ঢাকা ০৭:৩৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ২০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

ফিলিপাইনে সোনার খনির কাছে ভূমিধস, ৫৪ জনের প্রাণহানি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট সময় : ১২:৪৯:৩৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৪৫৬ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

ফিলিপাইনের দক্ষিণাঞ্চলীয় দাভাও দে ওরো প্রদেশে ভূমিধসে অন্তত ৫৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। প্রদেশের মাকো শহরে একটি সোনার খনির কাছে এই ভূমিধস হয়। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন ৩২ জন। এ ছাড়া অন্তত ৬৩ জন নিখোঁজ রয়েছে।

দাভাও দে ওরো প্রদেশের প্রশাসনের এক কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানান, গত মঙ্গলবার ভূমিধসের ঘটনা ঘটে। এর কিছু সময় পরই উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেন দুর্যোগ মোকাবিলা বিভাগের কর্মীরা।

প্রশাসনের কর্মকর্তা এডওয়ার্ড ম্যাকাপিলি বলেন, ‘দুর্যোগ মোকাবিলা বিভাগের ৩০০ জনের বেশি কর্মী উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছেন। গত ৫ দিনে ৫৪ জনের মরদেহ উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, কাদা-জঞ্জালের স্তূপের নিচে এখনও আটকা পড়ে আছেন অনেকে।’

আটকে পড়াদের মধ্যে কারো বেঁচে থাকার সম্ভাবনা রয়েছে কি না জানতে চাইলে ম্যাকাপিলি বলেন, ‘সে সম্ভাবনা খুবই কম। আমাদের উদ্ধারকারী বাহিনীর সদস্যরা তাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে। ওই এলাকায় ভারী বর্ষণ হচ্ছে। কাদায় পুরো খনি এলাকা ঢেকে গেছে এবং আরও ভূমিধসের আশঙ্কা রয়েছে। এ কারণে উদ্ধার তৎপরতা ব্যহত হচ্ছে।’

গত কয়েক সপ্তাহের প্রবল বৃষ্টিপাতে সৃষ্ট বন্যা ও ভূমিধসে দাভাও দে ওরো প্রদেশ বেশ ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। প্রাণহানির পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অনেক ঘরবাড়ি।

নিউজটি শেয়ার করুন

ফিলিপাইনে সোনার খনির কাছে ভূমিধস, ৫৪ জনের প্রাণহানি

আপডেট সময় : ১২:৪৯:৩৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ফিলিপাইনের দক্ষিণাঞ্চলীয় দাভাও দে ওরো প্রদেশে ভূমিধসে অন্তত ৫৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। প্রদেশের মাকো শহরে একটি সোনার খনির কাছে এই ভূমিধস হয়। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন ৩২ জন। এ ছাড়া অন্তত ৬৩ জন নিখোঁজ রয়েছে।

দাভাও দে ওরো প্রদেশের প্রশাসনের এক কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানান, গত মঙ্গলবার ভূমিধসের ঘটনা ঘটে। এর কিছু সময় পরই উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেন দুর্যোগ মোকাবিলা বিভাগের কর্মীরা।

প্রশাসনের কর্মকর্তা এডওয়ার্ড ম্যাকাপিলি বলেন, ‘দুর্যোগ মোকাবিলা বিভাগের ৩০০ জনের বেশি কর্মী উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছেন। গত ৫ দিনে ৫৪ জনের মরদেহ উদ্ধার করা সম্ভব হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, কাদা-জঞ্জালের স্তূপের নিচে এখনও আটকা পড়ে আছেন অনেকে।’

আটকে পড়াদের মধ্যে কারো বেঁচে থাকার সম্ভাবনা রয়েছে কি না জানতে চাইলে ম্যাকাপিলি বলেন, ‘সে সম্ভাবনা খুবই কম। আমাদের উদ্ধারকারী বাহিনীর সদস্যরা তাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে। ওই এলাকায় ভারী বর্ষণ হচ্ছে। কাদায় পুরো খনি এলাকা ঢেকে গেছে এবং আরও ভূমিধসের আশঙ্কা রয়েছে। এ কারণে উদ্ধার তৎপরতা ব্যহত হচ্ছে।’

গত কয়েক সপ্তাহের প্রবল বৃষ্টিপাতে সৃষ্ট বন্যা ও ভূমিধসে দাভাও দে ওরো প্রদেশ বেশ ক্ষয়ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। প্রাণহানির পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে অনেক ঘরবাড়ি।