ঢাকা ০৫:৩৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

ফলোআপ : সেনবাগে পরকিয়া প্রেমিকসহ স্বামীকে নৃশংস ভাবে কুপিয়ে হত্যা

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৯:৩২:৪২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৮ অগাস্ট ২০২৩
  • / ৫৩৬ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

// কাজী মো. ফখরুল ইসলাম, নোয়াখালী প্রতিনিধি //

নোয়াখালীর সেনবাগে সোমবার ৩নং ডমুরুয়া ইউনিয়নের হরিণকাটা গ্রামের ফকির বাড়িতে পরকীয়া প্রেমিককে সাথে নিয়ে স্বামী মহিন উদ্দিন (৪৫) কে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অচেতন করে নৃশংস ভাবে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগে গ্রেপ্তারকৃত স্ত্রী রজ্জবের নেছা প্রকাশ রিনা (৩৫) হত্যার ঘটনায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে নোয়াখালীর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ ইকবাল হোসাইনের আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় ওই জবানবন্দি প্রদান করেন। এ ঘটনায় অভিযুক্ত প্রেমিক মোঃ মাসুদ পলাতক রয়েছে।
নিহত মোঃ মহিন উদ্দিন উপজেলার ৩নং ডমুরুয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের হরিণকাটা গ্রামের ফকির বাড়ির মৃত রুহুল আমিনের ছেলে। সে চট্টগ্রামের ধনিয়ালাপাড়া এলাকায় নিজের একটি রেস্তোরাঁ চালাতেন। এ ঘটনায় নিহতের মা রাহেলা বেগম বাদি হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামি করে সেনবাগ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-৪, তারিখ ৭-৮-২০২৩ ইং। এর আগে রোববার দিবাগত রাত ৩টার দিকে উপজেলার ডমুরুয়া ইউনিয়নের হরিণকাটা গ্রামে ফকির বাড়িতে ওই হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটেছে। মঙ্গলবার ৮ আগস্ট ময়না তদন্ত শেষে দুপুরে লাশ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

সেনবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী এসব তথ্য নিশ্চিত করে গ্রেপ্তারকৃত আসামির বরাতে তিনি বলেন, নিহত মঈন উদ্দিন তার ব্যবসার কাজে প্রায় চট্টগ্রাম শহরে থাকতেন। এ সুযোগে গত ২-৩ বছর ধরে তার স্ত্রী রজ্জবের নেছা বাড়ির পাশের মোঃ মাসুদ (৩৫) নামে এক যুবকের সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। এর মধ্যে তারা পরস্পর অসংখ্যবার শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হন। এ নিয়ে নিহত মোঃ মহিন উদ্দিন ও স্ত্রী রজ্জবের নেছার মধ্যে দাম্পত্য কলহ দেখা দেয়। স্ত্রীর পরকীয়ার জের ধরে প্রেমিক মাসুদের সাথে নিহত মহিন উদ্দিনের বড় ধরনের শক্রতা সৃষ্টি হয়। ফলে প্রেমিক মাসুদ একাধিকবার রজ্জবের নেছার স্বামীকে হত্যার হুমকি দেয়।

ঘটনার আগের দিন পরকীয়া প্রেমিক রজ্জবের নেছাকে ১৪-১৫টি ঘুমের ওষুধ সরবরাহ করে। গত রোববার রাত ৯-১০টার দিকে দুধের সাথে মিশিয়ে সে তার স্বামীকে সবগুলো ঘুমের ওষুধ খাইয়ে দেয়। এতে সে অচেতন হয়ে যায়। রাত ৩টার দিকে পরকীয়া প্রেমিক মাসুদ ও রজ্জবের নেছা অপর দুই সহযোগীকে নিয়ে মহিন উদ্দিনকে ঘর থেকে বের করে বাড়ির উঠানে নিয়ে মাথায় উপর্যুপরী কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে।

নিউজটি শেয়ার করুন

ফলোআপ : সেনবাগে পরকিয়া প্রেমিকসহ স্বামীকে নৃশংস ভাবে কুপিয়ে হত্যা

আপডেট সময় : ০৯:৩২:৪২ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৮ অগাস্ট ২০২৩

// কাজী মো. ফখরুল ইসলাম, নোয়াখালী প্রতিনিধি //

নোয়াখালীর সেনবাগে সোমবার ৩নং ডমুরুয়া ইউনিয়নের হরিণকাটা গ্রামের ফকির বাড়িতে পরকীয়া প্রেমিককে সাথে নিয়ে স্বামী মহিন উদ্দিন (৪৫) কে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অচেতন করে নৃশংস ভাবে কুপিয়ে হত্যার অভিযোগে গ্রেপ্তারকৃত স্ত্রী রজ্জবের নেছা প্রকাশ রিনা (৩৫) হত্যার ঘটনায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে নোয়াখালীর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ ইকবাল হোসাইনের আদালতে হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় ওই জবানবন্দি প্রদান করেন। এ ঘটনায় অভিযুক্ত প্রেমিক মোঃ মাসুদ পলাতক রয়েছে।
নিহত মোঃ মহিন উদ্দিন উপজেলার ৩নং ডমুরুয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের হরিণকাটা গ্রামের ফকির বাড়ির মৃত রুহুল আমিনের ছেলে। সে চট্টগ্রামের ধনিয়ালাপাড়া এলাকায় নিজের একটি রেস্তোরাঁ চালাতেন। এ ঘটনায় নিহতের মা রাহেলা বেগম বাদি হয়ে অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামি করে সেনবাগ থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-৪, তারিখ ৭-৮-২০২৩ ইং। এর আগে রোববার দিবাগত রাত ৩টার দিকে উপজেলার ডমুরুয়া ইউনিয়নের হরিণকাটা গ্রামে ফকির বাড়িতে ওই হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটেছে। মঙ্গলবার ৮ আগস্ট ময়না তদন্ত শেষে দুপুরে লাশ পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

সেনবাগ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ইকবাল হোসেন পাটোয়ারী এসব তথ্য নিশ্চিত করে গ্রেপ্তারকৃত আসামির বরাতে তিনি বলেন, নিহত মঈন উদ্দিন তার ব্যবসার কাজে প্রায় চট্টগ্রাম শহরে থাকতেন। এ সুযোগে গত ২-৩ বছর ধরে তার স্ত্রী রজ্জবের নেছা বাড়ির পাশের মোঃ মাসুদ (৩৫) নামে এক যুবকের সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। এর মধ্যে তারা পরস্পর অসংখ্যবার শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হন। এ নিয়ে নিহত মোঃ মহিন উদ্দিন ও স্ত্রী রজ্জবের নেছার মধ্যে দাম্পত্য কলহ দেখা দেয়। স্ত্রীর পরকীয়ার জের ধরে প্রেমিক মাসুদের সাথে নিহত মহিন উদ্দিনের বড় ধরনের শক্রতা সৃষ্টি হয়। ফলে প্রেমিক মাসুদ একাধিকবার রজ্জবের নেছার স্বামীকে হত্যার হুমকি দেয়।

ঘটনার আগের দিন পরকীয়া প্রেমিক রজ্জবের নেছাকে ১৪-১৫টি ঘুমের ওষুধ সরবরাহ করে। গত রোববার রাত ৯-১০টার দিকে দুধের সাথে মিশিয়ে সে তার স্বামীকে সবগুলো ঘুমের ওষুধ খাইয়ে দেয়। এতে সে অচেতন হয়ে যায়। রাত ৩টার দিকে পরকীয়া প্রেমিক মাসুদ ও রজ্জবের নেছা অপর দুই সহযোগীকে নিয়ে মহিন উদ্দিনকে ঘর থেকে বের করে বাড়ির উঠানে নিয়ে মাথায় উপর্যুপরী কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে।