংসদে হানিফ সোনার চামচে রাজ-পরীমণির ছেলের মুখে ভাত! বাংলাদেশ সফরে ইংল্যান্ডের দল ঘোষণা চীন বাংলাদেশের বৃহৎ অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক অংশীদার : বাণিজ্যমন্ত্রী স্মার্ট বাংলাদেশ নির্মাণে সরকার কাজ করছে : স্পিকার হিরো আলমের অভিযোগের কোনও ভিত্তি নেই : ইসি রাশেদা দেশে মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ২০৩১৬ : সংসদে শিক্ষামন্ত্রী রাজউকে অনলাইনে নকশার আবেদন ৩৪ হাজার : সংসদে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী আইএমএফের ঋণের প্রথম কিস্তি পেল বাংলাদেশ নোবিপ্রবিতে আট দাবিতে তৃতীয় দিনও আন্দোলন অব্যহত

বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রী নাদিয়াকে চাপা দেওয়া বাসের চালক ও হেলপার গ্রেফতার

বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রী নাদিয়াকে চাপা দেওয়া বাসের চালক ও হেলপার গ্রেফতার
গ্রেফতার বাসচালক লিটন (বাঁয়ে) ও সহকারী আবুল খায়ের (ডানে)। ইনসেটে নিহত বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী নাদিয়া।

নিজস্ব প্রতিবেদক : 

রাজধানীর বেসরকারি নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী নাদিয়া আক্তারকে চাপা দেওয়া ভিক্টর পরিবহণের বাসচালক ও হেলপারকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সোমবার (২৩ জানুয়ারি) সকাল ৮টা ২০ মিনিটের দিকে বাড্ডার আনন্দনগর এলাকায় সার্জেন্ট টাওয়ারের পেছন থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

তিনি জানান, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের শিক্ষার্থী নাদিয়া ও তার বন্ধুকে চাপা দেওয়া ভিক্টর পরিবহনের চালক ও হেলপারকে রাজধানীর মিরপুর থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ছাত্রীকে চাপা দেওয়া বাসটি জব্দ করা হয়েছে বলেও জানান ওসি। আটক চালক ও হেরপারকে আদালতে পাঠানো হয়েছে।

রোববার (২২ জানুয়ারি) রাজধানীর প্রগতি সরণিতে বেপরোয়া বাসটি ছাত্রী নাদিয়া আক্তারকে বহনকারী মোটরসাইকেলটিকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়।

রাতে ভাটারা থানায় বাসের অজ্ঞাত পরিচয় চালক ও হেলপারকে আসামি করে মামলা করেন নাদিয়ার বাবা জাহাঙ্গীর আলম। মামলা নং ৪৬।

মুহূর্তেই বাসের দুই চাকার মাঝামাঝি স্থানে ছিটকে পড়ে নাদিয়া। কিন্তু বাসটি না থামিয়ে তড়িঘড়ি করে ওই ছাত্রীর ওপর দিয়ে গাড়িটি চালিয়েই সটকে পড়ে বাসচালক। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। এর পর হাসপাতালে নিলে সেখানে স্বজনদের আহাজারিতে ভারি হয়ে ওঠে পুরো এলাকা।

ছাত্রীর বাবা মো. জাহাঙ্গীর কাজ করেন নারায়ণগঞ্জের একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে। তিন বোনের মধ্যে নাদিয়া ছিল সবার বড়। তাকে নিয়ে বড় স্বপ্ন দেখতেন বাবা। নিমিষেই সেই স্বপ্ন ভেঙে চুরমার করে দেয় ভিক্টর পরিবহণের বাস।

বাসযাত্রী হাসান মামুন জানান, মোটরসাইকেল চালাচ্ছিলেন নাদিয়ার বন্ধু মেহেদী হাসান। পেছনে বসা ছিলেন নাদিয়া। ভিক্টর পরিবহণের বাসটি মোটরসাইকেলটিকে ধাক্কা দেয়। এতে ছেলেটি পড়ে যায় ফুটপাতের দিকে আর মেয়েটি গাড়ির দিকে। মেয়েটির মাথা বাসের সামনের ও পেছনের চাকার মাঝামাঝি স্থানে পড়ে। আমরা চালককে বাসটি থামাতে বলি। সে না থামিয়ে বেপরোয়া গতিতে টেনে যায়। এতে মেয়েটির মাথা পেছনের চাকার নিচে চলে যায়। ঘটনাস্থলেই নিস্তেজ হয়ে যায় নাদিয়ার দেহ। পরে চালক গাড়ি থেকে নেমে পালিয়ে যায়। বাসটিকে জব্দ করে পুলিশ। নাদিয়ার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়।

আরেক প্রত্যক্ষদর্শী জাহিদুল ইসলাম বলেন, চালকের কারণেই এ ঘটনা ঘটেছে। কারণ মোটরসাইকেলটি পড়ে যাওয়ার পর একজন চিৎকার করে বলছিল, ‘এই ড্রাইভার-দাঁড়ান, বাঁচবে বাঁচবে’। তখন তো চালকের টান দেওয়া উচিত হয়নি। দাঁড়ালে অন্তত এটা বোঝা যেত যে, অনিচ্ছাকৃতভাবে ঘটনাটি ঘটেছে এবং সে বাঁচানোর চেষ্টা করেছে। কিন্তু মাথার ওপর দিয়ে বাসটি চালিয়ে নেওয়ায় অনেকটাই স্পষ্ট যে চালকের খামখেয়ালিতে মেয়েটি মারা যায়।

এ ঘটনায় দুই ঘণ্টা রাস্তা বন্ধ করে বিক্ষোভ করেন তার সহপাঠীরা। দুপুরে আবারও চার দফা দাবিতে বিক্ষোভ করার কথা রয়েছে সহপাঠীদের।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *