ঢাকা ০৩:১৪ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ৮ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী পাইপলাইনের উদ্বোধন

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১০:৫৪:৩৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মার্চ ২০২৩
  • / ৪৪৯ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভারত-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ পাইপলাইনের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আজ (শনিবার) বিকেলে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দিনাজপুরের পার্বতীপুর জ্বালানি তেলের ডিপো ‘ফ্রেন্ডশিপ পাইপলাইন’ উদ্বোধন করেন তারা। এর মধ্য দিয়ে শিলিগুঁড়ির নুমালীগড় রিফাইনারি থেকে ডিজেল আমদানির জন্য বিপিসির পার্বতীপুরের রিসিভ টার্মিনাল থেকে উত্তরের ১৬ জেলায় নিরবচ্ছিন্নভাবে জ্বালানি তেল সরবরাহ করা হবে।

জ্বালানি সংকট নিরসনে উত্তরাঞ্চলে নতুন দ্বার খুললো আজ। ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী পাইপলাইনের মাধ্যমে দিনাজপুরের পার্বতীপুর ডিপোতে সরাসরি ডিজেল আসবে। বিকেল সাড়ে ৫টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মৈত্রী এই পাইপলাইনের উদ্বোধন করেন।

প্রায় ১৩২ কিলোমিটার দীর্ঘ এই পাইপলাইনের উদ্বোধন উপলক্ষ্যে এখন সাজ সাজ রব দিনাজপুরের পার্বতীপুরে। এই অঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনের আশা পূরণ হতে চলায় সন্তোষ প্রকাশ করেন তারা। আশা করছেন, জ্বালানি সংকট নিরসনের পাশাপাশি চাষাবাদে সেচ সুবিধা বাড়বে।

বিপিসি জানিয়েছে, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের শিলিগুড়ি থেকে পার্বতীপুরের ডিপোতে ডিজেল আমদানি করা হবে। নুমালীগড় রিফাইনারির শিলিগুড়ি মার্কেটিং টার্মিনাল থেকে বর্ডার অতিক্রম করে বাংলাদেশের পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা সীমান্ত দিয়ে নীলফামারী, দিনাজপুর হয়ে পার্বতীপুর ডিপোতে সংযুক্ত হয়েছে পাইপলাইনটি।

জ্বালানি বিভাগ বলছে, দেশের উত্তরাঞ্চলের ১৬টি জেলায় নিরবচ্ছিন্নভাবে ডিজেল সরবরাহ ও নীলফামারীর সৈয়দপুরের ১৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্রসহ এ অঞ্চলের জ্বালানি সংকটের সমাধান হবে। এতে খরচও অর্ধেক কমবে।

বিপিসি জানিয়েছে, ১৫ বছরের চুক্তিতে প্রথম ৩ বছর পাইপ লাইনে বছরে ২ লাখ মেট্রিক টন ডিজেল দেবে ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ত¡ প্রতিষ্ঠান নুমালীগড় রিফাইনারী লিমিটেড। চতুর্থ বছর থেকে ৫ লাখ টন ও বাকি ১০ বছরে ১০ লাখ টন করে তেল আসবে। চুক্তিটি নবায়ন না হলে পাইপ লাইনের মালিকানা ও কর্তৃত্ব বাংলাদেশের কাছে থাকবে।

ভারতের শিলিগুড়ির নুমালিগড় রিফাইনারি মার্কেটিং টার্মিনাল থেকে বাংলাদেশের দিনাজপুরের পার্বতীপুর ডিপো পর্যন্ত ১৩২ কিলোমিটার পাইপলাইন নির্মাণ শুরু হয় ২০১৮ সালে। গত বছর ডিসেম্বরে নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। এই পাইপলাইন দিয়ে আসা তেল পার্বতীপুর ডিপোতে মজুদ করা যাবে ৪৩ হাজার মেট্রিক টন। যা দিয়ে উত্তরের ১৬ জেলায় ৬০ দিন চলবে বলে জানিয়েছে বিপিসি।

নিউজটি শেয়ার করুন

বাংলাদেশ-ভারত মৈত্রী পাইপলাইনের উদ্বোধন

আপডেট সময় : ১০:৫৪:৩৪ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মার্চ ২০২৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভারত-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ পাইপলাইনের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আজ (শনিবার) বিকেলে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে দিনাজপুরের পার্বতীপুর জ্বালানি তেলের ডিপো ‘ফ্রেন্ডশিপ পাইপলাইন’ উদ্বোধন করেন তারা। এর মধ্য দিয়ে শিলিগুঁড়ির নুমালীগড় রিফাইনারি থেকে ডিজেল আমদানির জন্য বিপিসির পার্বতীপুরের রিসিভ টার্মিনাল থেকে উত্তরের ১৬ জেলায় নিরবচ্ছিন্নভাবে জ্বালানি তেল সরবরাহ করা হবে।

জ্বালানি সংকট নিরসনে উত্তরাঞ্চলে নতুন দ্বার খুললো আজ। ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী পাইপলাইনের মাধ্যমে দিনাজপুরের পার্বতীপুর ডিপোতে সরাসরি ডিজেল আসবে। বিকেল সাড়ে ৫টায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মৈত্রী এই পাইপলাইনের উদ্বোধন করেন।

প্রায় ১৩২ কিলোমিটার দীর্ঘ এই পাইপলাইনের উদ্বোধন উপলক্ষ্যে এখন সাজ সাজ রব দিনাজপুরের পার্বতীপুরে। এই অঞ্চলের মানুষের দীর্ঘদিনের আশা পূরণ হতে চলায় সন্তোষ প্রকাশ করেন তারা। আশা করছেন, জ্বালানি সংকট নিরসনের পাশাপাশি চাষাবাদে সেচ সুবিধা বাড়বে।

বিপিসি জানিয়েছে, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের শিলিগুড়ি থেকে পার্বতীপুরের ডিপোতে ডিজেল আমদানি করা হবে। নুমালীগড় রিফাইনারির শিলিগুড়ি মার্কেটিং টার্মিনাল থেকে বর্ডার অতিক্রম করে বাংলাদেশের পঞ্চগড়ের বাংলাবান্ধা সীমান্ত দিয়ে নীলফামারী, দিনাজপুর হয়ে পার্বতীপুর ডিপোতে সংযুক্ত হয়েছে পাইপলাইনটি।

জ্বালানি বিভাগ বলছে, দেশের উত্তরাঞ্চলের ১৬টি জেলায় নিরবচ্ছিন্নভাবে ডিজেল সরবরাহ ও নীলফামারীর সৈয়দপুরের ১৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্রসহ এ অঞ্চলের জ্বালানি সংকটের সমাধান হবে। এতে খরচও অর্ধেক কমবে।

বিপিসি জানিয়েছে, ১৫ বছরের চুক্তিতে প্রথম ৩ বছর পাইপ লাইনে বছরে ২ লাখ মেট্রিক টন ডিজেল দেবে ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ত¡ প্রতিষ্ঠান নুমালীগড় রিফাইনারী লিমিটেড। চতুর্থ বছর থেকে ৫ লাখ টন ও বাকি ১০ বছরে ১০ লাখ টন করে তেল আসবে। চুক্তিটি নবায়ন না হলে পাইপ লাইনের মালিকানা ও কর্তৃত্ব বাংলাদেশের কাছে থাকবে।

ভারতের শিলিগুড়ির নুমালিগড় রিফাইনারি মার্কেটিং টার্মিনাল থেকে বাংলাদেশের দিনাজপুরের পার্বতীপুর ডিপো পর্যন্ত ১৩২ কিলোমিটার পাইপলাইন নির্মাণ শুরু হয় ২০১৮ সালে। গত বছর ডিসেম্বরে নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। এই পাইপলাইন দিয়ে আসা তেল পার্বতীপুর ডিপোতে মজুদ করা যাবে ৪৩ হাজার মেট্রিক টন। যা দিয়ে উত্তরের ১৬ জেলায় ৬০ দিন চলবে বলে জানিয়েছে বিপিসি।