ঢাকা ০২:৩৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

পাঁচ দশকেও গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি না পাওয়া হতাশাব্যাঞ্জক : রাবি উপাচার্য 

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৬:২১:১৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মার্চ ২০২৩
  • / ৪৫৭ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি
নিহাল খান, রাজশাহী ব্যুরো :
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার বলেছেন, পাকিস্তানিরা বলে এটা গণহত্যা নয়, কিন্তু গণহত্যার সংজ্ঞা অনুসারে এটা অবশ্যই একটি গণহত্যা। পাঁচ দশক পেরিয়ে গেলেও আমরা পাকিস্তানিদের নারকীর গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাইনি।
শুক্রবার (২৪ মার্চ) বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ সিনেট ভবনে জাতীয় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি।
উপাচার্য বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হলেও তাঁর আলো সর্বত্র বিরাজমান। সেই আলো দিয়েই আমরা সকল বাঁধা উপেক্ষা করে এগিয়ে যাবো। আমরা সবাই একসাথে মিলে দাবি জানালে অবশ্যই খুব দ্রুত জাতীয় গণহত্যা দিবসকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি হিসেবে ঘোষণা দিবে জাতিসংঘ।
এছাড়াও আলোচনা সভায় রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহ আজম বলেন, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী যে সামরিক অভিযান পরিচালনা করেছিল সেখানে কমপক্ষে ৫০ হাজার মানুষকে হত্যা করা হয়।
শুধু ২৫ মার্চ নয়, স্বাধীনতা যুদ্ধের নয় মাসে যেভাবে হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে তারপরও কেন এটিকে জেনোসাইড হিসেবে সংজ্ঞায়িত করা হবে না? জাতিসংঘ জেনোসাইড কনভেনশন অনুসারে দিবসটির আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির দাবি জানান তিনি।
জাতীয় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে ওয়ান বাংলাদেশের আয়োজনে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, ওয়ান বাংলাদেশের সভাপতি অধ্যাপক মোঃ রশীদুল হাসান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়-এর অধ্যাপক ডা. নুজহাত চৌধুরী শম্পা এবং রাবির উপ-উপাচার্যদ্বয় ড. সুলতান-উল-ইসলাম এবং ড. হুমায়ুন কবীর।
বা/খ: জই

নিউজটি শেয়ার করুন

পাঁচ দশকেও গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি না পাওয়া হতাশাব্যাঞ্জক : রাবি উপাচার্য 

আপডেট সময় : ০৬:২১:১৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মার্চ ২০২৩
নিহাল খান, রাজশাহী ব্যুরো :
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার বলেছেন, পাকিস্তানিরা বলে এটা গণহত্যা নয়, কিন্তু গণহত্যার সংজ্ঞা অনুসারে এটা অবশ্যই একটি গণহত্যা। পাঁচ দশক পেরিয়ে গেলেও আমরা পাকিস্তানিদের নারকীর গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পাইনি।
শুক্রবার (২৪ মার্চ) বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ সিনেট ভবনে জাতীয় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন তিনি।
উপাচার্য বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হলেও তাঁর আলো সর্বত্র বিরাজমান। সেই আলো দিয়েই আমরা সকল বাঁধা উপেক্ষা করে এগিয়ে যাবো। আমরা সবাই একসাথে মিলে দাবি জানালে অবশ্যই খুব দ্রুত জাতীয় গণহত্যা দিবসকে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি হিসেবে ঘোষণা দিবে জাতিসংঘ।
এছাড়াও আলোচনা সভায় রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহ আজম বলেন, ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী যে সামরিক অভিযান পরিচালনা করেছিল সেখানে কমপক্ষে ৫০ হাজার মানুষকে হত্যা করা হয়।
শুধু ২৫ মার্চ নয়, স্বাধীনতা যুদ্ধের নয় মাসে যেভাবে হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে তারপরও কেন এটিকে জেনোসাইড হিসেবে সংজ্ঞায়িত করা হবে না? জাতিসংঘ জেনোসাইড কনভেনশন অনুসারে দিবসটির আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির দাবি জানান তিনি।
জাতীয় গণহত্যা দিবস উপলক্ষে ওয়ান বাংলাদেশের আয়োজনে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, ওয়ান বাংলাদেশের সভাপতি অধ্যাপক মোঃ রশীদুল হাসান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়-এর অধ্যাপক ডা. নুজহাত চৌধুরী শম্পা এবং রাবির উপ-উপাচার্যদ্বয় ড. সুলতান-উল-ইসলাম এবং ড. হুমায়ুন কবীর।
বা/খ: জই