ঢাকা ০৫:৪৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

পাঁচবিবিতে মৌসুমী ফেরিওয়ালার পতাকা বিক্রি

মোঃ জিহাদ মন্ডল, পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০১:৩৪:৪০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০২৩
  • / ৫৪২ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

হেমায়েত মাতবর, তিনি ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা উপজেলার শ্রীবরদি গ্রামের ছায়েম মাতবরের ছেলে। মৌসুমী পতাকা বিক্রেতা হিসাবে প্রতি বছরের মত এবারও ১লা ডিসেম্বর বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে লাল সবুজের পতাকা বিক্রি করার জন্য জয়পুরহাটে পাঁচবিবিতে এসেছেন। এ মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত বিভিন্ন হাট বাজার ও জন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ফেরি করে পতাকা বিক্রি করবেন তিনি। পাঁচবিবি থানা রোডে দেখা হলে কথা হয় এ প্রতিবেদকের সাথে। তিনি বলেন সে পেশায় একজন কৃষক।

সারা বছর সংসারের কাজকর্ম করলেও এই সময়টাতে বাড়তি আয়ের আশায় বিজয় দিবসের পতাকা, মাথায় এবং হাতে বাঁধার ব্যাচ ও বিজয় দিবসের অন্যান্য সামগ্রী ভালই বিক্রি হয়। তাই ১৫ দিনের এই ব্যবসা। সেই সাথে এবার যোগ হয়েছে জাতীয় নির্বাচন। দলীয় প্রতীক সম্বলিত ব্যাচ গুলোও ভালই বিক্রি হচ্ছে। প্রতিদিন সে বিক্রি করে ১ হাজার থেকে ১২শ টাকা পর্যন্ত । এতে করে এই ১৫ দিনে পতাকা বিক্রি থেকে আয় হবে প্রায় ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকার মত। আর এই বিজয় নিশান কাঁধে নিয়ে ঘুরে ঘুরে বিক্রি করতে ভালোই লাগে তার।

তিনি জানান, ৬ ফুটের একটি পতাকা বিক্রি করছেন ১৫০ টাকা, ৫ ফুট ১০০ টাকা, সাড়ে ৩ ফুট ৮০ টাকা, আড়াই ফুট ৫০ টাকা, দেড় ফুট ৩০ টাকা আর ১ ফুট ২০ টাকা এবং ফিতা আর ব্যান্ড বিক্রি করছেন ১০ /৩০ টাকা।

সারা বছর এদের দেখা না মিললেও হেমায়েত মাতবরের মত বিজয়ের মাসে শহর থেকে গ্রামে হাট বাজারে দেখা মেলে ৮/১০ফুট লম্বা বাঁশে বেঁধে বিক্রি করা এসব মৌসুমী পতাকা বিক্রেতাদের। রয়েছে নানা আকারের পতাকা এবং পতাকার লোগো সংবলিত মাথা ও হাতে বাঁধার ব্যান্ড। পতাকার মধ্যে বর্তমান লাল-সবুজ জাতীয় পতাকা যেমন রয়েছে, তেমনি রয়েছে মুক্তিযুদ্ধকালীন লাল-সবুজের মাঝে হলুদ মানচিত্র আঁকা পতাকা ও ব্যাচ।

এবার জাতীয় নির্বাচনের প্রচার প্রচারণা থাকায় এসবের সাথে বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন দলের প্রতীক সম্বলিত ব্যাচও। স্থানীয়রা বলেছেন, বিজয়ের মাসে অনেকেই বাড়ির ছাদে, শিল্প-প্রতিষ্ঠানের সামনে এমনকি গাড়িতেও জাতীয় পতাকা ওড়ান। এর ফলে বিজয়ের মাস এলেই জাতীয় পতাকার চাহিদা বেড়ে যায়। অনেক মানুষ দর্জির দোকানে গিয়ে পতাকা বানিয়ে নেয়ার চেয়ে ফেরিওয়ালার কাছ থেকে সহজেই কিনছে তাদের চাহিদা মত পতাকাসহ অন্যান্য জিনিস।

এই সুযোগে মৌসুমী ব্যবসায়ীরা হাট-বাজারে ঘুরে ঘুরে জাতীয় পতাকা বিক্রি করছেন। শুধু পতাকা নয়, হাতে ও মাথায় বাঁধার মতো লাল-সবুজ ব্যাচও বিক্রি করছে। আর ১৬ ডিসেম্বরে লাল-সবুজ পতাকা হাতে দেখা মেলে অসংখ্য শিশু- কিশোরদের। তবে অনেকে মন্তব্য করেন যে জাতীয় পতাকা গুলো সঠিক মাপ অনুযায়ী তৈরি করা হয়না।

 

বাখ//আর

নিউজটি শেয়ার করুন

পাঁচবিবিতে মৌসুমী ফেরিওয়ালার পতাকা বিক্রি

আপডেট সময় : ০১:৩৪:৪০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০২৩

হেমায়েত মাতবর, তিনি ফরিদপুর জেলার নগরকান্দা উপজেলার শ্রীবরদি গ্রামের ছায়েম মাতবরের ছেলে। মৌসুমী পতাকা বিক্রেতা হিসাবে প্রতি বছরের মত এবারও ১লা ডিসেম্বর বিজয় দিবস উপলক্ষ্যে লাল সবুজের পতাকা বিক্রি করার জন্য জয়পুরহাটে পাঁচবিবিতে এসেছেন। এ মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত বিভিন্ন হাট বাজার ও জন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ফেরি করে পতাকা বিক্রি করবেন তিনি। পাঁচবিবি থানা রোডে দেখা হলে কথা হয় এ প্রতিবেদকের সাথে। তিনি বলেন সে পেশায় একজন কৃষক।

সারা বছর সংসারের কাজকর্ম করলেও এই সময়টাতে বাড়তি আয়ের আশায় বিজয় দিবসের পতাকা, মাথায় এবং হাতে বাঁধার ব্যাচ ও বিজয় দিবসের অন্যান্য সামগ্রী ভালই বিক্রি হয়। তাই ১৫ দিনের এই ব্যবসা। সেই সাথে এবার যোগ হয়েছে জাতীয় নির্বাচন। দলীয় প্রতীক সম্বলিত ব্যাচ গুলোও ভালই বিক্রি হচ্ছে। প্রতিদিন সে বিক্রি করে ১ হাজার থেকে ১২শ টাকা পর্যন্ত । এতে করে এই ১৫ দিনে পতাকা বিক্রি থেকে আয় হবে প্রায় ১০ থেকে ১৫ হাজার টাকার মত। আর এই বিজয় নিশান কাঁধে নিয়ে ঘুরে ঘুরে বিক্রি করতে ভালোই লাগে তার।

তিনি জানান, ৬ ফুটের একটি পতাকা বিক্রি করছেন ১৫০ টাকা, ৫ ফুট ১০০ টাকা, সাড়ে ৩ ফুট ৮০ টাকা, আড়াই ফুট ৫০ টাকা, দেড় ফুট ৩০ টাকা আর ১ ফুট ২০ টাকা এবং ফিতা আর ব্যান্ড বিক্রি করছেন ১০ /৩০ টাকা।

সারা বছর এদের দেখা না মিললেও হেমায়েত মাতবরের মত বিজয়ের মাসে শহর থেকে গ্রামে হাট বাজারে দেখা মেলে ৮/১০ফুট লম্বা বাঁশে বেঁধে বিক্রি করা এসব মৌসুমী পতাকা বিক্রেতাদের। রয়েছে নানা আকারের পতাকা এবং পতাকার লোগো সংবলিত মাথা ও হাতে বাঁধার ব্যান্ড। পতাকার মধ্যে বর্তমান লাল-সবুজ জাতীয় পতাকা যেমন রয়েছে, তেমনি রয়েছে মুক্তিযুদ্ধকালীন লাল-সবুজের মাঝে হলুদ মানচিত্র আঁকা পতাকা ও ব্যাচ।

এবার জাতীয় নির্বাচনের প্রচার প্রচারণা থাকায় এসবের সাথে বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন দলের প্রতীক সম্বলিত ব্যাচও। স্থানীয়রা বলেছেন, বিজয়ের মাসে অনেকেই বাড়ির ছাদে, শিল্প-প্রতিষ্ঠানের সামনে এমনকি গাড়িতেও জাতীয় পতাকা ওড়ান। এর ফলে বিজয়ের মাস এলেই জাতীয় পতাকার চাহিদা বেড়ে যায়। অনেক মানুষ দর্জির দোকানে গিয়ে পতাকা বানিয়ে নেয়ার চেয়ে ফেরিওয়ালার কাছ থেকে সহজেই কিনছে তাদের চাহিদা মত পতাকাসহ অন্যান্য জিনিস।

এই সুযোগে মৌসুমী ব্যবসায়ীরা হাট-বাজারে ঘুরে ঘুরে জাতীয় পতাকা বিক্রি করছেন। শুধু পতাকা নয়, হাতে ও মাথায় বাঁধার মতো লাল-সবুজ ব্যাচও বিক্রি করছে। আর ১৬ ডিসেম্বরে লাল-সবুজ পতাকা হাতে দেখা মেলে অসংখ্য শিশু- কিশোরদের। তবে অনেকে মন্তব্য করেন যে জাতীয় পতাকা গুলো সঠিক মাপ অনুযায়ী তৈরি করা হয়না।

 

বাখ//আর