ঢাকা ১০:০২ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

প্রসেস মিলের বিষাক্ত বর্জ্যে হুমকীর মুখে জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৮:০৭:৫৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১১ জুন ২০২৩
  • / ৪৬৮ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

// শফিউল আযম, বিশেষ প্রতিনিধি //

পাবনার বেড়া উপজেলার খাস আমিনপুর গ্রামে অপরিকল্পিত ভাবে গড়ে উঠেছে ৪টি সুতা ডাইং অ্যান্ড প্রসেস মিল। এসব প্রসেস মিলে ব্যবহৃত কেমিক্যাল মিশ্রিত বিষাক্ত তরল বর্জ্য পরিশোধন না করে পাইপের সাহায্যে আত্রই নদীতে হচ্ছে। বর্তমানে সেখানে কৃষকেরা গবাদিপশু চড়ায়। বিষাক্ত তরল বর্জ্য আত্রাই নদীতে (জমে থাকা) গিয়ে পানিতে মিশছে। এতে দূষিত হচ্ছে নদীর পানি। এদিকে কারখানার বিষাক্ত তরল বর্জ্যরে পঁচা দুর্গন্ধে খাস আমিনপুরসহ আশপাশের কয়েকটি গ্রামের জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ হুমকীর মুখে পড়েছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ জানা যায়, উপজেলার জাতসাখিনী ইউনিয়নের খাস আমিনপুরে অবস্থিত প্রসেস অ্যান্ড ডাইং কারখানায় ইফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট বা বর্জ্য পরিশোধনাগার (ইটিপি) স্থাপন করা হয়নি। মালিকরা পরিবেশ অধিদপ্তর ও স্থানীয় প্রশাসনের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে বছরের পর বছর সুতা প্রসেসসহ রংয়ের কাজ অব্যাহত রেখেছে। আত্রাই নদীর পূর্বপাড়ে অবস্থিত খাস আমিনপুরে এবিএম কামরুল ইসলাম কাবুল মন্ডল, মোঃ সাবান মোল্লা, মোঃ রফিকুল ইসলাম মোল্লা, বাবু মোল্লার ৪টি প্রসেস মিল অ্যান্ড ডাইং কারখানা গড়ে উঠেছে।
এছাড়া সুতা ডাইং অ্যান্ড প্রসেস মিলে সুতা বিভিন্ন ধরণের রং করা হচ্ছে। সুতা রংয়ের কাজে এসিড, কস্টিক সোডা, ব্লিচিং পাউডারসহ বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্য ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। সুতা রংয়ের কারখানার তরল বর্জ্যের তীব্র পঁচা গন্ধ বাতাসে মিশে আশপাশের এলাকায় ছড়িয়ে পড়ায় জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ হুমকীর মুখে পড়েছে।

সরেজমিন খাস আমিনপুর ঘুরে দেখা গেছে, সুতা প্রসেস অ্যান্ড ডাইং কারখানায় কেমিক্যাল বর্জ্যের ইফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট বা বর্জ্য পরিশোধনাগার (ইটিপি) নেই। নেই বর্জ্য নিষ্কাশনের জন্য কোন সংরক্ষিত হাউস। প্রসেস মিলের বয়লার ও ডাইং কারখানা থেকে পাইপের সাহায্যে দুষিত তরল বর্জ্য নির্গত হয়ে আত্রাই নদীতে গিয়ে পড়ছে। সেখানে কৃষকেরা গরু ছাগল ভেড়া চড়ায়। নদীর পূর্বপাড়ে খাস আমিনপুর গ্রাম। প্রসেস মিলের বিষাক্ত তরল বর্জ্য আত্রই নদীতে গিয়ে পানিতে মিশছে। এতে নদীর স্বচ্ছ পানি বিবর্ণ হয়ে পড়ছে। অনেকেই নিরুপায় হয়ে ওই পানি ব্যবহার করছেন। এতে তারা চর্মরোগ, পেটেরপীড়াসহ নানা ধরনের জটিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। কারখানার পাশের খালে রাসায়নিক মিশ্রিত তরল বর্জ্য ফেলা হচ্ছে। ওই তরল বর্জ্য ভূগর্ভস্থ পানির স্তরে গিয়ে মিশছে। ফলে ভূগর্ভস্থ পানি দূষিত হয়ে পড়ছে। ওই এলাকার বেশ কিছু অগভরি নলকুপে দুর্গন্ধযুক্ত পানি উঠছে। এছাড়া নদীর জলজ উদ্ভিদ মরে যাচ্ছে। শুধু তাই নয়, রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার জনিত ধোঁয়ায় কারখানাগুলোর পার্শ্ববর্তী বাড়িঘরের চালের টিনে হলদে আবরণ পড়ছে বলে কয়েক জন জানিয়েছেন।

খাস আমিনপুরের কলেজ ছাত্র ইউসুফ আলী (ছদ্ম নাম) জানান, তার বাড়ির পাশে সুতা প্রসেস কারখানা থাকায় তাকে বিষাক্ত পরিবেশের বসবাস করতে হচ্ছে। তরল বর্জ্যরে ঝাঁঝালো দুর্গন্ধযুক্ত বাতাসে এলাকার পরিবেশ বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এ বিষয়ে স্থানীয় প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করে কোন প্রতিকার পাওয়া যায় না। আবার কারখানা মালিকেরা প্রভাবশালী হওয়ায় অনেকেই তাদের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পায় না। এ নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে চাঁপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। কারখানা মালিকদের সাথে পরিবেশ বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের গভীর সম্পর্ক রয়েছে। ফলে এ সমস্যার কোন সমাধান হচ্ছে না।

স্থানীয়দের অভিযোগ, এলাকার প্রভাবশালী প্রসেস অ্যান্ড ডাইং কারখানার মালিকরা পরিবেশ অধিদপ্তরের কিছু অসাধু কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে বছরের পর বছর ধরে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় এই ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। পরিবেশ অধিদফতরের ছাড়পত্র ছাড়াই চলছে এসব প্রসেস মিল অ্যান্ড ডাইং কারখানার ব্যবসা। এলাকার সচেতন মহল অবিলম্বে এসব প্রসেস মিল অ্যান্ড ডাইং কারখানা জনবসতিহীন এলাকায় স্থানান্তরের দাবি জানিয়েছেন।

পাবনা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নাম প্রকাশে অপারগ জনৈক প্রকৌশলী জানান, খাস আমিনপুরের বেশ কিছু নলকূপের পানির নমুনা সংগ্রহ করে রাজশাহী জোনাল ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষায় পানিতে মারাত্মক ডিজল অক্সিজেন, মেঙ্গানিস, ফসফেট, শিশা, মাত্রাতিরিক্ত আয়রন ও আর্সেনিক পাওয়া গেছে। যা মানব শরীরের জন্য অত্যন্ত হুমকি স্বরুপ বলে তিনি জানিয়েছে। প্রসেস মিল অ্যান্ড ডাইং কারখানার আশপাশের বাডীর অগভীর নলকুপে দূগন্ধযুক্ত পানি উঠে আছে। বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় এই পানি তারা বাধ্য হয়ে পান করছে। এদিকে বেড়ার খাস আমিনপুরের ৪টি প্রসেস মিল ও ডাইং কারখানার বিষাক্ত তরল বর্জ্য নদীতে ফেলায় দুষিত হচ্ছে পানি। এ কারণে মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে জনজীবন, পরিবেশ ও জলজ প্রাণি।

প্রসেস মিলের বিষাক্ত বর্জ্যে হুমকীর মুখে জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ

এ বিষয়ে জাতসাকিনী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ মানিক বলেছেন, প্রসেস মিলের কেমিক্যাল বর্জ্য আত্রাই নদীতে ফেলায় নদীর পানি ও পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। প্রসেস মিল মালিকেরা পরিকল্পিতভাবে বর্জ্য পরিশোধন করে নির্দিষ্ট স্থানে নিস্কাশন করলে দূষনের কবল থেকে জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ যেমন রক্ষা পাবে, তেমনি প্রসার ঘটবে এলাকার তাঁত শিল্পের।

প্রসেস মিলের মালিক এবিএম কামরুল ইসলাম মোবাইল ফোনে জানিয়েছেন, ইফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট বা বর্জ্য পরিশোধনাগার (ইটিপি) স্থাপন করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বর্তমানে কারখানার তরল বর্জ্য নিরাপদ স্থানে ফেলা হচ্ছে। এতে জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশের ক্ষতির কোন আশঙ্কা নেই বলে তিনি জানান।

মেডিসিন বিষেজ্ঞ ডাঃ মোঃ বদরুল হায়দার চৌধুরী বলেছেন, ডাইং অ্যান্ড প্রসেস মিলের তরল বিষাক্ত বর্জ্যের কারণে ভূগর্ভস্থ স্তরের পানিতে কলিফর্ম নামক জীবাণু জন্মায়। নলকুপের এই পানি খাওয়ায় এলাকার মানুষ চর্মরোগ ও পেটেরপীরায় আক্রান্ত হচ্ছে। এ ছাড়া লিভার, কিডনি, ফুসফুস, হৃদযন্ত্রসহ নানা ধরণের শারীরিক সমস্যায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়।

বেড়া উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা নুসরাত কবীর জানিয়েছেন, প্রসেস মিলের তরল বিষাক্ত ক্যামিক্যাল বর্জ্যে নদী ফেলা হচ্ছে। বৃষ্টির পানি নদীরপাড় উপচে জমি প্লাবিত হয়। এতে মাটির উর্বরতা শক্তি হৃস পায়। এর প্রভাবে জমির সফল উৎপাদন ক্ষমতা কমে যাচ্ছে। ক্ষেতের বিভিন্ন ফসলের চারা বড় হওয়ার আগেই কালছে রং ধারণ করে মরে যায়। এতে কৃষকরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন।

বেড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাঃ সবুর আলী বলেন, তিনি ডাইং অ্যান্ড প্রসেস মিলের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ পাননি। ডাইং অ্যান্ড প্রসেস মিলগুলো সরেজমিন পরিদর্শন করে দেখবেন। যদি দেখা যায়, সেগুলোর কারণে পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে, তাহলে প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করার হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

প্রসেস মিলের বিষাক্ত বর্জ্যে হুমকীর মুখে জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ

আপডেট সময় : ০৮:০৭:৫৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১১ জুন ২০২৩

// শফিউল আযম, বিশেষ প্রতিনিধি //

পাবনার বেড়া উপজেলার খাস আমিনপুর গ্রামে অপরিকল্পিত ভাবে গড়ে উঠেছে ৪টি সুতা ডাইং অ্যান্ড প্রসেস মিল। এসব প্রসেস মিলে ব্যবহৃত কেমিক্যাল মিশ্রিত বিষাক্ত তরল বর্জ্য পরিশোধন না করে পাইপের সাহায্যে আত্রই নদীতে হচ্ছে। বর্তমানে সেখানে কৃষকেরা গবাদিপশু চড়ায়। বিষাক্ত তরল বর্জ্য আত্রাই নদীতে (জমে থাকা) গিয়ে পানিতে মিশছে। এতে দূষিত হচ্ছে নদীর পানি। এদিকে কারখানার বিষাক্ত তরল বর্জ্যরে পঁচা দুর্গন্ধে খাস আমিনপুরসহ আশপাশের কয়েকটি গ্রামের জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ হুমকীর মুখে পড়েছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ জানা যায়, উপজেলার জাতসাখিনী ইউনিয়নের খাস আমিনপুরে অবস্থিত প্রসেস অ্যান্ড ডাইং কারখানায় ইফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট বা বর্জ্য পরিশোধনাগার (ইটিপি) স্থাপন করা হয়নি। মালিকরা পরিবেশ অধিদপ্তর ও স্থানীয় প্রশাসনের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে বছরের পর বছর সুতা প্রসেসসহ রংয়ের কাজ অব্যাহত রেখেছে। আত্রাই নদীর পূর্বপাড়ে অবস্থিত খাস আমিনপুরে এবিএম কামরুল ইসলাম কাবুল মন্ডল, মোঃ সাবান মোল্লা, মোঃ রফিকুল ইসলাম মোল্লা, বাবু মোল্লার ৪টি প্রসেস মিল অ্যান্ড ডাইং কারখানা গড়ে উঠেছে।
এছাড়া সুতা ডাইং অ্যান্ড প্রসেস মিলে সুতা বিভিন্ন ধরণের রং করা হচ্ছে। সুতা রংয়ের কাজে এসিড, কস্টিক সোডা, ব্লিচিং পাউডারসহ বিভিন্ন রাসায়নিক দ্রব্য ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। সুতা রংয়ের কারখানার তরল বর্জ্যের তীব্র পঁচা গন্ধ বাতাসে মিশে আশপাশের এলাকায় ছড়িয়ে পড়ায় জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ হুমকীর মুখে পড়েছে।

সরেজমিন খাস আমিনপুর ঘুরে দেখা গেছে, সুতা প্রসেস অ্যান্ড ডাইং কারখানায় কেমিক্যাল বর্জ্যের ইফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট বা বর্জ্য পরিশোধনাগার (ইটিপি) নেই। নেই বর্জ্য নিষ্কাশনের জন্য কোন সংরক্ষিত হাউস। প্রসেস মিলের বয়লার ও ডাইং কারখানা থেকে পাইপের সাহায্যে দুষিত তরল বর্জ্য নির্গত হয়ে আত্রাই নদীতে গিয়ে পড়ছে। সেখানে কৃষকেরা গরু ছাগল ভেড়া চড়ায়। নদীর পূর্বপাড়ে খাস আমিনপুর গ্রাম। প্রসেস মিলের বিষাক্ত তরল বর্জ্য আত্রই নদীতে গিয়ে পানিতে মিশছে। এতে নদীর স্বচ্ছ পানি বিবর্ণ হয়ে পড়ছে। অনেকেই নিরুপায় হয়ে ওই পানি ব্যবহার করছেন। এতে তারা চর্মরোগ, পেটেরপীড়াসহ নানা ধরনের জটিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। কারখানার পাশের খালে রাসায়নিক মিশ্রিত তরল বর্জ্য ফেলা হচ্ছে। ওই তরল বর্জ্য ভূগর্ভস্থ পানির স্তরে গিয়ে মিশছে। ফলে ভূগর্ভস্থ পানি দূষিত হয়ে পড়ছে। ওই এলাকার বেশ কিছু অগভরি নলকুপে দুর্গন্ধযুক্ত পানি উঠছে। এছাড়া নদীর জলজ উদ্ভিদ মরে যাচ্ছে। শুধু তাই নয়, রাসায়নিক দ্রব্য ব্যবহার জনিত ধোঁয়ায় কারখানাগুলোর পার্শ্ববর্তী বাড়িঘরের চালের টিনে হলদে আবরণ পড়ছে বলে কয়েক জন জানিয়েছেন।

খাস আমিনপুরের কলেজ ছাত্র ইউসুফ আলী (ছদ্ম নাম) জানান, তার বাড়ির পাশে সুতা প্রসেস কারখানা থাকায় তাকে বিষাক্ত পরিবেশের বসবাস করতে হচ্ছে। তরল বর্জ্যরে ঝাঁঝালো দুর্গন্ধযুক্ত বাতাসে এলাকার পরিবেশ বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এ বিষয়ে স্থানীয় প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করে কোন প্রতিকার পাওয়া যায় না। আবার কারখানা মালিকেরা প্রভাবশালী হওয়ায় অনেকেই তাদের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পায় না। এ নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে চাঁপা ক্ষোভ বিরাজ করছে। কারখানা মালিকদের সাথে পরিবেশ বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের গভীর সম্পর্ক রয়েছে। ফলে এ সমস্যার কোন সমাধান হচ্ছে না।

স্থানীয়দের অভিযোগ, এলাকার প্রভাবশালী প্রসেস অ্যান্ড ডাইং কারখানার মালিকরা পরিবেশ অধিদপ্তরের কিছু অসাধু কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে বছরের পর বছর ধরে ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় এই ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। পরিবেশ অধিদফতরের ছাড়পত্র ছাড়াই চলছে এসব প্রসেস মিল অ্যান্ড ডাইং কারখানার ব্যবসা। এলাকার সচেতন মহল অবিলম্বে এসব প্রসেস মিল অ্যান্ড ডাইং কারখানা জনবসতিহীন এলাকায় স্থানান্তরের দাবি জানিয়েছেন।

পাবনা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নাম প্রকাশে অপারগ জনৈক প্রকৌশলী জানান, খাস আমিনপুরের বেশ কিছু নলকূপের পানির নমুনা সংগ্রহ করে রাজশাহী জোনাল ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষায় পানিতে মারাত্মক ডিজল অক্সিজেন, মেঙ্গানিস, ফসফেট, শিশা, মাত্রাতিরিক্ত আয়রন ও আর্সেনিক পাওয়া গেছে। যা মানব শরীরের জন্য অত্যন্ত হুমকি স্বরুপ বলে তিনি জানিয়েছে। প্রসেস মিল অ্যান্ড ডাইং কারখানার আশপাশের বাডীর অগভীর নলকুপে দূগন্ধযুক্ত পানি উঠে আছে। বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় এই পানি তারা বাধ্য হয়ে পান করছে। এদিকে বেড়ার খাস আমিনপুরের ৪টি প্রসেস মিল ও ডাইং কারখানার বিষাক্ত তরল বর্জ্য নদীতে ফেলায় দুষিত হচ্ছে পানি। এ কারণে মারাত্মক হুমকির মুখে পড়েছে জনজীবন, পরিবেশ ও জলজ প্রাণি।

প্রসেস মিলের বিষাক্ত বর্জ্যে হুমকীর মুখে জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ

এ বিষয়ে জাতসাকিনী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ মানিক বলেছেন, প্রসেস মিলের কেমিক্যাল বর্জ্য আত্রাই নদীতে ফেলায় নদীর পানি ও পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। প্রসেস মিল মালিকেরা পরিকল্পিতভাবে বর্জ্য পরিশোধন করে নির্দিষ্ট স্থানে নিস্কাশন করলে দূষনের কবল থেকে জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশ যেমন রক্ষা পাবে, তেমনি প্রসার ঘটবে এলাকার তাঁত শিল্পের।

প্রসেস মিলের মালিক এবিএম কামরুল ইসলাম মোবাইল ফোনে জানিয়েছেন, ইফ্লুয়েন্ট ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট বা বর্জ্য পরিশোধনাগার (ইটিপি) স্থাপন করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। বর্তমানে কারখানার তরল বর্জ্য নিরাপদ স্থানে ফেলা হচ্ছে। এতে জনস্বাস্থ্য ও পরিবেশের ক্ষতির কোন আশঙ্কা নেই বলে তিনি জানান।

মেডিসিন বিষেজ্ঞ ডাঃ মোঃ বদরুল হায়দার চৌধুরী বলেছেন, ডাইং অ্যান্ড প্রসেস মিলের তরল বিষাক্ত বর্জ্যের কারণে ভূগর্ভস্থ স্তরের পানিতে কলিফর্ম নামক জীবাণু জন্মায়। নলকুপের এই পানি খাওয়ায় এলাকার মানুষ চর্মরোগ ও পেটেরপীরায় আক্রান্ত হচ্ছে। এ ছাড়া লিভার, কিডনি, ফুসফুস, হৃদযন্ত্রসহ নানা ধরণের শারীরিক সমস্যায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা থেকে যায়।

বেড়া উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা নুসরাত কবীর জানিয়েছেন, প্রসেস মিলের তরল বিষাক্ত ক্যামিক্যাল বর্জ্যে নদী ফেলা হচ্ছে। বৃষ্টির পানি নদীরপাড় উপচে জমি প্লাবিত হয়। এতে মাটির উর্বরতা শক্তি হৃস পায়। এর প্রভাবে জমির সফল উৎপাদন ক্ষমতা কমে যাচ্ছে। ক্ষেতের বিভিন্ন ফসলের চারা বড় হওয়ার আগেই কালছে রং ধারণ করে মরে যায়। এতে কৃষকরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন।

বেড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাঃ সবুর আলী বলেন, তিনি ডাইং অ্যান্ড প্রসেস মিলের বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ পাননি। ডাইং অ্যান্ড প্রসেস মিলগুলো সরেজমিন পরিদর্শন করে দেখবেন। যদি দেখা যায়, সেগুলোর কারণে পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে, তাহলে প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করার হবে বলে তিনি জানিয়েছেন।