ঢাকা ০১:৩১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

পরিবেশ দূষণে দেশে মারা যাচ্ছে ৩২ শতাংশ মানুষ : বিশ্বব্যাংক

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০১:৫৯:১৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩১ অক্টোবর ২০২২
  • / ৪৬০ বার পড়া হয়েছে

ফাইল ছবি

বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

নিজস্ব প্রতিবেদক : 
বাংলাদেশে পরিবেশ দূষণের সঙ্গে সম্পর্কিত কারণে বছরে মৃত্যুবরণ করে ৩২ শতাংশ মানুষ। পাশাপাশি বায়ু দূষণের কারণে বছরে ক্ষতির পরিমাণ জিডিপি’র ৯ ভাগ।

সোমবার (৩১ অক্টোবর) রাজধানীর একটি হোটেলে বিশ্বব্যাংক ‘কান্ট্রি ক্লাইমেট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট রিপোর্ট’-এ এসব তথ্য প্রকাশ করে। অনুষ্ঠানের মূল প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন বিশ্বব্যাংকের টেকশই উন্নয়নবিষয়ক আঞ্চলিক পরিচালক জন রুম।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে ঘূর্ণিঝড়ের কারণে বছরে ক্ষতি হয় ১ বিলিয়ন ডলার। মোট জিডিপির যা প্রায় শূন্য দশমিক ৭ ভাগ। তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রি এবং বৃষ্টিপাত ৪ ডিগ্রি বাড়লে ২০২৫ সালে বঙ্গোপসাগরের সমুদ্র পৃষ্টের উচ্চতা বাড়তে পারে ২৭ সেন্টিমিটার। এভাবে সমুদ্র পৃষ্টের উচ্চতা বাড়লে বাড়বে সম্পদহানি, যার মূল্য আনুমানিক ৩০০ মিলিয়ন ডলার।

বিশ্বব্যাংক বলছে, নিয়ন্ত্রণে পদক্ষেপ না নিলে ২০৫০ সাল নাগাদ জিডিপির এক তৃতীয়াংশ কৃষি জমি হারানোর শঙ্কা রয়েছে। বাস্তুচ্চ্যুত হবে ১৩ মিলিয়ন মানুষ। ঝুঁকি মোকাবেলায় সরকারি-বেসরকারি খাতকে সমানভাবে এগিয়ে আসার পরামর্শ দিয়েছে সংস্থটি।

নিউজটি শেয়ার করুন

পরিবেশ দূষণে দেশে মারা যাচ্ছে ৩২ শতাংশ মানুষ : বিশ্বব্যাংক

আপডেট সময় : ০১:৫৯:১৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩১ অক্টোবর ২০২২

নিজস্ব প্রতিবেদক : 
বাংলাদেশে পরিবেশ দূষণের সঙ্গে সম্পর্কিত কারণে বছরে মৃত্যুবরণ করে ৩২ শতাংশ মানুষ। পাশাপাশি বায়ু দূষণের কারণে বছরে ক্ষতির পরিমাণ জিডিপি’র ৯ ভাগ।

সোমবার (৩১ অক্টোবর) রাজধানীর একটি হোটেলে বিশ্বব্যাংক ‘কান্ট্রি ক্লাইমেট অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট রিপোর্ট’-এ এসব তথ্য প্রকাশ করে। অনুষ্ঠানের মূল প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন বিশ্বব্যাংকের টেকশই উন্নয়নবিষয়ক আঞ্চলিক পরিচালক জন রুম।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে ঘূর্ণিঝড়ের কারণে বছরে ক্ষতি হয় ১ বিলিয়ন ডলার। মোট জিডিপির যা প্রায় শূন্য দশমিক ৭ ভাগ। তাপমাত্রা ১৫ ডিগ্রি এবং বৃষ্টিপাত ৪ ডিগ্রি বাড়লে ২০২৫ সালে বঙ্গোপসাগরের সমুদ্র পৃষ্টের উচ্চতা বাড়তে পারে ২৭ সেন্টিমিটার। এভাবে সমুদ্র পৃষ্টের উচ্চতা বাড়লে বাড়বে সম্পদহানি, যার মূল্য আনুমানিক ৩০০ মিলিয়ন ডলার।

বিশ্বব্যাংক বলছে, নিয়ন্ত্রণে পদক্ষেপ না নিলে ২০৫০ সাল নাগাদ জিডিপির এক তৃতীয়াংশ কৃষি জমি হারানোর শঙ্কা রয়েছে। বাস্তুচ্চ্যুত হবে ১৩ মিলিয়ন মানুষ। ঝুঁকি মোকাবেলায় সরকারি-বেসরকারি খাতকে সমানভাবে এগিয়ে আসার পরামর্শ দিয়েছে সংস্থটি।