ঢাকা ০৭:০০ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৫ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার পেলেন কৃষি অফিসার-রোস্তম আলী

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:০৯:৩৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ অক্টোবর ২০২২
  • / ৪৮১ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

 তোফায়েল আহমেদ, সিরাজগঞ্জ থেকে :

ছাদ কৃষি ও বিভাগীয় কাজে অনন্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার-১৪২৬ পেয়েছেন সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি অফিসার রোস্তম আলী। গতকাল বুধবার (১২- অক্টোবর) সকালে ঢাকা ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে যোগদান করে এই পদক দেন।

কৃষি মন্ত্রণালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কৃষিমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি ট্রাস্টের চেয়ারম্যান ডঃ মোঃ আব্দুর রাজ্জাক। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বেগম মতিয়া চৌধুরী এমপি।

কৃষিবিদ রোস্তম আলী ১৯৮০ সালে ৯-সেপ্টেম্বর রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার তাহিয়ারপুর গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে গোলজার হোসেন এবং আঞ্জু আরা বেগমের ঘর আলোকিত করে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বালুরচর কাশিনাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ৫ম শ্রেণী, ফকিরহাট পাবলিক দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং মিঠাপুকুর ডিগ্রী কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। সেখান থেকেই গ্রাজুয়েশন এবং মাস্টার্স শেষ করে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে যোগদান করেন।  চাকুরী জীবনে তিনি বিভিন্ন জায়গায় সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করে ২০১৬ সালে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন। তাঁর অফিসে ছাদেই বাগান স্থাপন করে স্থানীয়দের এ বিষয়ে আগ্রহী করে তুলেছেন। তাঁর অফিসের ছাদ বাগানে প্রায় ২০ প্রজাতির ফল, ১৪ প্রজাতির শাক-সবজি এবং ৫০ প্রজাতির ঔষুধী/অরনামেন্টালসহ অসংখ্য গাছ রয়েছে। তিনি ছাদে চারা উৎপাদন করে এলাকার কৃষক ও আগ্রহী ব্যক্তিদের মাঝে বিতরণ করেছেন। এ ছাদ বাগানে জৈব সার ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও তিনি সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় আউশ ধান, সরিষা, মুগ, মসুর, চিনাবাদাম, মাসকলাই, তিশি, খেশারী, মরিচ, ভুট্টা ইত্যাদির আবাদ বৃদ্ধি, সেক্স ফেরোমন ফাঁদ, সবুজ সার হিসেবে ধৈঞ্চা,লাইনে ধান রোপন, পার্চিং, আদর্শ বীজতলা স্থাপন, ভাসমান পদ্ধতিতে চারা উৎপাদন, ভার্মি কম্পোষ্ট উৎপাদন বৃদ্ধিতে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করেছেন। একজন দায়িত্বশীল মাঠ কর্মকর্তা হিসেবে কৃষি সম্প্রসারণে অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ মোঃ রোস্তম আলী বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার-১৪২৬ এর ব্রোঞ্জ পদক পেয়েছেন।

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ রোস্তম আলী জানান, প্রায় ছয় বছর যাবত সিরাজগঞ্জ সদর কৃষি অফিসের ছাদে চারা উৎপাদন ও নিজস্ব অর্থায়নে ফলজ চারা ক্রয়ের মাধ্যমে ছাদ-কৃষিতে-সিরাজগঞ্জ ফেসবুক গ্রুপ ব্যবহারের মাধ্যমে ছাদ বাগানী নির্বাচন ও কৃষি অফিসের ছাদে উৎপাদিত চারা বিনামুল্যে বিতরণ করে আসছি। এ পর্যন্ত ২০০০ জনকে ছাদে উৎপাদিত সবজি ও ফলের আনুমানিক ৭০০০০টি চারা বিতরণ করেছি।

এছাড়া বিভাগীয় কৃষি প্রযুক্তি বিস্তারে যেমন আউশ আবাদ বৃদ্ধি, পুষ্টি বাগান বৃদ্ধি, জৈব বালাইনাশক ফেরোমন ট্রাপ ও হলুদ ফাঁদের ব্যবহার, বীজ উৎপাদন ও সংরক্ষণ, নতুন নতুন জাত ও ফসল আবাদ বৃদ্ধি, শস্য বিন্যাস পরিবর্তন, উচ্চ মুল্যের ফসল আবাদ বৃদ্ধি, সারা বছরব্যাপী চাষযোগ্য ফলবাগান, খামার যান্ত্রিকীকরণ, তরুন কৃষি উদ্যোক্তা সৃষ্টি এবং বিশেষ কার্যক্রম- যেমন তাল বীজ রোপন, সজিনার ডাল লাগানো, ভাসমান পদ্ধতিতে চারা উৎপাদন ও ভার্মি কম্পোষ্ট উৎপাদনকারী কৃষক বৃদ্ধি ও ব্যবহারসহ উল্লেখযোগ্য সাফল্য যা কৃষির বানিজ্যিকীকরণ ও যান্ত্রিকীকরণে ভুমিকা রয়েছে। এই কৃষি কর্মকর্তা সিরাজগঞ্জ বাসীর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বলেন; বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার প্রাপ্তিতে আমার দায়িত্ব আরো বেড়ে গেল। আমি সব সময় কৃষি ও কৃষকের পাশে ছিলাম এবং আগামীতেও থাকব।

নিউজটি শেয়ার করুন

বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার পেলেন কৃষি অফিসার-রোস্তম আলী

আপডেট সময় : ০৩:০৯:৩৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ অক্টোবর ২০২২

 তোফায়েল আহমেদ, সিরাজগঞ্জ থেকে :

ছাদ কৃষি ও বিভাগীয় কাজে অনন্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার-১৪২৬ পেয়েছেন সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি অফিসার রোস্তম আলী। গতকাল বুধবার (১২- অক্টোবর) সকালে ঢাকা ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভার্চুয়ালের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আনুষ্ঠানিকভাবে যোগদান করে এই পদক দেন।

কৃষি মন্ত্রণালয় আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কৃষিমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি ট্রাস্টের চেয়ারম্যান ডঃ মোঃ আব্দুর রাজ্জাক। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি বেগম মতিয়া চৌধুরী এমপি।

কৃষিবিদ রোস্তম আলী ১৯৮০ সালে ৯-সেপ্টেম্বর রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার তাহিয়ারপুর গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে গোলজার হোসেন এবং আঞ্জু আরা বেগমের ঘর আলোকিত করে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি বালুরচর কাশিনাথপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ৫ম শ্রেণী, ফকিরহাট পাবলিক দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি এবং মিঠাপুকুর ডিগ্রী কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। সেখান থেকেই গ্রাজুয়েশন এবং মাস্টার্স শেষ করে বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরে যোগদান করেন।  চাকুরী জীবনে তিনি বিভিন্ন জায়গায় সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করে ২০১৬ সালে সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন। তাঁর অফিসে ছাদেই বাগান স্থাপন করে স্থানীয়দের এ বিষয়ে আগ্রহী করে তুলেছেন। তাঁর অফিসের ছাদ বাগানে প্রায় ২০ প্রজাতির ফল, ১৪ প্রজাতির শাক-সবজি এবং ৫০ প্রজাতির ঔষুধী/অরনামেন্টালসহ অসংখ্য গাছ রয়েছে। তিনি ছাদে চারা উৎপাদন করে এলাকার কৃষক ও আগ্রহী ব্যক্তিদের মাঝে বিতরণ করেছেন। এ ছাদ বাগানে জৈব সার ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও তিনি সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় আউশ ধান, সরিষা, মুগ, মসুর, চিনাবাদাম, মাসকলাই, তিশি, খেশারী, মরিচ, ভুট্টা ইত্যাদির আবাদ বৃদ্ধি, সেক্স ফেরোমন ফাঁদ, সবুজ সার হিসেবে ধৈঞ্চা,লাইনে ধান রোপন, পার্চিং, আদর্শ বীজতলা স্থাপন, ভাসমান পদ্ধতিতে চারা উৎপাদন, ভার্মি কম্পোষ্ট উৎপাদন বৃদ্ধিতে কৃষকদের উদ্বুদ্ধ করেছেন। একজন দায়িত্বশীল মাঠ কর্মকর্তা হিসেবে কৃষি সম্প্রসারণে অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ মোঃ রোস্তম আলী বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার-১৪২৬ এর ব্রোঞ্জ পদক পেয়েছেন।

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ রোস্তম আলী জানান, প্রায় ছয় বছর যাবত সিরাজগঞ্জ সদর কৃষি অফিসের ছাদে চারা উৎপাদন ও নিজস্ব অর্থায়নে ফলজ চারা ক্রয়ের মাধ্যমে ছাদ-কৃষিতে-সিরাজগঞ্জ ফেসবুক গ্রুপ ব্যবহারের মাধ্যমে ছাদ বাগানী নির্বাচন ও কৃষি অফিসের ছাদে উৎপাদিত চারা বিনামুল্যে বিতরণ করে আসছি। এ পর্যন্ত ২০০০ জনকে ছাদে উৎপাদিত সবজি ও ফলের আনুমানিক ৭০০০০টি চারা বিতরণ করেছি।

এছাড়া বিভাগীয় কৃষি প্রযুক্তি বিস্তারে যেমন আউশ আবাদ বৃদ্ধি, পুষ্টি বাগান বৃদ্ধি, জৈব বালাইনাশক ফেরোমন ট্রাপ ও হলুদ ফাঁদের ব্যবহার, বীজ উৎপাদন ও সংরক্ষণ, নতুন নতুন জাত ও ফসল আবাদ বৃদ্ধি, শস্য বিন্যাস পরিবর্তন, উচ্চ মুল্যের ফসল আবাদ বৃদ্ধি, সারা বছরব্যাপী চাষযোগ্য ফলবাগান, খামার যান্ত্রিকীকরণ, তরুন কৃষি উদ্যোক্তা সৃষ্টি এবং বিশেষ কার্যক্রম- যেমন তাল বীজ রোপন, সজিনার ডাল লাগানো, ভাসমান পদ্ধতিতে চারা উৎপাদন ও ভার্মি কম্পোষ্ট উৎপাদনকারী কৃষক বৃদ্ধি ও ব্যবহারসহ উল্লেখযোগ্য সাফল্য যা কৃষির বানিজ্যিকীকরণ ও যান্ত্রিকীকরণে ভুমিকা রয়েছে। এই কৃষি কর্মকর্তা সিরাজগঞ্জ বাসীর কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বলেন; বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পুরস্কার প্রাপ্তিতে আমার দায়িত্ব আরো বেড়ে গেল। আমি সব সময় কৃষি ও কৃষকের পাশে ছিলাম এবং আগামীতেও থাকব।