সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:১৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
আমি বৈবাহিক ধর্ষণের শিকার : বাঁধন বিদেশি লবিস্টদের পরামর্শে ১০ ডিসেম্বর বিএনপির সমাবেশ : পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ভারতের বিপক্ষে জয়ে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন এই পারফরম্যান্স আমার জন্য সত্যিই স্মরণীয়: মিরাজ নাইজেরিয়ায় মসজিদে বন্দুক হামলা, ইমামসহ নিহত ১২ এম্বাপ্পের জাদুতে কোয়ার্টার ফাইনালে ফ্রান্স মশক নিধন কার্যক্রমে কর্মীদের অবহেলা পেলে কঠোর ব্যবস্থা : মেয়র আতিক নেছারাবাদ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ভারতের বিপক্ষে জয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে রাসিক মেয়রের অভিনন্দন ১০ তারিখে বিএনপি পাকিস্তানিদের মতোই আত্মসমর্পণ করবে: তথ্যমন্ত্রী রাজশাহীতে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান শেখ মনি’র জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত আজ অব্দি শাকিব খানের কাছ থেকে আর্থিক সহায়তা নিইনি: বুবলী রাজশাহীতে লোকাল গর্ভনমেন্ট কোভিড-১৯ রিসপন্স এন্ড রিকভারি প্রজেক্ট বাস্তবায়ন ভিত্তিক কর্মশালা অনুষ্ঠিত রাসিক মেয়রের সাথে লোকাল গভর্নমেন্ট কোভিড-১৯ রিসপন্স এন্ড রিকভারি প্রজেক্টের প্রতিনিধিদের সৌজন্য সাক্ষাৎ মিরাজের বীরত্বে রুদ্ধশ্বাস জয় বাংলাদেশের

বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস পালিত

রাজশাহী ব্যুরোঃ
সোমবার ১০ অক্টোবর ছিল বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস।বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি কর্মশালার মাধমে এই দিবসটি পালিত হয়। কর্মশালাটি আয়োজন করে বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগ।সভাপতিত্ব করেন বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত উপ-উপাচার্য প্রফেসর আশিক মোসাদ্দিক। মূল বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাসিরুল্লাহ সাইকোথেরাপি ইউনিটের মেন্টাল হেলথ প্রোজেক্ট কোঅর্ডিনেটর সাইমা কমর।
সকাল ১১ টায় উপ-উপাচার্য প্রফেসর আশিক মোসাদ্দিক-এর বক্তব্যের মধ্য দিয়ে কর্মশালাটি শুরু হয়। প্রফেসর আশিক মোসাদ্দিক বলেন, ‘পৃথিবীর সব মানুষের কাছে মনের অসুখ নিয়ে সচেতনতা বাড়ানোর দিন আজ। ১৯৯২ সালে প্রথমবার এই দিনটি পালন করা হয়। সেই থেকে প্রতি বছরই ১০ অক্টোবর দিনটিকে মানসিক স্বাস্থ্য দিবস হিসেবে পালন করা হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডাব্লিওএইচও ) এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করেছে। মেকিং মেন্টাল হেলথ অ্যান্ড ওয়েল-বিয়িং ফর অল অ্যা গ্লোবাল প্রায়োরিটি। অর্থাৎ সবার জন্য মানসিক স্বাস্থ্য ও সুস্থতাকে বিশ্বব্যাপী অগ্রাধিকার দিন।’
মূল বক্তা সাইমা কমর বলেন, ‘বিশ্ব মানসিক স্বাস্থ্য দিবস হলো পৃথিবীর সবার মানসিক স্বাস্থ্যশিক্ষা, সচেতনতার দিন। কিছু দেশে একে মানসিক রোগ সচেতনতা সপ্তাহের অংশ হিসেবে পালন করা হয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, বিশ্বে প্রতি ৪০ সেকেন্ডের মধ্যে কেউ না কেউ আত্মহত্যায় প্রাণ হারান। আত্মহত্যাজনিত মৃত্যুর অধিকাংশই প্রতিরোধযোগ্য। অধিকাংশ ব্যক্তিই আত্মহত্যার সময় কোনো না কোনো মানসিক রোগে আক্রান্ত থাকেন। শরীর এবং মন এ দুই নিয়ে হচ্ছে মানুষ। শরীরবিহীন যেমন মানুষের অস্তিত্ব কল্পনা করা যায় না, তেমনি মনবিহীন মানুষও অসম্ভব। সুস্থ-সুন্দরভাবে জীবনযাপন করতে গেলে সুস্থ শরীর এবং সুস্থ মন সমানভাবে গুরুত্বপূর্ণ। দেশে ৩ কোটি মানুষ মানসিক সমস্যায় ভুগছে। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে মানসিক সমসায় ভুক্তভুগির সংখ্যাই বাংলাদেশ শীর্ষে ।’
তিনি আরও বলেন, ‘কোভিড মহামারির কারণে বর্তমানে মানসিক রোগে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা এখন অনেক বেশি। কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত ব্যক্তি, যাঁরা আক্রান্ত হয়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন এবং আক্রান্ত ব্যক্তি ছাড়াও পরিবারের সদস্য ও সমাজের নারী, শিশু ও বৃদ্ধদের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য দেখায় যে, ঈঙঠওউ-১৯ মহামারী বিশ্বব্যাপী উদ্বেগ এবং বিষন্নতার প্রকোপ ২৫ শতাংশ বৃদ্ধি করেছে। দুশ্চিন্তা ও হতাশার ক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ শীর্ষে করোনাকালের ৩৫টি জরিপ প্রতিবেদনে অংশ নেওয়া ৪১ হাজার ৪০২ জনের মানসিক অবস্থা পর্যালোচনা:
দুশ্চিন্তা ও হতাশায় ভুগছে যথাক্রমে- বাংলাদেশ ৫২.৩%, ৪৮.২%। নেপাল ৪৯.৬%, ২০.৯%।পাকিস্তান ৫০.৪%, ৪১.৬%। ভারত ৩৪.৭%, ৩০.৭%।
সূত্র : ‘প্রিভিলেন্স অব এনজাইটি অ্যান্ড ডিপ্রেশন ইন সাউথ এশিয়া ডিউরিং কোভিড-১৯ : আ সিস্টেমেটিক রিভিউ অ্যান্ড মেটা-অ্যানালাইসিস’
সাইমা কমর বলেন, ‘মানসিক সমস্যা ও মানসিক অসুস্থতা দুটো আলাদা বিষয়। বড় ধরনের মানসিক অসুস্থতা ৪০ বছরের বয়সের আগেই শুরু হয়। আর হতাশাজনিত অসুস্থতা বাড়ে বয়স বাড়লে। কোভিডে সমাজের বড় একটি অংশ অর্থনৈতিক ও সামাজিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে । এটা মানসিক স্বাস্থ্য এর উপর বড় প্রভাব ফেলেছে। লোকলজ্জার ভয় ঝেরে ফেলে প্রত্যেককে তাঁর নিজের মানসিক অবস্থা যাচাই করা প্রয়োজন। কেউ যদি অনুভব করেন যে তাঁর মানুষের সঙ্গে চলাফেরা করতে সমস্যা হচ্ছে। তাহলে অবশ্যই তিনি মানসিক সমস্যায় ভুগছেন। এ ক্ষেত্রে প্রিয় মানুষদের সাথে কথা বলা দরকার। আরও কিছু উপায় আছে, যেগুলো পালন করলে ভাল প্রশান্তি পাওয়া যায়। মেডিটেশন, ধ্যানের অভ্যাস মনকে শান্ত করা এবং একাগ্রতা বাড়ানোর অন্যতম সেরা উপায়। ধ্যান মানসিক চাপ কমায় এবং শারীরিকভাবেও সুস্থ রাখে। এটি রক্তচাপ কমাতে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে এবং রক্তে শর্করার মাত্রা কমাতেও সাহায্য করতে পারে। রাতে শান্তিতে ঘুমান, ঘুম এবং মস্তিষ্কের স্বাস্থ্য একে অপরের সাথে সরাসরি সংযুক্ত। তাই রাতে শান্তিতে ঘুমানোর চেষ্টা করুন। সময়মতো ঘুমাতে যান এবং সময়মতো ঘুম থেকে উঠুন। এমনকি সপ্তাহান্তেও এই রুটিন মেনে চলার চেষ্টা করুন।’
তিনি কর্মশালার শেষে উপস্থিত সকলকে  ব্রিদিং এক্সারসাইজ করান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *