ঢাকা ১২:০৯ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন সুনাক

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:২৩:৪২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ অক্টোবর ২০২২
  • / ৪৫৫ বার পড়া হয়েছে

যুক্তরাজ্যের নতুন প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন ঋষি সুনাক

বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 
কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্বের দৌড় থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিরা প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেওয়ায় যুক্তরাজ্যের নতুন প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন ঋষি সুনাক। পেনি মর্ডান্ট প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেওয়ায় বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত এই ব্রিটিশ রাজনীতিক। প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার বদলে ঋষি সুনাকের প্রতি সমর্থন জানান তিনি।

সোমবার (২৪ অক্টোবর) এক টুইটে প্রধানমন্ত্রী পদে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করার ঘোষণা দেন সাবেক ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী মর্ডান্ট। তিনি বলেন, নেতৃত্বের প্রতিযোগিতায় সীমিত সময়সীমা সত্ত্বেও এটি পরিষ্কার যে, সহকর্মীরা মনে করেন, আমাদের আজ নিশ্চয়তা দরকার। তারা দেশের ভালোর জন্যই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

মর্ডান্ট বলেন, ঋষির প্রতি আমার পূর্ণ সমর্থন রয়েছে। আমরা যে প্রচারণা চালিয়েছে, তার জন্য আমি গর্বিত এবং যারা আমার প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন, তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।

এর আগে, রোববার (২৩ অক্টোবর) রাতে প্রার্থিতা প্রত্যাহারে ঘোষণা দেন হেবিওয়েট প্রার্থী যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ঘোষণার আগে ঋষির সঙ্গে মুখোমুখি বৈঠক করেছিলেন তিনি।

কনজারভেটিভ পার্টির নতুন নিয়ম অনুসারে, দলীয় প্রধানের পদে প্রার্থিতা করার জন্য প্রত্যেকের ন্যূনতম ১০০ জন এমপির সমর্থন থাকা বাধ্যতামূলক। বরিস জনসন
সোমবার ব্রিটেনের স্থানীয় সময় ২টার ঠিক আগ মুহূর্তে পেনি মর্ডান্ট নাম প্রত্যাহার করার পরে সুনাকই ছিলেন একমাত্র প্রার্থী। ব্রিটেনের ওয়েস্টমিনস্টারের অন্যতম ধনী রাজনীতিবিদ এবং দেশটির প্রথম এশীয় বংশোদ্ভূত এই নেতাকে এখন নতুন সরকার গঠনের আহ্বান জানাবেন রাজা তৃতীয় চার্লস।

কনজারভেটিভ পার্টির প্রধান বা যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে সোমবার (২৩ অক্টোবর) স্থানীয় সময় দুপুর ২টার (বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭টা) মধ্যে ৩৫৫ এমপির মধ্যে অন্তত ১০০ জনের সমর্থন আদায় করতে হতো প্রত্যেক প্রার্থীকে। বরিস জনসন দাবি করেছেন, তিনি প্রয়োজনীয় ১০০ এমপির সমর্থন পেলেও এটি ‘সঠিক সময় নয়’ বলে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।

সোমবার (২৩ অক্টোবর) ব্রিটেনের স্থানীয় সময় ২টার ঠিক আগ মুহূর্তে পেনি মর্ডান্ট নাম প্রত্যাহার করার পরে সুনাকই ছিলেন একমাত্র প্রার্থী। ব্রিটেনের ওয়েস্টমিনস্টারের অন্যতম ধনী রাজনীতিবিদ এবং দেশটির প্রথম এশীয় বংশোদ্ভূত এই নেতাকে এখন নতুন সরকার গঠনের আহ্বান জানাবেন রাজা তৃতীয় চার্লস।

এদিন নির্ধারিত সময়সীমা শেষ হলে একক প্রার্থী হওয়ায় কনজারভেটিভ পার্টির পরবর্তী প্রধান পদের জন্য ঋষি সুনাকের নাম ঘোষণা করেন এর দায়িত্বে থাকা ১৯২২ কমিটির চেয়ারম্যান স্যার গ্রাহাম ব্র্যাডলি।
আর এর মধ্য দিয়ে পদত্যাগের আগে মাত্র ৪৪ দিন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করা লিজ ট্রাসের স্থলাভিষিক্ত হবেন তিনি। টোরি এমপিদের সমর্থন জোগাড়ে মধ্যপন্থী রাজনীতিক পেনি মর্ডান্টকে হারিয়েছেন ঋষি সুনাক। ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্বের প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে কোনো প্রার্থীকে সহকর্মী টোরি এমপিদের অন্তত ১০০ জনের মনোনয়ন বা সমর্থনের প্রয়োজন হয়। মর্ডান্ট সেই সংখ্যা পূরণে ব্যর্থ হয়ে কনজারভেটিভ পার্টির নেতার প্রতিযোগিতা থেকে শেষ মুহূর্তে নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।

ব্রিটেনের ক্ষমতাসীন এই দলের নতুন নেতা হওয়ার দৌড়ে ঋষি সুনাক অন্যান্য প্রার্থীদের তুলনায় এগিয়ে ছিলেন। সোমবার (২৩ অক্টোবর) সকালের দিকে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌড় থেকে দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন সরে দাঁড়ানোর পর সুনাকের প্রতিপক্ষ ছিলেন কেবল পেনি মর্ডান্ট। সময় গড়ানোর সাথে সাথে প্রয়োজনীয় আইনপ্রণেতাদের সমর্থন না পাওয়ায় মর্ডান্টও নাম প্রত্যাহার করে নেন। এর ফলে একেবারে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় ব্রিটেনের নতুন প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন দেশটির সাবেক অর্থমন্ত্রী ঋষি সুনাক।

 

নিউজটি শেয়ার করুন

বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন সুনাক

আপডেট সময় : ১০:২৩:৪২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ অক্টোবর ২০২২

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : 
কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্বের দৌড় থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিরা প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেওয়ায় যুক্তরাজ্যের নতুন প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন ঋষি সুনাক। পেনি মর্ডান্ট প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেওয়ায় বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী হতে যাচ্ছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত এই ব্রিটিশ রাজনীতিক। প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার বদলে ঋষি সুনাকের প্রতি সমর্থন জানান তিনি।

সোমবার (২৪ অক্টোবর) এক টুইটে প্রধানমন্ত্রী পদে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করার ঘোষণা দেন সাবেক ব্রিটিশ প্রতিরক্ষামন্ত্রী মর্ডান্ট। তিনি বলেন, নেতৃত্বের প্রতিযোগিতায় সীমিত সময়সীমা সত্ত্বেও এটি পরিষ্কার যে, সহকর্মীরা মনে করেন, আমাদের আজ নিশ্চয়তা দরকার। তারা দেশের ভালোর জন্যই এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

মর্ডান্ট বলেন, ঋষির প্রতি আমার পূর্ণ সমর্থন রয়েছে। আমরা যে প্রচারণা চালিয়েছে, তার জন্য আমি গর্বিত এবং যারা আমার প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন, তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।

এর আগে, রোববার (২৩ অক্টোবর) রাতে প্রার্থিতা প্রত্যাহারে ঘোষণা দেন হেবিওয়েট প্রার্থী যুক্তরাজ্যের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। ঘোষণার আগে ঋষির সঙ্গে মুখোমুখি বৈঠক করেছিলেন তিনি।

কনজারভেটিভ পার্টির নতুন নিয়ম অনুসারে, দলীয় প্রধানের পদে প্রার্থিতা করার জন্য প্রত্যেকের ন্যূনতম ১০০ জন এমপির সমর্থন থাকা বাধ্যতামূলক। বরিস জনসন
সোমবার ব্রিটেনের স্থানীয় সময় ২টার ঠিক আগ মুহূর্তে পেনি মর্ডান্ট নাম প্রত্যাহার করার পরে সুনাকই ছিলেন একমাত্র প্রার্থী। ব্রিটেনের ওয়েস্টমিনস্টারের অন্যতম ধনী রাজনীতিবিদ এবং দেশটির প্রথম এশীয় বংশোদ্ভূত এই নেতাকে এখন নতুন সরকার গঠনের আহ্বান জানাবেন রাজা তৃতীয় চার্লস।

কনজারভেটিভ পার্টির প্রধান বা যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী হওয়ার প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে সোমবার (২৩ অক্টোবর) স্থানীয় সময় দুপুর ২টার (বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭টা) মধ্যে ৩৫৫ এমপির মধ্যে অন্তত ১০০ জনের সমর্থন আদায় করতে হতো প্রত্যেক প্রার্থীকে। বরিস জনসন দাবি করেছেন, তিনি প্রয়োজনীয় ১০০ এমপির সমর্থন পেলেও এটি ‘সঠিক সময় নয়’ বলে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।

সোমবার (২৩ অক্টোবর) ব্রিটেনের স্থানীয় সময় ২টার ঠিক আগ মুহূর্তে পেনি মর্ডান্ট নাম প্রত্যাহার করার পরে সুনাকই ছিলেন একমাত্র প্রার্থী। ব্রিটেনের ওয়েস্টমিনস্টারের অন্যতম ধনী রাজনীতিবিদ এবং দেশটির প্রথম এশীয় বংশোদ্ভূত এই নেতাকে এখন নতুন সরকার গঠনের আহ্বান জানাবেন রাজা তৃতীয় চার্লস।

এদিন নির্ধারিত সময়সীমা শেষ হলে একক প্রার্থী হওয়ায় কনজারভেটিভ পার্টির পরবর্তী প্রধান পদের জন্য ঋষি সুনাকের নাম ঘোষণা করেন এর দায়িত্বে থাকা ১৯২২ কমিটির চেয়ারম্যান স্যার গ্রাহাম ব্র্যাডলি।
আর এর মধ্য দিয়ে পদত্যাগের আগে মাত্র ৪৪ দিন ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করা লিজ ট্রাসের স্থলাভিষিক্ত হবেন তিনি। টোরি এমপিদের সমর্থন জোগাড়ে মধ্যপন্থী রাজনীতিক পেনি মর্ডান্টকে হারিয়েছেন ঋষি সুনাক। ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্বের প্রতিযোগিতায় অংশ নিতে কোনো প্রার্থীকে সহকর্মী টোরি এমপিদের অন্তত ১০০ জনের মনোনয়ন বা সমর্থনের প্রয়োজন হয়। মর্ডান্ট সেই সংখ্যা পূরণে ব্যর্থ হয়ে কনজারভেটিভ পার্টির নেতার প্রতিযোগিতা থেকে শেষ মুহূর্তে নাম প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।

ব্রিটেনের ক্ষমতাসীন এই দলের নতুন নেতা হওয়ার দৌড়ে ঋষি সুনাক অন্যান্য প্রার্থীদের তুলনায় এগিয়ে ছিলেন। সোমবার (২৩ অক্টোবর) সকালের দিকে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার দৌড় থেকে দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন সরে দাঁড়ানোর পর সুনাকের প্রতিপক্ষ ছিলেন কেবল পেনি মর্ডান্ট। সময় গড়ানোর সাথে সাথে প্রয়োজনীয় আইনপ্রণেতাদের সমর্থন না পাওয়ায় মর্ডান্টও নাম প্রত্যাহার করে নেন। এর ফলে একেবারে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় ব্রিটেনের নতুন প্রধানমন্ত্রী হচ্ছেন দেশটির সাবেক অর্থমন্ত্রী ঋষি সুনাক।