ঢাকা ০৫:০৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বাংলা বাংলা English English हिन्दी हिन्दी

ন্যায়বিচার পাওয়া সাংবিধানিক অধিকার : প্রধান বিচারপতি

কক্সবাজার প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৩:৪১:০০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪
  • / ৪৪০ বার পড়া হয়েছে
বাংলা খবর বিডি অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান বলেছেন, ন্যায়বিচার প্রাপ্তি মানুষের সাংবিধানিক অধিকার। প্রতিটা মানুষ বিচার পাবেন। বিচারপ্রার্থীদের ন্যায়বিচার পাওয়া সাংবিধানিক অধিকার।

শনিবার (১৮ মে) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালত প্রাঙ্গণে ন্যায়কুঞ্জ বিশ্রামাগার নির্মাণের ভিস্তিপ্রস্তর উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, দেশের প্রত্যেকটা নাগরিকের দ্রুত বিচার পাওয়া সাংবিধানিক অধিকার। দ্রুত বিচার পাওয়া যেমন সাংবিধানিক অধিকার, তেমনি দ্রুত বিচার করে দেওয়া বিচারপতিদের নৈতিকতার কাজ।

প্রধান বিচারপতি বলেন, এই আদালতে অনেক বিচারপ্রার্থী আসেন। তাদের বসার জন্য তেমন স্থান নেই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রতিটা আদালতে এই রকম ন্যায়কুঞ্জ বিশ্রামাগার নির্মাণ করে দিচ্ছেন। এটার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ। বিশ্রামাগারে বিচারপ্রার্থীরা ছাড়াও সবাই বসতে পারবেন।

এ সময় গণপূর্ত অধিদপ্তরের অর্থায়নে সাড়ে ৫১ লাখ টাকা ব্যয়ে ন্যায়কুঞ্জ নির্মাণের ভিস্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন প্রধান বিচারপতি।

নিউজটি শেয়ার করুন

ন্যায়বিচার পাওয়া সাংবিধানিক অধিকার : প্রধান বিচারপতি

আপডেট সময় : ০৩:৪১:০০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান বলেছেন, ন্যায়বিচার প্রাপ্তি মানুষের সাংবিধানিক অধিকার। প্রতিটা মানুষ বিচার পাবেন। বিচারপ্রার্থীদের ন্যায়বিচার পাওয়া সাংবিধানিক অধিকার।

শনিবার (১৮ মে) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালত প্রাঙ্গণে ন্যায়কুঞ্জ বিশ্রামাগার নির্মাণের ভিস্তিপ্রস্তর উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, দেশের প্রত্যেকটা নাগরিকের দ্রুত বিচার পাওয়া সাংবিধানিক অধিকার। দ্রুত বিচার পাওয়া যেমন সাংবিধানিক অধিকার, তেমনি দ্রুত বিচার করে দেওয়া বিচারপতিদের নৈতিকতার কাজ।

প্রধান বিচারপতি বলেন, এই আদালতে অনেক বিচারপ্রার্থী আসেন। তাদের বসার জন্য তেমন স্থান নেই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী প্রতিটা আদালতে এই রকম ন্যায়কুঞ্জ বিশ্রামাগার নির্মাণ করে দিচ্ছেন। এটার জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ। বিশ্রামাগারে বিচারপ্রার্থীরা ছাড়াও সবাই বসতে পারবেন।

এ সময় গণপূর্ত অধিদপ্তরের অর্থায়নে সাড়ে ৫১ লাখ টাকা ব্যয়ে ন্যায়কুঞ্জ নির্মাণের ভিস্তিপ্রস্তর উদ্বোধন করেন প্রধান বিচারপতি।