ঢাকা ১২:০০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

পাইকগাছায় বাবলু ও আলিমের বিরুদ্ধে মাটি চুরির অভিযোগ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:৫০:১৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ মার্চ ২০২৩
  • / ৪৫৩ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি :
খুলনার পাইকগাছার পাউবো ও সরকারি জায়গা থেকে জনৈক বাবলু ও আলিম মাটি কেটে ইট ভাটায় বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে। বাবলু ও আলিম প্রশাসনের দোহাই দিলেও প্রশাসন বিষয়টি অস্বীকার করেছে। এলাকাবাসি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এলাকাবাসির অভিযোগ ও সরেজমিনে জানা যায়, পাইকগাছা উপজেলার চাঁদখালী ইউনিয়নের পাউবোর ১০/১২নং পোল্ডারে ফতেপুর মৌজায় স্লুইচ গেট সংলগ্ন ও কপোতাক্ষের চরভরাটি জায়গা থেকে স্কেভেটর মেশিন (ভেকু) দিয়ে মাটি কেটে পাশ্ববর্তী এডিবি ব্রিকস্ ও বিবিএম ব্রিকস্ এ লক্ষ লক্ষ টাকায় বিক্রি করছে বাবলু ও আলিমের নেতৃত্বে একটি মাটি খেকো সিন্ডিকেট। এ প্রতিনিধি সহ একঝাক সাংবাদিক গত বুধবার (৮মার্চ) বেলা ১১টায় সরেজমিনে গেলে পাউবো ও সরকারি জায়গায় স্কেভেটর মেশিন (ভেকু) দিয়ে মাটি কেটে ট্রাকে করে পাশ্ববর্তী ইট ভাটায় বিক্রি করতে দেখা যায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভেকু ড্রাইভার জানান, বাবলু ও আলিম আমাকে ঘন্টা চুক্তিতে মাটি কাটাচ্ছে। তারা নাকি সরকারের কাছ থেকে মাটি কিনেছে। তাই তারা এ মাটি কেটে পাশ্ববর্তী ইট ভাটায় বিক্রি করছে।
অভিযুক্ত বাবলু জানান, উপজেলার সহকারি কমিশনার (ভূমি) আরাফাত হোসেনের নির্দেশে মাটি কাটা হচ্ছে।
বিষয়টি তাৎক্ষণিক উপজেলা নির্বাহী অফিসার মমতাজ বেগমকে জানালে তিনি দেখছেন বলে মোবাইল রেখে দেন।
এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) আরাফাত হোসেন জানান, আমি বাবলু নামে কাউকে চিনি না। আর আমি সরকারি জায়গা থেকে কাউকে মাটি কাটার অনুমতি দেইনি। কেউ আমার নাম ব্যবহার করে সরকারি জায়গা থেকে মাটি কেটে ভাটায় বিক্রি করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্হা নেওয়া হবে।
এদিকে আরেক অভিযুক্ত আব্দুল আলিম মাটি কাটার বিষয়টি বেমালুম অস্বীকার করেন।
পাউবো’র উপ বিভাগীয় প্রকৌশলীর উপ-সহকারি কর্মকর্তা রাজু হাওলাদার জানান, মাটি চোরদের বার বার নিষেধ করা স্বত্বেও পাউবোকে কটাক্ষ করায় থানায় জিডি করা হয়েছে।
এডিবি ব্রিকসের মালিক আব্দুল জলিলের কাছে জানতে চাইলে তিনি চাঁদখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারমম্যান শাহাজাদা আবু ইলিয়াসের দোহাই দেন।
ইউপি চেয়ারম্যান শাহাজাদা আবু ইলিয়াস জানান, মাটি কাটার বিষয়ে আমি কিছু জানি না।
এ বিষয়ে এলাকাবাসি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

পাইকগাছায় বাবলু ও আলিমের বিরুদ্ধে মাটি চুরির অভিযোগ

আপডেট সময় : ০৫:৫০:১৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ মার্চ ২০২৩
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি :
খুলনার পাইকগাছার পাউবো ও সরকারি জায়গা থেকে জনৈক বাবলু ও আলিম মাটি কেটে ইট ভাটায় বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে। বাবলু ও আলিম প্রশাসনের দোহাই দিলেও প্রশাসন বিষয়টি অস্বীকার করেছে। এলাকাবাসি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। এলাকাবাসির অভিযোগ ও সরেজমিনে জানা যায়, পাইকগাছা উপজেলার চাঁদখালী ইউনিয়নের পাউবোর ১০/১২নং পোল্ডারে ফতেপুর মৌজায় স্লুইচ গেট সংলগ্ন ও কপোতাক্ষের চরভরাটি জায়গা থেকে স্কেভেটর মেশিন (ভেকু) দিয়ে মাটি কেটে পাশ্ববর্তী এডিবি ব্রিকস্ ও বিবিএম ব্রিকস্ এ লক্ষ লক্ষ টাকায় বিক্রি করছে বাবলু ও আলিমের নেতৃত্বে একটি মাটি খেকো সিন্ডিকেট। এ প্রতিনিধি সহ একঝাক সাংবাদিক গত বুধবার (৮মার্চ) বেলা ১১টায় সরেজমিনে গেলে পাউবো ও সরকারি জায়গায় স্কেভেটর মেশিন (ভেকু) দিয়ে মাটি কেটে ট্রাকে করে পাশ্ববর্তী ইট ভাটায় বিক্রি করতে দেখা যায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভেকু ড্রাইভার জানান, বাবলু ও আলিম আমাকে ঘন্টা চুক্তিতে মাটি কাটাচ্ছে। তারা নাকি সরকারের কাছ থেকে মাটি কিনেছে। তাই তারা এ মাটি কেটে পাশ্ববর্তী ইট ভাটায় বিক্রি করছে।
অভিযুক্ত বাবলু জানান, উপজেলার সহকারি কমিশনার (ভূমি) আরাফাত হোসেনের নির্দেশে মাটি কাটা হচ্ছে।
বিষয়টি তাৎক্ষণিক উপজেলা নির্বাহী অফিসার মমতাজ বেগমকে জানালে তিনি দেখছেন বলে মোবাইল রেখে দেন।
এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার বিকালে উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) আরাফাত হোসেন জানান, আমি বাবলু নামে কাউকে চিনি না। আর আমি সরকারি জায়গা থেকে কাউকে মাটি কাটার অনুমতি দেইনি। কেউ আমার নাম ব্যবহার করে সরকারি জায়গা থেকে মাটি কেটে ভাটায় বিক্রি করলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্হা নেওয়া হবে।
এদিকে আরেক অভিযুক্ত আব্দুল আলিম মাটি কাটার বিষয়টি বেমালুম অস্বীকার করেন।
পাউবো’র উপ বিভাগীয় প্রকৌশলীর উপ-সহকারি কর্মকর্তা রাজু হাওলাদার জানান, মাটি চোরদের বার বার নিষেধ করা স্বত্বেও পাউবোকে কটাক্ষ করায় থানায় জিডি করা হয়েছে।
এডিবি ব্রিকসের মালিক আব্দুল জলিলের কাছে জানতে চাইলে তিনি চাঁদখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারমম্যান শাহাজাদা আবু ইলিয়াসের দোহাই দেন।
ইউপি চেয়ারম্যান শাহাজাদা আবু ইলিয়াস জানান, মাটি কাটার বিষয়ে আমি কিছু জানি না।
এ বিষয়ে এলাকাবাসি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরি হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।