ঢাকা ১০:০৩ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানালেন কীভাবে হলো বিস্ফোরণ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৭:৪১:১৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মার্চ ২০২৩
  • / ৪৭৯ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

রাজধানীর গুলিস্তানে নর্থ সাউথ রোডের সুরিটোলা স্কুলের কাছাকাছি একটি বহুতল ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। তবে, কী কারণে এই বিস্ফোরণ তা নিশ্চিত করেনি কেউ। যদিও স্থানীয়দের বরাতে ফায়ার সার্ভিস ও বংশাল থানা থেকে বলা হয়েছে—এসি থেকে এই বিস্ফোরণ ঘটে থাকতে পারে।

স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কয়েকজন জানান, যখন বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে, তখন আমরা বেশ দূরে ছিলাম। দূর থেকে শব্দ ভেসে আসে। মনে হয়েছিল, গাড়ির টিউব-টায়ার ফেটে গেছে। কিন্তু পরে চারদিকে ধোঁয়ায় ভরে গেল। দেখলাম, চারদিকে মানুষ ছোটাছুটি করছে। ইটের টুকরা, পলেস্তারা, কাঠের টুকরা বিছিয়ে আছে রাস্তায়। ঝুলে আছে ইন্টারনেট ও বিভিন্ন সংযোগের তার।

এক ভ্যানচালক বলেন, ‘যখন বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে, তখন আমি কাছেই ছিলাম। অল্পের জন্য যেন বেঁচে গেছি। মনে হচ্ছিল—আমার ভ্যান যেন হাওয়ায় ভাসছে।’

উদ্ধারকাজে থাকা ফায়ার সার্ভিসের সদস্য আজাদ সন্ধ্যা ছয়টার দিকে বলেন, আমরা বহু আহতকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়েছি। এসি ও ট্রান্সফরমারের বিস্ফোরণে এই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।’ এক প্রশ্নে তিনি আরও বলেন, ‘কোনটি আগে বিস্ফোরিত হয়েছে, তা এখনই বলা সম্ভব না। তা ছাড়া অন্য কোনো কারণ আছে কিনা, তাও আমরা জানি না। অফিসিয়ালি আপনাদেরকে আমাদের কর্মকর্তারা জানাবেন।’

স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কয়েকজন জানান, এতো বড় বিস্ফোরণ দশটি এসিতেও সম্ভব না। একজনের দাবি—ট্রান্সফরমারের বিস্ফোরণের পর এসি বিস্ফোরণ হতে পারে। আবার অন্যের দাবি, এসির পর ট্রান্সফরমারের বিস্ফোরণে এই ঘটনা ঘটতে পারে।

এদিকে, বিকেল পৌনে ৫টার দিকে ঘটা বিস্ফোরণে এখন পর্যন্ত আটজন নিহতের খবর পাওয়া গেছে। এ ছাড়া অর্ধশতাধিক আহত হয়েছে। তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। আহতদের মধ্যে অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

উদ্ধার অভিযানে প্রথমে ফায়ার সার্ভিসের পাঁচ ইউনিট কাজ শুরু করলেও এখন সেখানে রয়েছে ১১টি। ফায়ার সার্ভিসের দায়িত্বরত কর্মকর্তা রাশেদ বিন খালেদ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে বিস্ফোরণের ঘটনায় সদরঘাট থেকে সাভারগামী একটি বাস চূর্ণ বিচূর্ণ হয়ে গেছে। ঘটনাস্থলে থাকা ওয়াহিদুজ্জামান নামে এক প্রত্যক্ষদর্শী এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, বাসটি সদরঘাট থেকে সাভার যাচ্ছিল। এটি বিস্ফোরণের সময় ওই রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিল। বাসটির নাম সাভার পরিবহন। এর নম্বর ঢাকা মেট্রো গ ১৫-৪৩২৮। বাসটিতে ৪০-৫০ জন যাত্রী ছিলেন। ভেতরে প্রায় সবাই আহত হয়েছেন।

একই সময় রাস্তার উল্টো পাশে যত গাড়ি ছিল সব ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানান ওয়াহিদুজ্জামান।

মঙ্গলবার বিকেলে গুলিস্তানের একটি বাণিজ্যিক ভবনে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত ১৫ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছেন শতাধিক মানুষ।

নিউজটি শেয়ার করুন

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানালেন কীভাবে হলো বিস্ফোরণ

আপডেট সময় : ০৭:৪১:১৮ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মার্চ ২০২৩

রাজধানীর গুলিস্তানে নর্থ সাউথ রোডের সুরিটোলা স্কুলের কাছাকাছি একটি বহুতল ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। তবে, কী কারণে এই বিস্ফোরণ তা নিশ্চিত করেনি কেউ। যদিও স্থানীয়দের বরাতে ফায়ার সার্ভিস ও বংশাল থানা থেকে বলা হয়েছে—এসি থেকে এই বিস্ফোরণ ঘটে থাকতে পারে।

স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কয়েকজন জানান, যখন বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে, তখন আমরা বেশ দূরে ছিলাম। দূর থেকে শব্দ ভেসে আসে। মনে হয়েছিল, গাড়ির টিউব-টায়ার ফেটে গেছে। কিন্তু পরে চারদিকে ধোঁয়ায় ভরে গেল। দেখলাম, চারদিকে মানুষ ছোটাছুটি করছে। ইটের টুকরা, পলেস্তারা, কাঠের টুকরা বিছিয়ে আছে রাস্তায়। ঝুলে আছে ইন্টারনেট ও বিভিন্ন সংযোগের তার।

এক ভ্যানচালক বলেন, ‘যখন বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে, তখন আমি কাছেই ছিলাম। অল্পের জন্য যেন বেঁচে গেছি। মনে হচ্ছিল—আমার ভ্যান যেন হাওয়ায় ভাসছে।’

উদ্ধারকাজে থাকা ফায়ার সার্ভিসের সদস্য আজাদ সন্ধ্যা ছয়টার দিকে বলেন, আমরা বহু আহতকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠিয়েছি। এসি ও ট্রান্সফরমারের বিস্ফোরণে এই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।’ এক প্রশ্নে তিনি আরও বলেন, ‘কোনটি আগে বিস্ফোরিত হয়েছে, তা এখনই বলা সম্ভব না। তা ছাড়া অন্য কোনো কারণ আছে কিনা, তাও আমরা জানি না। অফিসিয়ালি আপনাদেরকে আমাদের কর্মকর্তারা জানাবেন।’

স্থানীয় ব্যবসায়ীদের কয়েকজন জানান, এতো বড় বিস্ফোরণ দশটি এসিতেও সম্ভব না। একজনের দাবি—ট্রান্সফরমারের বিস্ফোরণের পর এসি বিস্ফোরণ হতে পারে। আবার অন্যের দাবি, এসির পর ট্রান্সফরমারের বিস্ফোরণে এই ঘটনা ঘটতে পারে।

এদিকে, বিকেল পৌনে ৫টার দিকে ঘটা বিস্ফোরণে এখন পর্যন্ত আটজন নিহতের খবর পাওয়া গেছে। এ ছাড়া অর্ধশতাধিক আহত হয়েছে। তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। আহতদের মধ্যে অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

উদ্ধার অভিযানে প্রথমে ফায়ার সার্ভিসের পাঁচ ইউনিট কাজ শুরু করলেও এখন সেখানে রয়েছে ১১টি। ফায়ার সার্ভিসের দায়িত্বরত কর্মকর্তা রাশেদ বিন খালেদ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে বিস্ফোরণের ঘটনায় সদরঘাট থেকে সাভারগামী একটি বাস চূর্ণ বিচূর্ণ হয়ে গেছে। ঘটনাস্থলে থাকা ওয়াহিদুজ্জামান নামে এক প্রত্যক্ষদর্শী এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, বাসটি সদরঘাট থেকে সাভার যাচ্ছিল। এটি বিস্ফোরণের সময় ওই রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিল। বাসটির নাম সাভার পরিবহন। এর নম্বর ঢাকা মেট্রো গ ১৫-৪৩২৮। বাসটিতে ৪০-৫০ জন যাত্রী ছিলেন। ভেতরে প্রায় সবাই আহত হয়েছেন।

একই সময় রাস্তার উল্টো পাশে যত গাড়ি ছিল সব ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানান ওয়াহিদুজ্জামান।

মঙ্গলবার বিকেলে গুলিস্তানের একটি বাণিজ্যিক ভবনে ভয়াবহ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত ১৫ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছেন শতাধিক মানুষ।