ঢাকা ০৪:০২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

বাউফলে নির্ধারিত সময়ের আগেই শতাধিক মোটর সাইকেল আটক

বাউফল (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৭:৩৬:৫০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪
  • / ৪৪৫ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নির্ধারিত সময়ের আগেই শতাধিক মোটর সাইকেল আটক করেছে বাউফল থানা পুলিশ। এতে বিপাকে পড়েছেন বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভুক্তভোগীরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, আগামী ২১ মে দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত হবে বাউফল উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী ভোটের আগে ও পরে ৩ দিন মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ থাকবে। গত ৯ মে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের উপসচিব মো. আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত এক আদেশে বলা হয়েছে ১৯ মে দিবাগত মধ্যরাত ১২ টা থেকে ২২ মে দিবাগত মধ্যরাত ১২ টা পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে।

এই নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে হঠাৎ শুক্রবার বিকালে বাউফল থানা পুলিশের একাধিক টিম বিভিন্ন স্থানে চেকপোষ্ট বসিয়ে শতাধিক মোটর সাইকেল আটক করে। এতে বিপাকে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। একটি সিমেন্ট কোম্পানীর ডিলার মো. ইছাহাক বলেন, পৌরশহরের গোলাবাড়ি এলাকায় আমাদের কোম্পানীর এক রিটেইলারের কাছে তাগাদা দিয়ে কালাইয়া বন্দরে আসার পথে থানার সামনে আমার বাইক আটকে দেয়া হয়।

এরপর বলা হয় নির্বাচন কমিশনের নিষেধাজ্ঞা থাকায় বাইক চালাতে পারবেন না। বাইকটি আটকে রাখলে ব্যবসার ক্ষতি হবে বলার পরও পুলিশ তার কথার কর্নপাত করেননি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে মোটর সাইকেল চালিয়ে উপার্জন করা এক যুবক বলেন, এখনও ২দিন সময় বাকি আছে। হঠাৎ করে নির্বাচন কমিশনের দোহাই দিয়ে বাইক আটক করায় বিপাকে পড়েন এই পেশার সঙ্গে জড়িতরা।

অবশ্য পুলিশের বিরুদ্ধে বাইক আটক করে বাণিজ্য করারও অভিযোগ উঠেছে। ২ থেকে ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে বাইক ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ করেছেন একাধিক ভুক্তভোগী। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে বাউফল থানার ওসি শোনিত কুমার গায়েন বলেন, নির্বাচন কমিশনের নিষেধাজ্ঞা ও উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের নির্দেশ থাকায় মোটর সাইকেল আটক অভিযান চলছে। আগামী ২২ মে পর্যন্ত চলবে এই অভিযান। যারা মোটর সাইকেল আটক বাণিজ্যের অভিযোগ করেছেন তা সঠিক নয়।

 

বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

বাউফলে নির্ধারিত সময়ের আগেই শতাধিক মোটর সাইকেল আটক

আপডেট সময় : ০৭:৩৬:৫০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

নির্ধারিত সময়ের আগেই শতাধিক মোটর সাইকেল আটক করেছে বাউফল থানা পুলিশ। এতে বিপাকে পড়েছেন বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ। বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভুক্তভোগীরা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, আগামী ২১ মে দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত হবে বাউফল উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী ভোটের আগে ও পরে ৩ দিন মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ থাকবে। গত ৯ মে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের উপসচিব মো. আতিয়ার রহমান স্বাক্ষরিত এক আদেশে বলা হয়েছে ১৯ মে দিবাগত মধ্যরাত ১২ টা থেকে ২২ মে দিবাগত মধ্যরাত ১২ টা পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচলের উপর নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে।

এই নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে হঠাৎ শুক্রবার বিকালে বাউফল থানা পুলিশের একাধিক টিম বিভিন্ন স্থানে চেকপোষ্ট বসিয়ে শতাধিক মোটর সাইকেল আটক করে। এতে বিপাকে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। একটি সিমেন্ট কোম্পানীর ডিলার মো. ইছাহাক বলেন, পৌরশহরের গোলাবাড়ি এলাকায় আমাদের কোম্পানীর এক রিটেইলারের কাছে তাগাদা দিয়ে কালাইয়া বন্দরে আসার পথে থানার সামনে আমার বাইক আটকে দেয়া হয়।

এরপর বলা হয় নির্বাচন কমিশনের নিষেধাজ্ঞা থাকায় বাইক চালাতে পারবেন না। বাইকটি আটকে রাখলে ব্যবসার ক্ষতি হবে বলার পরও পুলিশ তার কথার কর্নপাত করেননি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে মোটর সাইকেল চালিয়ে উপার্জন করা এক যুবক বলেন, এখনও ২দিন সময় বাকি আছে। হঠাৎ করে নির্বাচন কমিশনের দোহাই দিয়ে বাইক আটক করায় বিপাকে পড়েন এই পেশার সঙ্গে জড়িতরা।

অবশ্য পুলিশের বিরুদ্ধে বাইক আটক করে বাণিজ্য করারও অভিযোগ উঠেছে। ২ থেকে ৫ হাজার টাকার বিনিময়ে বাইক ছেড়ে দেয়ার অভিযোগ করেছেন একাধিক ভুক্তভোগী। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করে বাউফল থানার ওসি শোনিত কুমার গায়েন বলেন, নির্বাচন কমিশনের নিষেধাজ্ঞা ও উর্দ্ধতন কতৃপক্ষের নির্দেশ থাকায় মোটর সাইকেল আটক অভিযান চলছে। আগামী ২২ মে পর্যন্ত চলবে এই অভিযান। যারা মোটর সাইকেল আটক বাণিজ্যের অভিযোগ করেছেন তা সঠিক নয়।

 

বাখ//আর