ঢাকা ০৪:৩৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

বালু উত্তোলনে ব্রিজ ভেঙে পড়ায় চরম দুর্ভোগে এলাকাবাসী

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৩:৪৫:৩৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪
  • / ৪৭১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার সিন্দুরখাঁন ইউনিয়নের কটিয়ারকোনা গ্রামের উদনাছড়ার উপর নির্মিত ব্রিজের নিচ থেকে অতিরিক্ত বালু উত্তোলন ও ভারী যানবাহন চলাচল করায় ব্রীজের মাঝখান দেবে গেছে। এতে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে ছোট ছোট যানবাহন ও স্থানীয় সাধারণ মানুষজন। এ ব্রীজ দিয়ে হুগলিয়া কমিউনিটি ক্লিনিক, চিমাইলত গ্রাম, হুগলিয়াছড়া চা বাগানবাসী, সিন্দুরখাঁন ভারতীয় সীমান্ত এলাকায় বাংলাদেশ বর্ডারগার্ড (বিজিবি) টহল দল এবং কুঞ্জবন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন। ব্রিজটি ছোট ছোট ব্রিজ নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় ২০১৪-১৫ সালে ৩১ লক্ষ ১৭ হাজার ৪৮২ টাকা ব্যায়ে নির্মাণ করা হয়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ব্রিজের মধ্যখানে দেবে গেছে। ব্রিজের পিলারের কয়েকটি অংশ ভেঙে গেছে। স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, ব্রিজের নিচ থেকে অতিরিক্ত পরিমানে বালু উত্তোলনের কারণে এবং এ পথে বালুবাহী ট্রাক চলাচল করায় ব্রিজের এই অবস্থা।

এব্যাপারে জানতে চাইলে সিন্দুরখান ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড সদস্য মো. শাহিন মিয়া বলেন, ব্রিজটি ভেঙে গিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে আছে। বিষয়টি তিনি ইউপি চেয়ারম্যানকে অবহিত করেছেন। ব্রিজটি এতো অল্পদিনে দেবে যাবার কারণ জানতে চাইলে তিনি অভিযোগ করে বলেন, বছরের পর বছর ধরে ব্রিজের নিচ থেকে বালু উত্তোলন করে আসছে বালু ব্যবসায়ী একটি চক্র। ব্রিজের নিচ থেকে অতিরিক্ত বালু উত্তোলনের কারণে এবং বালুবাহী ট্রাক চলাচল করায় ব্রিজটি অকালে ভেঙে পড়েছে। আধা ভাঙা এ ব্রিজ দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয় বাসিন্দা সাইফুর রহমান মুহিত বলেন, সম্প্রতিকালে অতিবৃষ্টি আর পাহাড়ী ঢলে ব্রিজটি দেবে গিয়ে স্থানীয়দের চলাচলে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। মাত্র ৬/৭ বছরের মধ্যে এ ব্রিজটি দেবে গেছে। এতে ছিমাইলত, হুগলিয়া ছড়া, জাম্বুরা ছড়া ও সরকারেরগাঁও এর হাজার হাজার মানুষ ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন।

হুগলিয়া গ্রামের প্রবাসী হেলাল উদ্দিন বলেন, ব্রিজটি ভেঙে গিয়ে এখন চলাচলের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে আছে। তিনি আরও বলেন, ব্রিজটি নির্মাণের সময় এর কাজ নিম্নমানের হয়েছে কিনা বিষয়টি খতিয়ে দেখার অনুরোধ জানান। এ ব্রিজের উপর দিয়ে একটি চা বাগান ও কয়েকটি গ্রামের হাজার হাজার মানুষ ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন। তিনি দ্রুততম সময়ের মধ্যে এখানে নতুন ব্রিজ নির্মাণের দাবি জানান।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ইয়াছিন আরাফাত রবিন বলেন, সম্প্রতি সময়ে অতিবৃষ্টি আর পাহাড়ী ঢলে ভেঙে পড়া এ ব্রিজ দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে স্থানীয়রা চলাচল করছেন। এখানে নতুন একটি ব্রিজ নির্মাণ করার দাবি জানান তিনি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ব্রিজের বিষয়টি এখন জানতে পারলাম। ২/১দিনের মধ্য পরিদর্শন করে এখানে একটি নতুন ব্রিজ নির্মানের ব্যবস্থা করা হবে।

শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আবু তালেব বলেন, সম্প্রতি পাহাড়ী ঢলে শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন রাস্তা-ঘাট ভেঙে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ব্রিজটি পরিদর্শন করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

বালু উত্তোলনে ব্রিজ ভেঙে পড়ায় চরম দুর্ভোগে এলাকাবাসী

আপডেট সময় : ০৩:৪৫:৩৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলার সিন্দুরখাঁন ইউনিয়নের কটিয়ারকোনা গ্রামের উদনাছড়ার উপর নির্মিত ব্রিজের নিচ থেকে অতিরিক্ত বালু উত্তোলন ও ভারী যানবাহন চলাচল করায় ব্রীজের মাঝখান দেবে গেছে। এতে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে ছোট ছোট যানবাহন ও স্থানীয় সাধারণ মানুষজন। এ ব্রীজ দিয়ে হুগলিয়া কমিউনিটি ক্লিনিক, চিমাইলত গ্রাম, হুগলিয়াছড়া চা বাগানবাসী, সিন্দুরখাঁন ভারতীয় সীমান্ত এলাকায় বাংলাদেশ বর্ডারগার্ড (বিজিবি) টহল দল এবং কুঞ্জবন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন। ব্রিজটি ছোট ছোট ব্রিজ নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় ২০১৪-১৫ সালে ৩১ লক্ষ ১৭ হাজার ৪৮২ টাকা ব্যায়ে নির্মাণ করা হয়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ব্রিজের মধ্যখানে দেবে গেছে। ব্রিজের পিলারের কয়েকটি অংশ ভেঙে গেছে। স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, ব্রিজের নিচ থেকে অতিরিক্ত পরিমানে বালু উত্তোলনের কারণে এবং এ পথে বালুবাহী ট্রাক চলাচল করায় ব্রিজের এই অবস্থা।

এব্যাপারে জানতে চাইলে সিন্দুরখান ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড সদস্য মো. শাহিন মিয়া বলেন, ব্রিজটি ভেঙে গিয়ে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে আছে। বিষয়টি তিনি ইউপি চেয়ারম্যানকে অবহিত করেছেন। ব্রিজটি এতো অল্পদিনে দেবে যাবার কারণ জানতে চাইলে তিনি অভিযোগ করে বলেন, বছরের পর বছর ধরে ব্রিজের নিচ থেকে বালু উত্তোলন করে আসছে বালু ব্যবসায়ী একটি চক্র। ব্রিজের নিচ থেকে অতিরিক্ত বালু উত্তোলনের কারণে এবং বালুবাহী ট্রাক চলাচল করায় ব্রিজটি অকালে ভেঙে পড়েছে। আধা ভাঙা এ ব্রিজ দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন স্থানীয়রা।

স্থানীয় বাসিন্দা সাইফুর রহমান মুহিত বলেন, সম্প্রতিকালে অতিবৃষ্টি আর পাহাড়ী ঢলে ব্রিজটি দেবে গিয়ে স্থানীয়দের চলাচলে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। মাত্র ৬/৭ বছরের মধ্যে এ ব্রিজটি দেবে গেছে। এতে ছিমাইলত, হুগলিয়া ছড়া, জাম্বুরা ছড়া ও সরকারেরগাঁও এর হাজার হাজার মানুষ ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন।

হুগলিয়া গ্রামের প্রবাসী হেলাল উদ্দিন বলেন, ব্রিজটি ভেঙে গিয়ে এখন চলাচলের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে আছে। তিনি আরও বলেন, ব্রিজটি নির্মাণের সময় এর কাজ নিম্নমানের হয়েছে কিনা বিষয়টি খতিয়ে দেখার অনুরোধ জানান। এ ব্রিজের উপর দিয়ে একটি চা বাগান ও কয়েকটি গ্রামের হাজার হাজার মানুষ ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছেন। তিনি দ্রুততম সময়ের মধ্যে এখানে নতুন ব্রিজ নির্মাণের দাবি জানান।

এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ইয়াছিন আরাফাত রবিন বলেন, সম্প্রতি সময়ে অতিবৃষ্টি আর পাহাড়ী ঢলে ভেঙে পড়া এ ব্রিজ দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে স্থানীয়রা চলাচল করছেন। এখানে নতুন একটি ব্রিজ নির্মাণ করার দাবি জানান তিনি।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. আসাদুজ্জামান বলেন, ব্রিজের বিষয়টি এখন জানতে পারলাম। ২/১দিনের মধ্য পরিদর্শন করে এখানে একটি নতুন ব্রিজ নির্মানের ব্যবস্থা করা হবে।

শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আবু তালেব বলেন, সম্প্রতি পাহাড়ী ঢলে শ্রীমঙ্গলের বিভিন্ন রাস্তা-ঘাট ভেঙে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ব্রিজটি পরিদর্শন করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বাখ//আর